ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ২৭ অক্টোবর ২০২০ ১১ কার্তিক ১৪২৭
ই-পেপার মঙ্গলবার ২৭ অক্টোবর ২০২০

মধ্যমপন্থা অবলম্বনে সুসংবাদ
মো. মিনহাজুল ইসলাম বকসী
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১১:২১ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 117

ইসলাম কোনো বিষয়ে যেমন বাড়াবাড়িকে সমর্থন করে না তেমনি ছাড়াছাড়িরও কোনো স্থান ইসলামে নেই। ইসলাম গুরুত্ব দেয় বাড়াবাড়ি এবং ছাড়াছাড়ির মাঝে মধ্যমপন্থাকে। আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে মধ্যপন্থি জাতি হিসেবে সৃষ্টি করেছেন এবং সব ক্ষেত্রে মধ্যমপন্থা অবলম্বন করতে বলেছেন। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ বলেছেন, ‘তুমি তোমার চলার ক্ষেত্রে মধ্যমপন্থা (কাসদ) অবলম্বন কর এবং তোমার কণ্ঠস্বর নিচু কর; নিশ্চয় সুরের মধ্যে গর্দভের সুরই সবচেয়ে অপ্রীতিকর।’ (সুরা লোকমান : ১৯)। এ সম্পর্কে হাদিসে উল্লেখ আছে, আবু হুরাইরাহ (রা.) হতে বর্ণিতÑ নবীজি (সা.) বলেন, ‘নিশ্চয় দ্বীন সহজ। যে ব্যক্তি অহেতুক দ্বীনকে কঠিন বানাবে, তার উপর দ্বীন জয়ী হয়ে যাবে। (অর্থাৎ মানুষ পরাজিত হয়ে আমল ছেড়ে দেবে) সুতরাং তোমরা সোজা পথে থাক এবং (ইবাদতে) মধ্যমপন্থা অবলম্বন কর। তোমরা সুসংবাদ নাও। আর সকাল-সন্ধ্যা ও রাতের কিছু অংশে ইবাদত করার মাধ্যমে সাহায্য নাও।’ (বুখারি : ৩৯)
ইসলাম কোনো ইবাদতের ক্ষেত্রে কঠিন তথা বাড়াবাড়ি করতে নিষেধ করেছে। হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিতÑ তিনি বলেন, তিনজন লোক রাসুল (সা.)-এর স্ত্রীদের ঘরে আসল। তারা রাসুল (সা.)-এর ইবাদত-বন্দেগি সম্পর্কে জানতে চাইল। যখন তাদেরকে এ সম্পর্কে জানানো হলো, তখন তারা যেন এটাকে অপ্রতুল মনে করল। আর বলল, রাসুল (সা.) কোথায় আর আমরা কোথায়? তাঁর আগের-পরের সব গুনাহ ক্ষমা করে দেওয়া হয়েছে। তাদের একজন বলল, আমি সারা রাত নামাজ পড়তে থাকব। আরেকজন বলল, আমি সারা জীবন রোজা রাখব। কখনও রোজা ছাড়ব না। আরেকজন বলল, আমি নারীদের থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রাখব, কখনও বিয়ে করব না। ইতোমধ্যে রাসুল (সা.) তাদের কাছে আসলেন। আর বললেন, তোমরা তো এ রকম, সে রকম কথা বলেছ। আল্লাহর কসম! তোমাদের চেয়ে আমি আল্লাহকে বেশি ভয় করি। তার সম্পর্কে বেশি তাকওয়া অবলম্বন করি। কিন্তু আমি রোজা রাখি আবার রোজা ছেড়ে দেই। আমি নামাজ পড়ি আবার নিদ্রা যাই। আর বিয়েশাদিও করি। যে আমার এসব আদর্শ থেকে মখু ফিরিয়ে নেবে সে আমার দলভুক্ত নয়। (বুখারি ও মুসলিম)
আমাদেরকে যেহেতু সাধারণ মানুষ হিসেবে পৃথিবীতে সৃষ্টি করা হয়েছে তাই আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের নির্দেশিত সব কাজ পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে সম্পাদন করা আমাদের পক্ষে সম্ভব হবে না। তাই আমাদের উচিত মধ্যমপন্থা অবলম্বন করা। হযরত হাকাম বিন হাযন কুলাফী (রা.) থেকে বর্ণিতÑ রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘হে মানব সকল! তোমাদেরকে যেসব কর্মের আদেশ করা হয়, তার প্রত্যেকটাই পালন করতে তোমরা কখনই সক্ষম হবে না। তবে তোমরা মধ্যমপন্থা অবলম্বন কর এবং সুসংবাদ নাও।’ (মুসনাদে আহমাদ : ১৭৮৫৬; আবু দাউদ : ১০৯৮)
তাই আমাদের উচিত আকিদা থেকে শুরু করে ইবাদত, চরিত্র-মাধুর্য, বিচার-ফয়সালা, সাক্ষ্যদান, আবেগ-অনুভূতি, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, সামাজিক অর্থাৎ মানব জীবনের সব ক্ষেত্রেই মধ্যমপন্থা অবলম্বন করা। কারণ মধ্যমপন্থাই মানুষকে গন্তব্যে পৌঁছায়। এ সম্পর্কে হাদিসে আলোচিত হয়েছে। হযরত আবু হুরাইরাহ (রা.) হতে বর্ণিতÑ তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, কস্মিনকালেও তোমাদের কাউকে তার নিজের আমল কখনও নাজাত দেবে না। তাঁরা বললেন, হে আল্লাহর রাসুল! আপনাকেও না? তিনি বললেন, আমাকেও না। তবে আল্লাহ আমাকে তার রহমত দিয়ে আবৃত রেখেছেন। তোমরা যথারীতি আমল করে নৈকট্য লাভ কর। তোমরা সকাল, বিকাল এবং রাতের শেষভাগে আল্লাহর ইবাদত কর। মধ্যমপন্থা অবলম্বন কর। মধ্যমপন্থা তোমাদেরকে লক্ষ্যে পৌঁছাবে। (বুখারি ও মুসলিম)
লেখক : শিক্ষার্থী, ইসলামী বিশ^বিদ্যালয়, কুষ্টিয়া









সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]