ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ৩১ অক্টোবর ২০২০ ১৬ কার্তিক ১৪২৭
ই-পেপার শনিবার ৩১ অক্টোবর ২০২০

ম্যাচ আবহে টাইগারদের অনুশীলন
ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশ: শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১১:৫৮ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 16

অনিশ্চিত শ্রীলঙ্কা সফরকে সামনে রেখেই চলছে দেশের ক্রিকেটারদের কর্মযজ্ঞ। বৃহস্পতিবার রাত ১০টা পর্যন্ত ধোঁয়াশা কাটেনি সফর নিয়ে। তবে এদিন ম্যাচ আবহে অনুশীলন সেরেছে টাইগাররা।
করোনা আতঙ্কে বেশ লম্বা মাঠের বাইরে ছিল ক্রিকেটাররা। দীর্ঘদিন ম্যাচের মধ্যে ছিলেন না কেউই। তাই এদিন ক্রিকেটারদের ভিন্নভাবে অনুশীলন করালেন প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। ম্যাচে কার কী অবস্থা, সেটি জানতে ম্যাচের মতো আবহ তৈরি করে মুশফিক-তামিমদের অনুশীলন করিয়েছেন। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে সেন্টার উইকেটে দুই প্রান্তেই অনুশীলন চলেছে ক্রিকেটারদের। শুরুতে নেটে যাওয়ার সুযোগ পান তামিম ইকবাল ও সাদমান ইসলাম। আরেক পাশে মোহাম্মদ মিঠুন ও ইয়াসির আলী চৌধুরী।
তামিম ও সাদমানের জন্য ছিলেন দুই পেসার তাসকিন আহমেদ ও হাসান মাহমুদ। পরে যুক্ত হন দুই অফস্পিনার মাহমুদউল্লাহ ও নাঈম হাসান। তামিম সাবলীলভাবে খেললেও সাদমানকে বেশ ভুগতে হয়েছে। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান বেশ অস্বস্তিতে ছিলেন। শুরুতেই বোল্ড হন তাসকিনের বলে। পরেও আরও কয়েকবার ক্যাচ দিয়ে হয়েছেন তালুবন্দি। তাসকিন স্কিল ক্যাম্পের শুরু থেকেই দুর্দান্ত বোলিং করছেন। বৃহস্পতিবারও দারুণ সব ডেলিভারিতে ব্যাটসম্যানদের ভড়কে দিয়েছেন।
তাসকিনের পাশাপাশি তরুণ পেসার হাসানও বল করেছেন সঠিক লাইন এবং লেন্থে। মিঠুন ও ইয়াসিরকে পরীক্ষা দিতে হয় রুবেল হোসেন, আল আমিন ও সৌম্য সরকারের বোলিংয়ের সামনে। দুই ব্যাটসম্যানকেই কিছুটা সমস্যায় ফেলেছেন রুবেল-আল আমিন। এই তিন পেসারের বল ছাড়াও বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ও অফস্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজকেও খেলতে হয়েছে মিঠুন-ইয়াসিরের। বোলিং অ্যাকশন বদলে ফেলায় গতি কিছুটা কমলেও আগের কার্যকারিতা তাইজুলের বোলিংয়ে ঠিকই দেখা গেছে।
বেশ ফ্লাইট দিয়েছেন, বাড়তি বাউন্সও পেয়েছেন তাইজুল, যিনি মনোযোগী ছিলেন লাইন-লেন্থে বল করে যাওয়ার দিকে। তাইজুলের বিপরীতে মিরাজ ছিলেন কিছুটা সাদামাটা। অন্যদিকে সাবলীলভাবেই ব্যাট করতে দেখা গেছে মুশফিকুর রহিমকে। প্রথম দফা চার ব্যাটসম্যানের ব্যাটিং শেষে ক্রিজে আসেন মুমিনুল হক ও নাজমুল হোসেন শান্ত এবং মুশফিক আর মাহমুদউল্লাহ। শুরুতে মুমিনুল-নাজমুল খেলেন হাসান মাহমুদ ও মোস্তাফিজুর রহমানকে। আরেক প্রান্তে মুশফিক-মাহমুদউল্লাহর বিপক্ষে বোলিং করেন রুবেল ও খালেদ আহমেদ।
খানিক বাদে দুই প্রান্তের বোলারদের বদল করে নেন প্রধান কোচ। মোস্তাফিজের জায়গায় চলে যান রুবেল। বাঁহাতি ব্যাটসম্যানদের বিপক্ষে বল কিছুটা বাইরে করতে দেখা গেছে কাটার মাস্টারকে। অবশ্য তার কারণও ছিল। ডানহাতি ব্যাটসম্যানদের বিপক্ষে বল ভেতরে ঢোকানোর চেষ্টা করেছেন এই বাঁহাতি পেসার। তবে টানা পরিশ্রমে সফল হওয়ার আভাস মিলেছে তার বোলিংয়ে। অন্যদিকে আগের সেশনের মতো এই সেশনেও দুর্দান্ত বোলিং করেছেন নাঈম হাসান। তার বোলিংয়ে খুব ভুগতে হয়েছে নাজমুল হাসানকে; বার দুয়েক আউটও হয়েছেন তিনি।
এদিকে সব সময়কার মতো নেটে দারুণ লেগেছে মুশফিককে। হাসান-খালেদ-তাইজুল-মিরাজদের বল তাকে সাবলীলভাবেই খেলতে দেখা গেছে। পরে সবশেষ ব্যাটিংয়ে আসেন ইমরুল কায়েস ও সৌম্য সরকার এবং লিটন দাস ও মোসাদ্দেক হোসেন। লিটনকে কঠিন সময় দিয়েছেন নাঈম। তাসকিন-আল আমিনদের বলেও ছন্দময় লিটনকে দেখা যায়নি। ইমরুলও ছিলেন সাদামাটা। তাইজুলকে দেখা গেছে সৌম্যকে পরাস্ত করতে। অথচ অনুশীলন ম্যাচ কিংবা অনুশীলনে এই সৌম্য বড় বড় ছক্কা মারেন তাইজুলকে!
প্রধান কোচ ডমিঙ্গোর অধীনে বিসিবি সাত দিন ধরে এই স্কিল ক্যাম্প চালিয়েছে। যার শেষ দিন ছিল বৃহস্পতিবার। এদিন অনুশীলন শেষে ড্রেসিং রুমের সামনে লম্বা সময় ধরে খেলোয়াড়দের সঙ্গে কথা বলেছেন ডমিঙ্গো। হয়তো পরবর্তী পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করে নিয়েছেন।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]