ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ২৬ অক্টোবর ২০২০ ১১ কার্তিক ১৪২৭
ই-পেপার সোমবার ২৬ অক্টোবর ২০২০

নাটক ও ওয়েব প্ল্যাটফর্ম আলাদা : তাসনুভা তিশা
সময়ের আলো অনলাইন
প্রকাশ: শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৮:০৫ পিএম আপডেট: ২৬.০৯.২০২০ ৮:৩২ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 1045

অভিনেত্রী তাসনুভা তিশা। সাম্প্রতিক ব্যস্ততা ও প্রাসঙ্গিক বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন তিনি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন মোহাম্মদ তারেক।

সাম্প্রতিক ব্যস্ততা নিয়ে বলুন।
দীপু হাজরার ‘অরুপার গল্প’, অঞ্জন আইচের ‘অল্প’, খায়রুল পাপনের ‘বাবু খাইছো’, শফিক মুক্তার ‘ছোট্ট একটি শব্দ’ নাটকের কাজ শেষ করেছি। এর মধ্যে একটি বিজ্ঞাপনের কাজও করেছি। সামনে আরও কিছু কাজ আছে।
করোনাকালে কাজ করার অভিজ্ঞতা কেমন হচ্ছে?

গত ঈদের কাজ যখন করেছি তখন ভয় কাজ করেছে। আস্তে আস্তে সে ভয় কমেছে। আতঙ্কিত থাকার বিষয়টা আগের মতো কাজ করে না। মানসিক চাপ অনেকটা কমেছে। বরং স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়গুলোর প্রতি গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। শুটিং করার সময় তো মাস্ক পরা সম্ভব নয়। যদি করোনা হয়ে যায় তো কিছু করার নেই। সে মানসিক প্রস্তুতি নিয়ে কাজ করছি।

শোনা যায় শিল্পীরা স্বাস্থ্য সচেতনতা মানলেও শুটিং সংশ্লিষ্ট কেউ কেউ স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না। এ বিষয়ে আপনি কী বলবেন?
আসলে এটি যার যার ব্যক্তিগত ব্যাপার। আমার মনে হয় সংগঠনগুলো এক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে পারে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য প্রতিটি শুটিং ইউনিটকে যদি তারা কঠোর নির্দেশনা দেয় তাহলে তারা হয়তো মানবে। তবে সবকিছু নির্ভর করছে ‘ক্যাপ্টেন অব দ্য শিপ’ ডিরেক্টরের উপর।

সাম্প্রতিককালে ওটিটি প্ল্যাটফর্ম নিয়ে চর্চা হচ্ছে। এ প্ল্যাটফর্ম নিয়ে আপনি কী ভাবছেন?

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো ওয়েব প্ল্যাটফর্মে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাবার জন্য আমাদের আরও সময় লাগবে। সহসাই অন্যান্য দেশের কনটেন্টের মতো কিছু তৈরী করতে পারবো বলে মনে হয় না। সম্প্রতি কয়েকটি ওয়েব সিরিজ নিয়ে সমালোচনা হবার পর এমনটি মনে হয়েছে। আমাদের দর্শকরা বাংলাদেশের শিল্পীদের সবরকম চরিত্রে দেখতে অভ্যস্ত হয়নি। যদিও তারা বাইরের ওয়েব প্ল্যাটফর্মের প্রায় সকল কনটেন্ট দেখছে। নাটকের চেয়ে ওয়েব প্ল্যাটফর্ম আলাদা। দর্শক নাটকের শিল্পীদের ওটিটি প্ল্যাটফর্মে গ্রহণ করতে পারছে না। তাদের অভ্যস্ত হতে সময় লাগবে। তবে আমাদের দেশে ভালো কাজ হচ্ছে। অনেকে চেষ্টা করছে। সব মিলিয়ে আমরা ভালো অবস্থানে আছি।

শুরুতে সমালোচনা করে এ প্ল্যাটফর্মটির প্রতি দর্শককে ভুল বার্তা কি দেয়া হচ্ছে না?
আমারও তাই মনে হয়। আরেকটু সহজভাবে বিষয়গুলোকে বিচার করলে আরও ভালো কনটেন্ট পাওয়ার সম্ভাবনা বাড়তো। শুরুতেই নেতিবাচকতা এ প্ল্যাটফর্মটিকে কিছুটা হলেও পিছিয়ে দিয়েছে। পরিচালক ও শিল্পীদের উদ্বেগ বেড়েছে। কাজ করার আগে আমাদের ভাবতে হচ্ছে এ চরিত্রটি নিয়ে কোন ধরনের কথা শুনব।

প্রায়ই গল্প নির্ভর কাজ প্রশংসিত হচ্ছে। কিন্তু ইউটিউব ভিউর দৌড়ে সেগুলো পিছিয়ে থাকছে। বিষয়টি আপনি কীভাবে দেখেন?
আমরাও ব্যাপারটি লক্ষ্য করেছি। যে কাজগুলো নিয়ে কথা বলতে আগ্রহ জাগে না সেগুলো ভিউ বেশি পাচ্ছে। অন্যদিকে গল্প নির্ভর কাজগুলোর ভিউ সেরকম হচ্ছে না। আমার জায়গা থেকে বলতে পারি বিষয়টি নিয়ে আমি চিন্তিত নই। ‘ভিউ’ ব্যাপারটি আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ নয়। একটা ভালো চিত্রনাট্য, একজন ভালো পরিচালক ও ভালো সহশিল্পী আমার কাছে অধিক গুরুত্বপূর্ণ।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]