ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ২৭ অক্টোবর ২০২০ ১১ কার্তিক ১৪২৭
ই-পেপার মঙ্গলবার ২৭ অক্টোবর ২০২০

এমসি কলেজে গণধর্ষণ : সাইফুর-অর্জুনের পর রবিউল রিমান্ডে
নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট
প্রকাশ: সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৪:৩২ পিএম আপডেট: ২৮.০৯.২০২০ ৪:৩৪ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 122

সিলেটের এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে তরুণীকে ধর্ষণের মামলায় প্রধান আসামি ছাত্রলীগকর্মী সাইফুর রহমান ও ৪ নম্বর আসামি অর্জুন লস্করের ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। সিলেট মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ২য় আদালতের বিচারক সাইফুর রহমান সোমবার দুপুরের দিকে তাদের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এছাড়া বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে মামলার ৫ নম্বর আসামি রবিউলের ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন একই আদালত। 

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (গণমাধ্যম) জ্যোতির্ময় সরকার সময়ের আলোকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এদিকে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সকাল ১১টা থেকে আদালত এলাকায় পুলিশ মোতায়েন ছিল। পুলিশি পাহারার প্রিজন ভ্যানে করে সকাল ১১টা ৪০ মিনিটে আসামি সাইফুর রহমান ও অর্জুনকে আদালতে হাজির করা হয়। ওইদিন আদালতে গ্রেফতারকৃত সাইফুর রহমান, অর্জুন লস্করকে হাজির করে ধর্ষণ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসএমপি’র শাহপরাণ থানার ওসি (তদন্ত) ইন্দ্রনীল ভট্রাচার্য ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। শুনানী শেষে আদালতের বিচারক ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

সিলেট মহানগর পুলিশের শাহপরাণ থানার ওসি আবদুল কাইয়ূম চৌধুরী সময়ের আলোকে জানান, ধর্ষণ মামলায় সাইফুর ও অর্জুন লস্করের ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

এর আগে রোববার ভোরে সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার খেয়াঘাট সংলগ্ন এলাকা থেকে মামলার প্রধান আসামি সাইফুরকে এবং হবিগঞ্জের মাধবপুরের মনতলা সীমান্ত এলাকা থেকে ৪ নম্বর আসামি অর্জুনকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত সাইফুর রহমান সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার চান্দাইপাড়া গ্রামের বাসিন্দা তাহমিদ মিয়ার ছেলে আর অর্জুন লস্কর জকিগঞ্জ উপজেলার আটগ্রাম গ্রামের কানু লস্করের ছেলে।

এরপর পুলিশ ও র‌্যাব-৯ সিলেটের বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়ে আরও দুইজনকে গ্রেফতার করেছে। তারা হচ্ছে, হবিগঞ্জ সদর থানার বাগুনীপাড়ার শাহ মো. জাহাঙ্গীর মিয়ার ছেলে শাহ মো. মাহবুবুর রহমান রনি ও সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলাধীন বড়নগদীপুর গ্রামের বাসিন্দা রবিউল ইসলাম (২৫)। 

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার বিকেলে এমসি কলেজে বেড়াতে যান এক দম্পত্তি। ছাত্রলীগের ৫/৬ জন  নেতাকর্মী তাদের ধরে ছাত্রাবাসে নিয়ে যায়। সেখানে দু’জনকেই মারধর করে তারা। পরে স্বামীকে  বেঁধে রেখে তার সামনেই স্ত্রীকে গণধর্ষণ করা হয়। এরপর পুলিশ নির্যাতিতা তরুণী ও তার স্বামীকে উদ্ধার করে। এঘটনায় শনিবার ছাত্রলীগের ৬ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন ধর্ষিতার স্বামী।

এদিকে রোববার দুপুরে সিলেট মহানগর হাকিম ৩য় আদালতের হাকিম শারমিন খানম নিলার কাছে  সেই রাতের ঘটনার জবানবন্দি দেন নির্যাতনের শিকার তরুণী। এসময় তিনি ঘটনার বিস্তারিত বর্ণনা  দেন। আর আদালত তরুণীর জবানবন্দি রেকর্ড করেন।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]