ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ৩১ অক্টোবর ২০২০ ১৬ কার্তিক ১৪২৭
ই-পেপার শনিবার ৩১ অক্টোবর ২০২০

‘সভাপতিবিহীন’ পরিষদের ২৪ দফা ইশতেহার
ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশ: শুক্রবার, ২ অক্টোবর, ২০২০, ১০:৩৩ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 20

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) নির্বাচনকে সামনে রেখে আগেই নির্বাচনি ইশতেহার ঘোষণা করেছে দুই পক্ষ। বাকি ছিল শুধু শেখ মোহাম্মদ আসলাম-মহিউদ্দিন মহিদের গড়া সমন্বয় পরিষদ। বৃহস্পতিবার ‘সভাপতিবিহীন’ এই পরিষদ ঘোষণা করেছে ২৪ দফা নির্বাচনি ইশতেহার। যাদের প্যানেলে সভাপতি ছাড়াও নেই একজন সহসভাপতি প্রার্থী।
ইশতেহার ঘোষণার সময় সভাপতি ছাড়া প্যানেল দেওয়ার কারণ ব্যাখ্যায় সহসভাপতি প্রার্থী মহিউদ্দিন মহি বলেছেন, ‘আমরা সভাপতি পদটি খালি রেখেছি। কাউকে সমর্থন করছি না। আমরা মনে করি, নির্বাচনে যদি সংখ্যাগরিষ্ঠ আসতে পারি তাহলে কাজ করার সুযোগ থাকবে। তখন সভাপতি এককভাবে কিছু করতে পারবে না। তাই আমরা এখানে সভাপতি পদটি উন্মুক্ত রেখেছি। ১৯ জনের বাইরে আমাদের কোনো প্রার্থী নেই।’
এই পরিষদের ২৪ দফা নির্বাচনি ইশতেহারে উল্লেখযোগ্য হিসেবে আছেÑ ১২ বছর মেয়াদি কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করা, জেলা ও উপজেলায় লিগ আয়োজন, বয়সভিত্তিক ফুটবল নিয়মিত করা, সোহরাওয়ার্দী ও শেরেবাংলা কাপ আয়োজন এবং পেশাদার ফুটবল লিগকে ঢেলে সাজানো। সমন্বয় পরিষদের প্রতিশ্রæতি প্রতিটি জেলায় স্থানীয় লিগ সেরাদের নিয়ে শহীদ শেখ রাসেলের নামে জাতীয় ক্লাব চ্যাম্পিয়নশিপ আয়োজনের। এ ছাড়া আন্তঃস্কুল ও কলেজ এবং বিশ^বিদ্যালয়ের প্রতিযোগিতার কথাও উল্লেখ করা হয়েছে।
আরও রয়েছে সারা দেশের ক্লাবগুলোকে আর্থিক সাহায্য, অফিস ও করপোরেট লিগ আয়োজন, জাতীয় দলের জন্য ৪, ৮ ও ১২ বছর মেয়াদি বাস্তবসম্মত পরিকল্পনা প্রণয়ন, ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে উন্নতি ও খেলোয়াড়দের ইন্স্যুরেন্স পলিসির মধ্যে আনা। এই পরিষদের লক্ষ্য আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় আগামী চার বছরের মধ্যে বাংলাদেশকে শিরোপাপ্রত্যাশী দল হিসেবে গড়ে তোলা, যেখানে মূল লক্ষ্য থাকবে সাফ ফুটবলে সাফল্য।
এ ছাড়া ভালো দল নিয়ে বঙ্গবন্ধু ও শেখ কামাল আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা আয়োজন করতে চায় শেখ মোহাম্মদ আসলাম-মহিউদ্দিন মহিদের গড়া সমন্বয় পরিষদ। মেয়েদের ফুটবল লিগ নিয়েও রয়েছে ভিন্ন ভাবনা। বয়সভিত্তিক দল ও জাতীয় দল আলাদা করে গঠনের উদ্যোগের পাশাপাশি জিম স্থাপন ও প্রতিবছর বার্ষিক সাধারণ সভা করে সব কিছু সবাইকে জানানোর কথা বলা হয়েছে।  নির্বাচনে জিততে নিজেদের ইশতেহারে কোনো কিছুই বাদ দেয়নি সমন্বয় পরিষদ।
সিনিয়র সহসভাপতি প্রার্থী শেখ মোহাম্মদ আসলাম আশাবাদী তাদের প্যানেল নিয়ে। তিনি বলেন, ‘আমাদের প্যানেলে যারা আছেন তারা পরীক্ষিত সৈনিক। জেলা-বিভাগ ও ক্লাবের প্রতিনিধিরা আছেন। আগেও তারা পাস করে এসেছেন। এবারও আশা করছি জিতবেন।’ অন্যদিকে আশিকুর রহমান মিকু বললেন, না জিতলে ক্রীড়াঙ্গন ছেড়ে দেবেন তিনি। কাজী সালাউদ্দিন নেতৃত্বাধীন পরিষদের বিরুদ্ধে সমন্বয় পরিষদ গড়ার নেপথ্যে অন্যতম মুখ মিকু।
মিকু জেলা ও বিভাগীয় ক্রীড়া সংগঠক পরিষদের (ফোরাম) মহাসচিব, এসেছেন নড়াইল জেলা থেকে। বর্তমানে নড়াইলের জেলা ক্রীড়া সংস্থা ও ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান নির্বাহীর পদ ছাড়া আরও দুটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব সামলাচ্ছেন তিনি। বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের (বিওএ) উপমহাসচিব ও বাংলাদেশ ভলিবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। বাফুফে নির্বাচনে তিনি প্রার্থী না হলেও বেশ সক্রিয় সমন্বয় পরিষদের পক্ষে।
এই পরিষদের পরিচিতি ও ইশতেহার পাঠ অনুষ্ঠানে বক্তব্যে মিকু বলেন, ‘বাফুফে নির্বাচনের লড়াইয়ে ব্যর্থ হলে ৫০ বছরের দীর্ঘ সংগঠক ক্যারিয়ারের ইতি টানব। এই নির্বাচনে পরিবর্তনের লক্ষ্য নিয়ে প্যানেল করেছি। প্যানেলটা হয়েছে বলেই একটা অবস্থান নিতে পেরেছেন তৃণমূলের সংগঠকেরা। আমি তৃণমূল থেকে উঠে এসে দীর্ঘ ৫০ বছর ক্রীড়াঙ্গনের জন্য জীবন-যৌবন উৎসর্গ করেছি। আজ তৃণমূলের অনেক সংগঠক বিভিন্ন ক্রীড়া ফেডারেশনে দায়িত্ব পালন করছেন। এবারের লড়াইয়ে না জিতলে ঘোষণা দিচ্ছি, ক্রীড়াঙ্গন ছেড়ে দেব।’
এই সংগঠকের বক্তব্যের শেষ লাইনটা ছিল এমন, ‘ব্যর্থ হলে মনে করব, এতদিনের সকল প্রচেষ্টা
ছিল মিথ্যে।’





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]