ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শুক্রবার ২৩ অক্টোবর ২০২০ ৭ কার্তিক ১৪২৭
ই-পেপার শুক্রবার ২৩ অক্টোবর ২০২০

১ ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধা দিবস সরকারিভাবে পালনের প্রস্তাব
সংসদ প্রতিবেদক
প্রকাশ: সোমবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২০, ১১:৪৯ পিএম আপডেট: ১৯.১০.২০২০ ১২:০৭ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 14

১ ডিসেম্বর সরকারিভাবে মুক্তিযোদ্ধা দিবস পালন করার প্রস্তাব দিয়েছে মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। কমিটির বৈঠকে দ্বিতীয় বিশ^যুদ্ধে নিহত ব্রিটিশ সৈন্যদের ব্রিটিশরা যেভাবে আজও স্মরণ করেন মুক্তিযোদ্ধাদের সেভাবে চিরস্মরণীয় করে রাখতে পরিকল্পনা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়েছে।
রোববার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত কমিটির বৈঠকে এ সুপারিশ করা হয়। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সংসদীয় কমিটির বৈঠকে যোগ দেওয়ার ব্যবস্থা করা যায় কি নাÑ সে বিষয়ে জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর কাছে একটি প্রস্তাব দেওয়ারও সিদ্ধান্ত হয়। কমিটির সভাপতি মো. শাজাহান খানের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক ও কাজী ফিরোজ রশীদ এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব তপন ঘোষসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি শাজাহান খান সাংবাদিকদের বলেন, সরকারি ঘোষণা না থাকলেও পহেলা ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধা দিবস পালন করা হয়। এক সময় যখন মুক্তিযোদ্ধারা থাকবেন না তখনও যাতে তাদের স্মরণ করা হয় সে জন্য মুক্তিযোদ্ধা দিবসটি সরকারিভাবে পালনের প্রস্তাব করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, সরকার যদি গেজেট করে একটা দিবস ঘোষণা করে তখন সেটা পালন করার বাধ্যবাধকতা থাকে। তাই আমাদের প্রস্তাব মন্ত্রণালয় মন্ত্রিসভার বৈঠকে তুলবে। মন্ত্রিসভা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে।
সংশ্লিষ্টরা জানান, সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম থেকে মহান মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের মাস ডিসেম্বরের প্রথম দিনটিকে ‘মুক্তিযোদ্ধা দিবস’ হিসেবে ঘোষণার দাবি জানানো হয়। ২০০৪ সালের ১২ জানুয়ারি পল্টনে এক মহাসমাবেশ থেকে এই দাবি জানানোর পর থেকে পহেলা ডিসেম্বরকে ‘মুক্তিযোদ্ধা দিবস’ হিসেবে পালন শুরু হয়।
বৈঠকে জানানো হয়, মুক্তিযোদ্ধারা যেন সচ্ছলভাবে জীবনযাপন করতে পারেন সে জন্য ২০২০-২১ অর্থবছর থেকে তাদের মাসিক সম্মানী আট হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ২০ হাজার টাকা করার প্রস্তাব সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। আর মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও চেতনা বাস্তবায়নে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্ট সাধারণ শিক্ষায় অধ্যয়নরত প্রত্যেককে এক হাজার টাকা এবং মেডিকেল ও ইঞ্জিনিয়ারিং অধ্যয়নরত প্রত্যেককে ১ হাজার ৫০০ হারে ২০১২-১৩ অর্থবছর থেকে ২০১৭-১৮ অর্থবছর পর্যন্ত মোট ৩ হাজার ৪৬০ জন শিক্ষার্থীকে বৃত্তি দেওয়া হয়েছে। বৃত্তিপ্রাপ্ত ছাত্রছাত্রীদের মাঝে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও চেতনা কতটুকু বাস্তবায়িত হয়েছে, তা যাচাই-বাছাইয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা গ্রহণের লক্ষ্যে বৃত্তিপ্রাপ্তদের বিস্তারিত তথ্য আগামী বৈঠকে উপস্থাপনের সুপারিশ করা হয়।
কমিটি সূত্র জানায়, মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্ট থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের যে চিকিৎসা খরচ দেওয়া হয় প্রয়োজন অনুযায়ী তা মাসিক হারে প্রদানের সুপারিশ করা হয়। এ ছাড়া জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের আয় ও ব্যয়ের বিস্তারিত হিসাব বিবরণী এবং আয়-ব্যয়ের অডিট প্রতিবেদন আগামী বৈঠকে উপস্থাপনের জন্য বলা হয়।
কমিটির সভাপতি মো. শাজাহান খান বলেন, আমাদের কমিটিতে কয়েকজন সদস্য আছেন বয়োজ্যেষ্ঠ। অনেকেই বয়সের কারণে বৈঠকে আসতে পারেন না। আবার অনেকে এই করোনার কারণে আসতে পারছেন না। তারা যদি ভার্চুয়ালি অংশ নিতে পারেন, তাহলে সংসদীয় কমিটিতে আলোচনা প্রাণবন্ত হবে। আমরা স্পিকারের কাছে প্রস্তাবটি পাঠাব। তিনি যে সিদ্ধান্ত দেবেন সেটাই হবে।
রোববার সংসদীয় কমিটির বৈঠকে তিনজন সদস্য উপস্থিত ছিলেন। সংসদীয় কমিটিতে তিনজন হলেই কোরাম হয়। তবে সদস্য সংখ্যা কম হওয়ায় আলোচ্যসূচির কয়েকটি বিষয় নিয়ে বৈঠকে আলোচনা করা যায়নি।
সংসদের কার্যপ্রণালি বিধিতে বলা আছে, সংসদীয় কমিটির বৈঠক হবে সংসদের সীমার মধ্যে। তবে এর বাইরে বৈঠক করতে হলে স্পিকারকে আগে জানাতে হবে। এ ক্ষেত্রে স্পিকারের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত। বিভিন্ন সময় অনেক সংসদীয় কমিটি তাদের এখতিয়ারের ভেতরে থাকা কাজের জন্য সংসদ ভবনের বাইরে এবং ঢাকার বাইরেও বৈঠক করেছে। করোনাভাইরাস মহামারির কারণে মন্ত্রিসভা থেকে শুরু করে সরকারের অনেক কর্মসূচিতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অংশ নিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীও বিভিন্ন কর্মসূচিতে একইভাবে যোগ দিচ্ছেন। করোনাভাইরাস মহামারির কারণে সংসদ অধিবেশন এখন হচ্ছে বিশেষ ব্যবস্থায়, সীমিত পরিসরে। সংসদ অধিবেশনও ‘ভার্চুয়ালি’ করা যায় কি না, সে বিষয়ে আলোচনা উঠেছিল গত এপ্রিল মাসে। তবে তা আর এগোয়নি।









সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]