ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ৩১ অক্টোবর ২০২০ ১৫ কার্তিক ১৪২৭
ই-পেপার শনিবার ৩১ অক্টোবর ২০২০

বারোমাসি তরমুজে তিনগুণ লাভ
জাহাঙ্গীর আলম ইমরুল কুমিল্লা
প্রকাশ: সোমবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২০, ১১:৫৫ পিএম আপডেট: ১৯.১০.২০২০ ১২:১৪ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 58

তরমুজ মানেই গ্রীষ্মকালীন ফল। কিন্তু চিরায়ত এ ধারণাকে পাল্টে দিয়েছেন কুমিল্লার আনোয়ার নামে এক চাষি। তিনি ভাদ্র মাসে চাষ করেছেন তরমুজ! কুমিল্লায় এই প্রথম অসময়ে তরমুজ চাষ করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন চাষি আনোয়ার। কম জমিতে কম খরচে ব্ল্যাকবেবি জাতের এই তরমুজ চাষ বেশ লাভজনক। অন্যদিকে পুষ্টিগুণেও সমৃদ্ধ। লাভ তিনগুণ। ব্ল্যাকবেবি জাতের বারোমাসি এই তরমুজ চাষ করে সফলতার মুখ দেখেছেন সদর দক্ষিণ উপজেলার বলরামপুরের আনোয়ার নামে প্রান্তিক এই চাষি।
কৃষক আনোয়ার হোসেন জানান, প্রতিবছর শাকসবজি চাষ করে লোকসান গুনতে হলেও তরমুজ চাষ করে তিনি অনেক লাভবান। পরীক্ষামূলকভাবে মাত্র ২০ শতক জমিতে তরমুজ চাষ করে লাখ টাকা আয় করেছেন তিনি। এই তরমুজ চাষে আনোয়ার হোসেনের খরচ হয় মাত্র ৩৫ হাজার টাকা আর সময় লেগেছে মাত্র ৬৫ দিন। এবার তিনি আরও বেশি জমিতে সম্প্রসারণ করছেন তরমুজ চাষ। ফলন দেওয়া এই তরমুজ শীতকালেও চাষের সম্ভাবনা দেখছেন আনোয়ার হোসেন। তরমুজ সাধারণত চৈত্র-বৈশাখ মাসের ফল হলেও অসময়ে ফল আসা তরমুজ কিনতে কুমিল্লা শহরের মানুষ ক্ষেতেই আসে। আনোয়ার প্রতিকেজি তরমুজ বিক্রি করছেন ১০০-১২০ টাকায়। এই তরমুজের ভেতরে গাঢ় লাল বর্ণ, স্বাদেও মিষ্টি। বাম্পার ফলন আর বাড়তি দামের কারণে অনেকেই আগ্রহী হচ্ছেন এই ব্ল্যাকবেবি তরমুজ চাষে।
করোনাকালে তরমুজের ফলন ও বিক্রি ভালো হওয়ায় আনোয়ারের মনে বেশ আনন্দ। আনোয়ার হোসেনের এ সাফল্যের পেছনে রয়েছে কৃষি বিভাগের সহযোগিতা। কৃষি বিভাগের পরামর্শে প্রথমবারের মতো ২০ শতক ধানি জমিতে মাটি উঁচু করে বেড তৈরি করে তরমুজের চারা রোপণ করা হয়। এরপর মাত্র ৬০-৬৫ দিনেই তরমুজ আসে এবং পেকে খাবার উপযোগী হয়।
কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা সাহিদা খাতুন জানান, এই তরমুজ বিষ বা কেমিক্যালমুক্ত। সেক্সফেরোমেন পদ্ধতি অবলম্বন করে সার ও কীটনাশক ছাড়া বিষমুক্তভাবে চাষ করা হয় এই ফল।
কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. মহিউদ্দিন মজুমদার জানান, অসময়ে কুমিল্লায় প্রথম তরমুজ চাষকে পর্যবেক্ষণ করছে কৃষি অধিদফতর। পুষ্টিগুণ এবং দাম ভালো থাকায় এই তরমুজ চাষ প্রসারে আগ্রহীদের সর্বাত্মক সহযোগিতার কথা জানান মহিউদ্দিন। তিনি আরও জানান, বাংলাদেশে কুমিল্লা ছাড়া শুধু চুয়াডাঙ্গায় হয় এই ব্ল্যাকবেবি তরমুজ। ভালো বীজ ও সার সরবরাহ থাকলে কুমিল্লা থেকে সারা দেশে এই তরমুজের বাণিজ্যিক সফলতা পাওয়া সম্ভব বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]