ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ৩১ অক্টোবর ২০২০ ১৫ কার্তিক ১৪২৭
ই-পেপার শনিবার ৩১ অক্টোবর ২০২০

আগে অর্ডার পাইতাম দিনে ১০টা, এখন  পাই ২টা
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: সোমবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২০, ১১:৫৫ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 17

‘ব্যবসার অবস্থা কথা আর কী কমু আফা, আগে অর্ডার পাইতাম দিনে ১০টা আর এহন পাই ২টা। বুঝেনই তো কী অবস্থায় দিন কাটাইতাছি। থাকলে কিছু কাজ দেন। আফনে আর জামা-কাপড় বানান না?’
কেমন আছেন জানতে চাইলে এভাবেই উত্তর দেন ৩৫ বছরের দজি মোক্তার হোসেন। মগবাজারের চেয়ারম্যান গলির মুখে মেট্রো টেইলার্সের স্বত্বাধিকারী ২ ছেলে ১ মেয়ে নিয়ে সুখের সংসার হলেও করোনার আঘাতে এখন বিষণ্ন দিন পার করছেন। এপ্রিল থেকে আগস্ট পর্যন্ত ৪ মাস পুরোপুরিই বন্ধ ছিল দোকান। মাঝখানে দুই ঈদে টুকটাক কিছু অর্ডার পাইলেও এখন কোনো কাজই নাই।
তিনি বলেন, ‘করোনা কমছে কি না জানি না, তবে বাইচ্চা তাহনের লাই¹া কাম করন লাগব। তাই বাইধ্য হইয়া দোকান খুলছি। কিন্তু কাস্টমার তো নাই। কেউ আর কাপড় বানায় না। আর কেমনেই বা বানাইব? মানুষ খাওন জোগাড় করতে যেহানে হিমশিম খাইতাছে হেইহানে আবার কাপড়।’ ময়মনসিংহের ভাষায় বলেই চললেন, করোনার সময় ভাবছিলাম বাসা ছাইড়া গ্রামে চইলা যামু। কিন্তু ওইহানে তো বাড়িঘর কিছু নাই। সব দুর্যোগ গরীবের লাই¹া..ধনীদের কোনো টেনশনই নাই..!
শুধু মোক্তার হোসেন নন একই সঙ্কটে দিন পার করছেন প্রায় সব দর্জি। নুন আনতে যাদের পান্তা ফুরায় করোনার ধাক্কা তাদের আরও কঠিন পরীক্ষার মধ্যে ফেলে দিয়েছে। টাকার অভাবে সাধারণ মানুষের অধিকাংশই এখন পোশাকের পেছনে খরচ না করে মৌলিক চাহিদা পূরণ করবে কীভাবে সেই চিন্তায়ই দিন পার করছেন মোক্তাররা...!






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]