ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ১ ডিসেম্বর ২০২০ ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
ই-পেপার মঙ্গলবার ১ ডিসেম্বর ২০২০

কোটি টাকার লোভে জামাতাকে হত্যার পরিকল্পনা শ^শুরের
প্রকাশ: সোমবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২০, ৯:৪২ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 20

ষ পটুয়াখালী প্রতিনিধি
সাবেক ইউপি সদস্য আমিনুল গাজী (৫০) ওরফে দিলীপ গাজীর ব্যাংকে গচ্ছিত কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার উদ্দেশ্যে তাকে হত্যার পরিকল্পনা করে শ^শুর আনোয়ার প্যাদা। এ উদ্দেশ্যে ভাতিজি জামাই নিজামের সঙ্গে ২ লাখ টাকার চুক্তিতে লোক ভাড়া করে। ২১ অক্টোবর নিজাম তার পূর্ব পরিচিত আমজেদের সঙ্গে হত্যার সিদ্ধান্ত নিয়ে রাতে দিলীপের বাড়িতে বেড়াতে যায় এবং কৌশলে তাকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে শ^াসরোধে হত্যা করে।
এটি পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার লালুয়া ইউনিয়নে নাওয়াপাড়া গ্রামের আলোচিত আমিনুল গাজী ওরফে দিলীপ হত্যার মূল রহস্য। রোববার সকালে পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে বিষয়টি সাংবাদিকদের সামনে আনেন পুলিশ সুপার মোহাম্মাদ মইনুল হাসান। এ ঘটনায় নিহত দিলীপের স্ত্রী হাবিবা বেগম বাদী হয়ে সংশ্লিষ্ট থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ সুপার সাংবাদিকদের জানান, ২২ অক্টোবর উপজেলার লালুয়া ইউনিয়নের নওয়াপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ও সাবেক ইউপি সদস্য আমিনুল ইসলাম গাজী ওরফে দিলীপ গাজীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। খুনের ঘটনার ৩৬ ঘণ্টা পর পটুয়াখালী অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ বিল্লাল হোসেনের নেতৃত্বে অভিযুক্তদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় পটুয়াখালী গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল। আসামিদের কলাপাড়া আদালতে হাজির করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।
ঘটনার বরাত দিয়ে এসপি মইনুল হাসান জানান, পায়রা বন্দরের উন্নয়নকে কেন্দ্র করে নিহত দিলীপের অনেক জমি অধিগ্রহণ হয়। সেই সূত্রে দিলীপের ব্যাংক হিসাবে প্রায় কোটি টাকা জমা পড়ে। ওই টাকা হাতিয়ে নেওয়ার পাঁয়তারা করে শ^শুর আনোয়ার প্যাদা। কৌশলে টাকা হাতিয়ে নিতে ব্যর্থ হলে ভাতিজি জামাই বরগুনার আমতলী উপজেলার গুলিশাখালীর বাসিন্দা ফজলে করিমের ছেলে নিজামকে প্রস্তাব করে জামাতাকে খুন করার। পরে নিজাম বরগুনা জেলার হেউলিয়াবুনিয়া গ্রামের বাসিন্দা আমজেদের সঙ্গে দুই লাখ টাকায় চুক্তি করে। পুলিশ সুপার জানান, দিলীপ কাতার প্রবাসী ছিলেন। বিদেশ থাকাকালীন আয়ের অর্থ ছাড়াও পৈতৃক সূত্রে তিনি সম্পদশালী ছিলেন। দিলীপের স্ত্রী ও তিন সন্তান দীঘদিন ধরে শ^শুর আনোয়ারের কাছে থাকে। দিলীপের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের নমিনি তার অসুস্থ মেয়ে লামিয়া আক্তার। জামাতার অবর্তমানে নিজ মেয়ে ও নাতনিকে ফুসলিয়ে ওই টাকা হাতিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা ছিল শ^শুর আনোয়ার প্যাদার।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]