ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ২৮ নভেম্বর ২০২০ ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
ই-পেপার শনিবার ২৮ নভেম্বর ২০২০

নতুন জরিপেও এগিয়ে   জো বাইডেন
ভোটের রাতে বিভ্রান্তির আশঙ্কা
সময়ের আলো ডেস্ক
প্রকাশ: শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২০, ১০:৩৯ পিএম আপডেট: ২৯.১০.২০২০ ১১:১৩ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 45

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এগিয়ে রয়েছেন ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী জো বাইডেন। এমনটাই উঠে এসেছে একাধিক জনমত জরিপে। নির্বাচন ঘনিয়ে আসায় সম্প্রতি নতুন করে আবারও জরিপ চালায় সংবাদমাধ্যম সিএনএন এবং জরিপ সংস্থা এসএসআরএস। সেখানেও উঠে এসেছে একই রকম চিত্র। বুধবার সিএনএনের খবরে বলা হয়েছে, জাতীয় পর্যায়ে তাদের সর্বশেষ এ জরিপেও এগিয়ে রয়েছেন বাইডেন। এদিকে নির্বাচনের মাত্র কয়েকদিন বাকি থাকতে যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিমকোর্টের একটি রায়ে বড় ধরনের ধাক্কা খেয়েছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের রিপাবলিকান শিবির। ট্রাম্প মেইল ইন বা ডাক ভোটের বিরোধিতা করে এলেও নর্থ ক্যারোলিনা থেকে ডাকযোগে পাঠানো ভোট নির্বাচনের ছয় দিন পরও গ্রহণের পক্ষে সম্মতি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিমকোর্ট। নিম্ন আদালতের দেওয়া এই সংক্রান্ত রায়ের বিরুদ্ধে করা আপিল গত বুধবার রাতে খারিজ করে দেয় উচ্চ আদালত। এই সিদ্ধান্তের কারণে দোদুল্যমান অঙ্গরাজ্যটিতে ডেমোক্র্যাটিকদের জয় হলো বলে মনে করা হচ্ছে।
বাইডেন এগিয়ে থাকা জরিপে অংশ নেওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে ৫৪ শতাংশ বাইডেনকে এবং ৪২ শতাংশ ট্রাম্পকে সমর্থন দিয়েছেন। ২০১৯ সাল থেকে সিএনএনের প্রতিটি জরিপেই এগিয়ে আছেন জো বাইডেন। গত বসন্তের পর থেকে জাতীয় পর্যায়ে বড় ধরনের সবকটি জনমত জরিপে এগিয়ে আছেন তিনি। তবে কিছু দোদুল্যমান রাজ্য রয়েছে যার ওপর ফলাফল নির্ভর করছে। জরিপে বাইডেন যতটা সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন গত দুই দশকেও শেষ মুহূর্তে কোনো প্রার্থী এতটা সুবিধাজনক অবস্থায় ছিলেন না। যুক্তরাষ্ট্রের এবারের নির্বাচনে এরই মধ্যে আগাম ভোট দিয়েছেন  
সাত কোটিরও বেশি ভোটার। এ সংখ্যা ২০১৬ সালের নির্বাচনে মোট ভোটার উপস্থিতির অর্ধেক। সিএনএন-এসএসআরএসের জরিপে বলা হয়েছে, আগাম ভোট দিয়েছেন এমন ব্যক্তিদের মধ্যে ৬৪ শতাংশই জো বাইডেনের প্রতি রায় দিয়েছেন। অন্যদিকে এমন ভোটারদের মধ্যে ট্রাম্পের প্রতি রায় দিয়েছেন ৩৪ শতাংশ।
এখনও পর্যন্ত ভোট দেননি, তবে আগাম ভোট দেওয়ার পরিকল্পনা করছেন এমন ভোটারদের ৬৩ শতাংশই জো বাইডেনের সমর্থক। অন্যদিকে ট্রাম্পের সমর্থক ৩৩ শতাংশ। অর্থাৎ এক্ষেত্রে দুই-তৃতীয়াংশ ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন বাইডেন। নির্বাচন প্রকল্পের সংগৃহীত তথ্য অনুসারে, আগাম ভোট প্রদানকারী ভোটারদের সংখ্যা বাড়ছে। এক শতকের বেশি সময়ের মধ্যে সর্বোচ্চ ভোট প্রদানের রেকর্ড হতে পারে এবারের নির্বাচনে।
ভোট দিলেন বাইডেন : যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট দলীয় প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেন ও তার স্ত্রী জিল বাইডেন আগাম ভোট দিয়েছেন। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ছয় দিন আগে বুধবার নিজ রাজ্য ডেলাওয়ারের উইলমিংটনে আগাম ভোট দিয়েছেন তারা।
আগাম ভোট দেওয়ার পর জো বাইডেন জোর দিয়ে বলেছেন, তিনি প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে প্রথম দিন থেকেই করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবিলায় ব্যবস্থা নেবেন। তবে সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, এই মহামারির অবসানে তার হাতে কোনো জাদুর সুইচ নেই। সাবেক এই ভাইস প্রেসিডেন্ট বলেন, এমনকি আমি যদি নির্বাচিত হই, তারপরও মহামারির অবসান ঘটাতে প্রচুর কঠোর পরিশ্রম করতে হবে।
তিনি বলেন, একটি জাদুর সুইচ চেপে মহামারি শেষ করতে সক্ষম হওয়ার মিথ্যা প্রতিশ্রæতি দিতে পারছি না। তবে আমি আপনাদের প্রতিশ্রæতি দিতে পারি, একেবারে প্রথম দিন থেকেই মহামারি অবসানে সঠিক কাজটিই শুরু করব। আমাদের সিদ্ধান্ত বিজ্ঞান অনুযায়ী গ্রহণ করা হবে।
কোর্টের রায় রিপাবলিকানদের জন্য বড় ধাক্কা : প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মাত্র কয়েকদিন বাকি থাকতে যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিমকোর্টের একটি রায়ে বড় ধরনের ধাক্কা খেয়েছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের রিপাবলিকান শিবির। ট্রাম্প মেইল ইন বা ডাক ভোটের বিরোধিতা করে এলেও নর্থ ক্যারোলিনা থেকে ডাকযোগে পাঠানো ভোট নির্বাচনের ছয় দিন পরও গ্রহণের পক্ষে সম্মতি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিমকোর্ট। নিম্ন আদালতের দেওয়া এই সংক্রান্ত রায়ের বিরুদ্ধে করা আপিল গত বুধবার রাতে খারিজ করে দেন উচ্চ আদালত। এই সিদ্ধান্তের কারণে দোদুল্যমান অঙ্গরাজ্যটিতে ডেমোক্র্যাটিকদের জয় হলো বলে মনে করা হচ্ছে। এর আগে পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যের জন্য ডাকযোগের ভোট গ্রহণে অতিরিক্ত তিন দিন সময় অনুমোদনের পক্ষে রায় দেন উচ্চ আদালত।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোটের দিন ৩ নভেম্বর হলেও ৪ সেপ্টেম্ব থেকেই ডাকযোগে ভোটগ্রহণের প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে। এই দিন নর্থ ক্যারোলিনা রাজ্যের মানুষকে ‘মেল ইন’ ভোটের কাগজপত্র পাঠানো হচ্ছে। করোনা সঙ্কটের প্রেক্ষাপটে চলতি বছরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সংখ্যাগুরু ভোটারই ডাকযোগে ভোট দেবেন বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে। সে কারণে একাধিক রাজ্য সব ভোটারের কাছে ‘মেল ইন’ ভোটের ব্যালট পেপার পাঠিয়েছে। কিছু রাজ্যে নির্বাচনের দুই সপ্তাহ আগে এমন ভোট গণনা করা হয়। বাকি রাজ্যে নির্বাচনের পর সেই কাজ করা হয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, রেকর্ড সংখ্যক ডাকযোগে ভোটের কারণে নির্বাচনের রাতে সার্বিক চিত্র উঠে আসবে না।
প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প শুরু থেকেই ‘মেল ইন’ ভোটের বিরোধিতা করে চলেছেন। তার অভিযোগ, এই প্রক্রিয়ায় কারচুপির আশঙ্কা বেশি। কোনো তথ্যপ্রমাণ ছাড়াই তিনি এমন আশঙ্কার উল্লেখ করে আসছেন। ভোটের দিন ঘনিয়ে আসার প্রেক্ষাপটে এখন তিনি দাবি করছেন, ভোটের রাতেই গণনা শেষ করতে হবে। এমন পরিস্থিতিতে দুটি অঙ্গরাজ্যে ডাক ভোট গণনার মেয়াদ বাড়ানো রিপাবলিকানদের জন্য বড় ধরনের ধাক্কা বলে মনে করা হচ্ছে।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]