ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা  বুধবার ২৫ নভেম্বর ২০২০ ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
ই-পেপার  বুধবার ২৫ নভেম্বর ২০২০

ছায়া সংসদে কমিশনার ড. মোজাম্মেল
দুদক আর দন্তহীন বাঘ নয়, অনেক শক্তিশালী
প্রকাশ: রোববার, ২২ নভেম্বর, ২০২০, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 15

ষ নিজস্ব প্রতিবেদক
দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এখন আর দন্তহীন বাঘ নয়। দুদক অনেক শক্তিশালী এবং এই বাঘের হুঙ্কারে অনেক মানুষ ভীত বলে দাবি করেছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কমিশনার ড মো. মোজাম্মেল হক খান। শনিবার সকালে এফডিসিতে ‘ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি’র আয়োজনে দুর্নীতি প্রতিরোধে সরকারের সদিচ্ছা নিয়ে ছায়া সংসদে তিনি একথা বলেন।
ড. মো. মোজাম্মেল হক খান বলেন, দুদক এখন কোনো কিছুর কাছে মাথানত করে না। একসময় আমাদের দেশ দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। এখন কমিশনের সক্ষমতা, আন্তরিকতা ও সরকারের সদিচ্ছার কারণে দুদক ৪০টি দেশকে পেছনে ফেলে তাদের অবস্থান জানান দিয়েছে।
দুদক কমিশনার বলেন, দুদকের যে দায়িত্ব তা পালনে সরকার সর্বাত্মক আন্তরিক। আমি খুব তৃপ্তির সঙ্গে একটা কথা উল্লেখ করতে চাই, কমিশন গবেষণা বা প্রশিক্ষণের প্রয়োজনে সরকারের কাছে যখন কোনো বাজেটের প্রস্তাব দেয় সেটা সরকার পাস করে দেয়। আমাদের কোনো বাজেট সঙ্কট নেই। এটা সরকারের সদিচ্ছার প্রমাণ। সরকারের সদিচ্ছা না থাকলে কমিশন যে মযা‍র্দায় এসেছে সেটি সম্ভব হতো না।
তিনি আরও বলেন, শুধু পি কে হালদার নয়। এরকম আরও অনেকে আছে। সবার বিরুদ্ধে দুদক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছে। তাদের সম্পদ দেশে ফিরিয়ে আনা এবং তাদের ফিরিয়ে আনার কাজ চলমান রয়েছে। হাজী সেলিমের ছেলের বিষয়ে ড. মোজাম্মেলন বলেন, কোনো নামের বিষয়ে আমি বলব না। সব দুর্নীতিবাজের বিরুদ্ধে আমাদের অবস্থান এক। আমরা কাউকে ছাড় দিচ্ছি না। আর এটি যেহেতু এখনও অনুসন্ধান পর্যায়ে তাই তদন্তের স্বার্থে এখন এটা নিয়ে কথা বলব না। দুদক কর্মকর্তাদের দুর্নীতির বিষয়ে জানতে চাইলে কমিশনার মোজাম্মেল হক বলেন, আমাদের কাজ চলমান। আজকের আলোচনায় এনামুল বাছিরের বক্তব্য এসেছে। প্রতিদিনই আমরা এমন বিষয় নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করি। তাদের কৈফিয়ত তলব করি। কেউ কেউ সাসপেন্ড হয়েছে। এমনকি অনেককে আমরা বিভাগীয় মামলায় শাস্তি দিয়েছি। অনেকে চাকরি থেকে বিদায়ও নিয়েছে। আমি আশ^স্ত করতে চাই, দুদকের কোনো কর্মকর্তার দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত থাকার প্রমাণ পেলেই তার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।
ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ কিরণের সভাপতিত্বে ছায়া সংসদে বিচারক হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন শেরেবাংলা কৃষি বিশ^বিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. তাজুল ইসলাম চৌধুরী তুহিন, লেখক ও নাট্যকার অধ্যাপক আবু মোহাম্মদ রইস, উন্নয়নকর্মী ড. এসএম মোর্শেদ, সাংবাদিক জেমসন মাহবুব ও রোকসানা আমিন। ছায়া সংসদে অংশ নেয় ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ও বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজি।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]