ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ৫ ডিসেম্বর ২০২০ ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
ই-পেপার শনিবার ৫ ডিসেম্বর ২০২০

করোনা সংক্রমণে ধূমপায়ীদের জটিলতা
প্রকাশ: সোমবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২০, ১১:৩৪ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 14

ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আজিজুর রহমান
করোনা সংক্রমিত হলে অধূমপায়ীদের তুলনায় ধূমপায়ীদের অবস্থা তিনগুণ বেশি জটিল হয়। ভেন্টিলেটরের প্রয়োজন তাদের বেশি হয়, এমনকি তারা মারাও যায় বেশি। করোনা সংক্রমিত হয়ে মৃতদের মধ্যে বেশিরভাগই পুরুষ এবং অধিকাংশই ধূমপায়ী। কিছু মানুষের জন্য করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মারাত্মক হতে পারে। যাদের কো-মর্বিডিটি অর্থাৎ অন্য কোনো অসুখ রয়েছে এবং যাদের মৃত্যুর আশঙ্কা অনেক বেশি, তাদের মধ্যে ধূমপায়ীরা অন্যতম। নিয়মিত ধূমপান করলে ফুসফুসের মধ্যে যে ছোট ছোট চুলের মতো সিলিয়া থাকে, যাদের কাজ ধুলোবালি, জীবাণুকে বার করে ফুসফুসকে সুস্থ রাখা, তারা কিছুটা নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ে বলে যেকোনো ধরনের জীবাণু চট করে ঢুকে পড়ে। ফলে নিউমোনিয়া, ইনফ্লুয়েঞ্জা, টিবির পাশাপাশি বাড়ে করোনা সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কা। যেসব রিসেপটরের মাধ্যমে করোনাভাইরাস কোষে ঢোকে, ধূমপান করলে তারা বেশি সক্রিয় হয়ে ওঠে বলে ভাইরাস সহজে বংশবিস্তার করতে পারে। ধূমপানের কারণে যাদের ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ বা সিওপিডি আছে, করোনা সংক্রমিত হলে যেমন তারা বেশি অসুস্থ হন, সেরে যাওয়ার পরও তার রেশ চলে। অধূমপায়ীদের তুলনায় ধূমপায়ীরা বেশি বার নাকে-মুখে হাত দেন। যে হাতে সিগারেটের প্যাকেট খুলেছেন, দেশলাই জ্বালিয়েছেন, মাস্ক খুলেছেন সেই হাতই নাকে-মুখে লাগাচ্ছেন। আর তাই খুব সহজেই তিনি করোনা সংক্রমিত হতে পারেন। ধূমপায়ী যদি করোনা সংক্রমিত হন, তিনি যখন ধোঁয়া ছাড়েন, সেই ধোঁয়ায় ভর করে ভাইরাসও ছড়িয়ে পড়ে চতুর্দিকে। বাতাসবাহিত লালার কণায় ভাইরাস বেঁচে থাকতে পারে প্রায় তিন ঘণ্টা। কাজেই বদ্ধ ঘরে কাছাকাছি বসে বা দাঁড়িয়ে ধূমপান করলে খুব দ্রুত অন্যের মধ্যে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে, যাকে বলে ক্লাস্টার ইনফেকশন। বদ্ধ ঘরে কাছাকাছি বসে বা দাঁড়িয়ে ধূমপান করলে পরোক্ষ ধূমপানের (তামাকজাত পণ্য যেমন সিগারেট, সিগার বা পাইপ থেকে জ্বালানো ধোঁয়া) কারণে খুব দ্রুত অন্যের মধ্যে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে।
করোনাভাইরাসের প্রধান লক্ষ্যই হলো ফুসফুসকে অকার্যকর করে দেওয়া। কাজেই যেকোনোভাবে প্রত্যেক ব্যক্তির লক্ষ্য হওয়া উচিত ফুসফুসকে সুস্থ রাখা এবং ধূমপান পরিহার করা।
লেখক : বক্ষব্যাধি ও মেডিসিন বিশেষজ্ঞ





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]