ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ৫ ডিসেম্বর ২০২০ ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
ই-পেপার শনিবার ৫ ডিসেম্বর ২০২০

প্রসঙ্গ বাল্যবিবাহ ও প্রতিরোধ
মো. আরাফাত রহমান
প্রকাশ: সোমবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২০, ১১:৩৯ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 44

বাল্যবিবাহ হলো অপ্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির আনুষ্ঠানিক অথবা অনানুষ্ঠানিক বিবাহ। আইনত বিয়ের বয়স ১৮ বছর, বিশেষত মেয়েদের ক্ষেত্রে। কিন্তু বিশেষ ক্ষেত্রে অভিবাবকের অনুমতি সাপেক্ষে এই বয়সের আগেও বিয়ের অনুমতি দেওয়া হয়। যদিও আইন অনুযায়ী বিয়ের বয়স ১৮ বছর, তারপরও কিছু কিছু দেশের নিজস্ব প্রথাকেই আইনের চেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়। বাল্যবিবাহে মেয়ে এবং ছেলে উভয়ের ওপরই প্রভাব পড়ে। তবে মেয়েরাই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়, বিশেষত নিম্ন আর্থসামাজিক পরিস্থিতির কারণে।
 বেশিরভাগ বাল্যবিবাহে দুজনের মধ্যে শুধু একজন অপ্রাপ্তবয়স্ক হয়ে থাকে। বিশেষত মেয়েরাই বাল্যবিবাহের শিকার বেশি হয়। বাল্যবিবাহের কারণগুলোর মধ্যে রয়েছে প্রধানতÑ দরিদ্রতা, যৌতুক, সামাজিক প্রথা, বাল্যবিবাহ সমর্থনকারী আইন, ধর্মীয় ও সামাজিক চাপ, অঞ্চলভিত্তিক রীতি, অবিবাহিত থাকার শঙ্কা, নিরক্ষরতা এবং মেয়েদের উপার্জনে অক্ষম ভাবা।
যেসব কারণ বাল্যবিবাহের জন্য দায়ী তার মধ্যে অন্যতম যৌতুক। বিয়ের সময় মেয়েকে যৌতুক দেওয়ার প্রথা প্রাচীন কাল থেকে চলে আসছে যা এখনও বিশে^র কিছু কিছু জায়গায় প্রচলিত আছে। এ প্রথায় মেয়ের বিয়েতে অভিভাবক সম্পত্তি দান করে যা বেশিরভাগ পরিবারের জন্য অর্থনৈতিক হুমকিস্বরূপ।
যৌতুকের জন্য সম্পদ জমানো ও সংরক্ষণ করার যে প্রতিবন্ধকতা তা সাধারণ ব্যাপার। এ কারণে মেয়ের পরিবার কিছু নগদ অর্থ বা জমিজমা জোগাড় করার সঙ্গে সঙ্গেই মেয়ের বয়স বিবেচনা না করেই বিয়ে দিতে তৎপর হয়। মেয়েদের ক্ষেত্রেও যৌতুক দেওয়ার রীতি প্রচলিত আছে। তবে তাকে কনের মূল্য বা পণ নির্ধারণ বলা হয়। এই রীতিতে বর কনের পরিবারকে বিয়েতে রাজি করানোর জন্য পণের টাকা দিয়ে থাকে। কিছু দেশে কনের বয়স যত কম হয়, তার ওপর নির্ধারিত পণের মূল্য তত বেশি হয়। এই রীতির কারণে মেয়ের পরিবার মেয়েকে তাড়াতাড়ি এবং সর্বোচ্চ পণ নির্ধারণকারীকেই বিয়ে দিতে উদ্যত হয়। দুর্বল অর্থনীতিতে এভাবেই পরিবার আয়ের উৎস
অনুসন্ধান করে।
সামাজিক বিপর্যয় যেমনÑ যুদ্ধ, সামরিক অভিযান, বলপূর্বক ধর্মান্তর, স্থানীয়দের যুদ্ধবন্দি করা ও তাদের দাসে পরিণত করা, গ্রেফতার ও জোরপূর্বক দেশান্তর করাÑ এসব কারণে উপযুক্ত বর পাওয়া দুষ্কর। ঘটনা আয়ত্তের বাইরে যাওয়ার আগেই মেয়ের পরিবার যেকোনো গ্রহণযোগ্য পাত্র পেলে মেয়ের বিয়ের ব্যাপারে তৎপর হয়।
নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদন ও কিছু গবেষকদের দাবি অনুযায়ী, ভারতবর্ষে বাল্যবিবাহের উৎপত্তি ১০০০ বছরের আগ থেকে, যখন মুসলিমরা ভারত আক্রমণ করে। আক্রমণকারীরা কুমারী হিন্দু মেয়েদের ধর্ষণ
 করত বা তাদের লুট করে নিয়ে যেত, যার ফলে হিন্দু সম্প্রদায় তাদের কন্যা সন্তানদের রক্ষা করার জন্য কম বয়সে বিয়ে দিত।
সামাজিক নিরাপত্তাহীনতা বিশ^জুড়ে বাল্যবিবাহের অন্যতম কারণ। অন্যান্য অপরাধ সংঘটিত হওয়ার আশঙ্কা, যেমনÑ ধর্ষণ যা শুধু একটা মেয়ের জন্য বিপর্যয়ই নয়, বরং সমাজে তার গ্রহণযোগ্যতাও কমিয়ে দেয়। যেমনÑ মেয়েদের বিবাহযোগ্যা ভাবা হয় না যদি না তারা কুমারী হয়। কিছু প্রচলিত প্রথা অনুযায়ী ধারণা করা হয়, অবিবাহিত নারী কোনো নিষিদ্ধ সম্পর্কে জড়াতে পারে বা গোপনে পালিয়ে যেতে পারে যা পরিবারের জন্য লজ্জাজনক, অথবা দরিদ্র পরিবার নিজস্ব আর্থসামাজিক গোষ্ঠীর ভেতর তাদের প্রাপ্তবয়স্কা মেয়ের জন্য উপযুক্ত পাত্র খুঁজে নাও পেতে পারে। এসব ভয় ও সামাজিক চাপের কারণে বাল্যবিবাহ বেশি হয়ে থাকে। অত্যন্ত দরিদ্র পরিবারের কাছে মেয়ে আর্থিকভাবে বোঝাস্বরূপ, যার কারণে কম বয়সে বিয়ে দেওয়া হয় যাতে পরিবার এবং মেয়ে উভয়ই লাভবান হতে পারে। দরিদ্র পরিবার মেয়েদের ভরণ-পোষণের ভার বহন করতে না পেরে বিয়েকেই তাদের আর্থিক সুরক্ষার একমাত্র উপায় বলে মনে করে। বিশেষজ্ঞরা অভিমত
দেন যে দারিদ্র্য, উপযুক্ত পাত্রের অভাব, অনিশ্চিত সামাজিক ও অর্থনৈতিক পরিস্থিতি এসব কারণে বাল্যবিবাহ বেশি হতো।
বাল্যবিবাহের প্রবণতা স্থান ভেদে ভিন্ন হয়। বিশ^ব্যাপী, শহরাঞ্চলের মেয়েদের তুলনায় গ্রামাঞ্চলের মেয়েদের বাল্যবিবাহের প্রবণতা প্রায় দ্বিগুণ। বাল্যবিবাহের প্রভাব মেয়েদের ওপর ব্যাপক, যা প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার পরও থেকে যায়। কিশোরী বয়সে বা তারও আগে বিবাহিত নারীরা কম বয়সে গর্ভধারণ করার ফলে স্বাস্থ্যগত সমস্যায় ভোগে। কম বয়সে গর্ভধারণ এবং সন্তান জন্মদানে জটিলতা সৃষ্টি করে। গরিব দেশসমূহে অল্প বয়সে গর্ভধারণ শিক্ষার জন্য বাধা হয়ে দাঁড়ায়, যা তাদের অর্থনৈতিক মুক্তিকে বাধাগ্রস্ত করে। বাল্যবিবাহের শিকার নারীরা সাধারণত পারিবারিক সহিংসতা, শিশু যৌন নির্যাতন এবং বৈবাহিক ধর্ষণের শিকার হয়। ছেলেদেরও কখনও কখনও অপরিণত বয়সে বিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু ইউনিসেফের তথ্য অনুযায়ী, তুলনামূলকভাবে মেয়েরা এর বেশি শিকার হয়। অপরিণত বয়সের ছেলেদের বিয়ের হার সামান্য। ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসের হিসাব অনুযায়ী ১৫৬ মিলিয়ন ছেলে বাল্যবিবাহের শিকার। মেয়েদের ওপর বাল্যবিবাহের প্রভাব দীর্ঘমেয়াদি। বিশেষত স্বাস্থ্য, শিক্ষা এবং সামাজিক উন্নয়নের প্রেক্ষিতে। এর প্রভাব কৈশোরের পরও স্থায়ী হয়। উন্নয়নশীল বিশে^ ১৫-১৯ বছর বয়সি নারীমৃত্যুর প্রধান কারণ গর্ভধারণ ও সন্তান প্রসব।
বাল্যবিবাহ মেয়েদের স্বাস্থ্য ও জীবনের জন্য হুমকিস্বরূপ। ১৫-১৯ বছর বয়সি গর্ভবতী নারীদের মাতৃমৃত্যুর সম্ভাবনা ২০ বছর বয়সি গর্ভবতী নারীদের তুলনায় দ্বিগুণ। আর ১৫ বছরের কম বয়সি নারীদের ক্ষেত্রে মাতৃমৃত্যুর সম্ভাবনা ৫-৭ গুণ বেশি। যেসব নারী ১৫ বছরের পূর্বে সন্তান জন্মদান করে তাদের ফিস্টুলা বিকশিত হওয়ার সম্ভাবনা প্রায় ৮৮ শতাংশ। যা বিভিন্ন সংক্রমণের অন্যতম কারণ। ২০ বছর বয়সি বিবাহিত নারীদের যৌন সংক্রমিত রোগের সম্ভাবনা বেশি। বাল্যবিবাহ শুধু মায়ের স্বাস্থ্যই না বরং শিশুর স্বাস্থ্যের জন্যও হুমকিস্বরূপ। ১৮ বছরের নিচে মেয়েদের অপরিণত সন্তান জন্মদান বা কম ওজনের সন্তান জন্মদানের সম্ভাবনা ৩৫-৫৫ শতাংশ। তা ছাড়াও শিশু মৃত্যুর হার ৬০ শতাংশ, যখন মায়ের বয়স ১৮ বছরের নিচে। যেসব নারী কম বয়সে শিশুর জন্ম দেয় ওইসব শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হয় ও শিশু অপুষ্টিতে ভোগার সম্ভাবনা বেশি। বাল্যবিবাহের প্রাদুর্ভাবের কারণে জনসংখ্যার হার বৃদ্ধি পায়।
বাল্যবিবাহ মেয়েদের শিক্ষা জীবনের ইতি ঘটায়, সাধারণত অনুন্নত দেশসমূহে। একইভাবে নিরক্ষর মেয়েদের বাল্যবিবাহের হার বেশি। যেসব মেয়েদের শুধু প্রাথমিক শিক্ষা সম্পন্ন হয়েছে তাদের ১৮ বছরের নিচে বিয়ের সম্ভাবনা মাধ্যমিক শিক্ষাপ্রাপ্ত মেয়েদের তুলনায় দ্বিগুণ। এবং একেবারে নিরক্ষর মেয়েদের ১৮ বছরের নিচে বিয়ের সম্ভাবনা মাধ্যমিক শিক্ষাপ্রাপ্ত মেয়েদের তুলনায় তিনগুণ বেশি। পারিবারিক দায়িত্ব পালন ও সন্তান লালন-পালনের জন্য বিয়ের পর বেশিরভাগ মেয়ের শিক্ষা জীবন ব্যাহত হয়। শিক্ষা ছাড়া মেয়ে এবং নারীদের উপার্জনের সামান্য পথই খোলা থাকে। এ কারণে নারীদের ক্রমাগত দারিদ্র্যের সঙ্গে লড়াই করতে হয়, বিশেষত যদি তাদের স্বামী মারা যায় বা তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। যেহেতু বাল্যবিবাহের ফলে মেয়েরা স্বামীর চেয়ে তুলনামূলক কম বয়সি হয়, তাই তারা কম বয়সে বিধবা হয় এবং অর্থনৈতিক ও সামাজিক সঙ্কটে পড়ে।
অল্প বয়সে কম শিক্ষিত বিবাহিত মেয়েদের পারিবারিক সহিংসতার হার বেশি। বিয়ের পর সাধারণত স্বামীর পরিবারে থাকার কারণে গ্রাম বা অন্য এলাকায় চলে যেতে হয়। এর ফলে শিক্ষা জীবনেরও ইতি ঘটে, আবার নিজ পরিবার ও বন্ধু-বান্ধব থেকে দূরে যাওয়ার ফলে সে সামাজিক সমর্থন ও হারায়। মেয়ে অল্প বয়সি হওয়ার কারণে সে তার স্বামীর বাধ্য হবেÑ এমনটাই মনে করে স্বামীর পরিবার।
পরিবার হতে এই বিচ্ছিন্নতা নারীর মানসিক বিপর্যয়ের কারণ হয়ে ওঠে। স্বামীর সঙ্গে বয়সের ব্যাবধান বেশি হওয়ায় মেয়েদের ওপর সহিংসতা ও জোরপূর্বক সঙ্গমের ঘটনা বেশি হয়। কম বয়সে বিবাহিত মেয়েরা বিবাহপরবর্তী সহিংসতায় বেশি ভোগে। কম বয়সে বিয়ের কারণে মেয়েরা সম্পূর্ণরূপে স্বামীর ওপর নির্ভর করে। পারিবারিক ও যৌন নির্যাতন তাদের জীবনব্যাপী মানসিক ও শারীরিকভাবে বিপর্যস্ত করে তোলে, কারণ ওই সময় তাদের মানসিক বিকাশ গঠনের সময়। এ কারণে তারা বিষণ্নতা এমনকি আত্মহত্যার চিন্তাও করে।
২০১১ সালের ডিসেম্বর মাসে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে ১১ অক্টোবরকে আন্তর্জাতিক কন্যা শিশু দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়। ১১ অক্টোবর, ২০১২ সালে সর্বপ্রথম আন্তর্জাতিক কন্যা শিশু দিবস পালন করা হয়, যার মূল প্রতিপাদ্য ছিল বাল্যবিবাহ নির্মূল করা। ২০১৩ সালে প্রথম জাতিসংঘ মানবাধিকার সভায় বাল্যবিবাহ ও জোরপূর্বক বিয়ের বিরুদ্ধে নীতিমালা নির্ধারণ করা হয়। এতে বলা হয়, বাল্যবিবাহ হল মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং এই প্রথা বন্ধ করার ব্যাপারে সংকল্প ব্যক্ত করা হয়। ২০১৪ সালে জাতিসংঘের নারীর অবস্থান শীর্ষক কমিশনে এক দলিল পেশ করা হয় যেখানে অন্যান্য বিষয়ের পাশাপাশি বাল্যবিবাহ দূর করার ব্যাপারে ঐকমত্য ঘোষণা করা হয়।
বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ অনুযায়ী, বাল্যবিবাহ রোধের প্রধান উপায় হলো নারীদের শিক্ষা অর্জন, বিবাহের ন্যূনতম বয়স সংক্রান্ত আইন কার্যকরণ এবং অভিভাবকদের বাল্যবিবাহের ঝুঁকি সম্পর্কে অবগত করা। বাল্যবিবাহ রোধে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। বিভিন্ন পদক্ষেপের মধ্যে রয়েছেÑ নারীর ক্ষমতায়ন, বাল্যবিবাহের সংশ্লিষ্ট ঝুঁকি সম্পর্কে অভিভাবকদের অবহিত করা, সমাজের দৃষ্টিভঙ্গি বদলানো, নারী শিক্ষা সমর্থন এবং নারীদের ও তাদের পরিবারের অর্থনৈতিক সাহায্য করা।
বাংলাদেশে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন-২০১৭ অনুযায়ী আদালত, স্বউদ্যোগে বা কোনো ব্যক্তির অভিযোগের ভিত্তিতে বা অন্য কোনো মাধ্যমে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে, যদি এই মর্মে নিশ্চিত হন যে, কোনো বাল্যবিবাহের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে অথবা বাল্যবিবাহ অত্যাসন্ন তা হলে আদালত ওই বিবাহের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে পারবে। কোনো ব্যক্তি আরোপিত নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গ করলে তিনি অনধিক ছয় মাস কারাদণ্ড বা অনধিক দশ হাজার টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং অর্থদণ্ড অনাদায়ে অনধিক ১ এক মাস কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন। কোনো ব্যক্তি মিথ্যা অভিযোগ করলে তা হবে একটি অপরাধ এবং তজ্জন্য তিনি অনধিক ছয় মাস কারাদণ্ড অথবা অনধিক ত্রিশ হাজার টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং অর্থদণ্ড অনাদায়ে অনধিক এক মাস কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন। প্রাপ্ত বয়স্ক কোনো নারী বা পুরুষ বাল্যবিবাহ করলে তা অপরাধ এবং তজ্জন্য তিনি অনধিক দুই বছর কারাদণ্ড বা অনধিক এক লাখ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং অর্থদণ্ড অনাদায়ে অনধিক তিন মাস কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন।

ষ সহকারী কর্মকর্তা, ক্যারিয়ার অ্যান্ড প্রফেশনাল
     ডেভেলপমেন্ট সার্ভিসেস বিভাগ, সাউথইস্ট বিশ^বিদ্যালয়




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]