ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শুক্রবার ২২ জানুয়ারি ২০২১ ৮ মাঘ ১৪২৭
ই-পেপার শুক্রবার ২২ জানুয়ারি ২০২১

কালচে পোড়া ভবনটি ভেঙে ফেলার দাবি
তাজরীন ফ্যাশনসে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ৮ বছর
রাকিব হাসান জিল্লু আশুলিয়া
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২০, ১১:০৪ পিএম আপডেট: ২৪.১১.২০২০ ১২:১৩ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 94

শিল্পাঞ্চল আশুলিয়ায় তাজরীন ফ্যাশনসে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের আট বছর পার হলো আজ। আট বছর আগের সেই ভয়াল দিনে পুড়ে অঙ্গার হয়েছিল ১১৩টি তাজা প্রাণ। আহত হয় তিন শতাধিক শ্রমিক। সেদিনের ভয়াল স্মৃতি মনে করে এখনও আঁতকে ওঠে অনেকেই। ২০১২ সালে ২৪ নভেম্বর সন্ধ্যায় আশুলিয়ার নিশ্চিন্তপুর এলাকার তোবা গ্রুপের তাজরীন ফ্যাশনস লিমিটেডে এই ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছিল। শ্রমিকদের পাশাপাশি কারখানার মালামালসহ ভবনটি পুড়ে যায় সেদিন। সেই পুড়ে যাওয়ার ছাপ এখনও ভবনের চারপাশে লেগে রয়েছে। পুড়ে যাওয়া আটতলা ভবনটি জরাজীর্ণ হয়ে দাঁড়িয়ে আছে এখনও। তবে ভবনটি নিয়ে আতঙ্কে রয়েছে স্থানীয় বাসিন্দারা।
সোমবার দুপুরে সরেজমিন দেখা গেছে, ভবনটির প্রধান গেটে তালা ঝোলানো। এখানও জানালায় আগুনের কালচে ছোপ লেগে আছে। ভবনটির পাশে চায়ের দোকান হাবিবুর রহমানের। তিনি জানান, কারও যদি মেরুদণ্ড ভেঙে যায় তাহলে কি সে দাঁড়াতে পারে? পারে না। আমি মনে কি এই ভবনটির মেরুদণ্ড ভেঙে গেছে। এই ভবনের কারণে আরও দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। ভবনটির পূর্বপাশের বাড়ির মালিক আমিন গাজী ও শহিদ গাজী নামে দুই ভাই। বাড়িটিতে তারাসহ আরও ২৫টি পরিবার বাস করে। তারা জানান, সেদিনের ঘটনায় তাদের বাড়ির প্রায় ১৫টি টিনশেড ঘর পুড়ে যায়। এখনও তারা আতঙ্ক থাকেন। তাজরীনের আগুনে দগ্ধ শ্রমিক জরিনা জানান, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় যেসব নিহত-আহত শ্রমিক রয়েছে তাদের জন্য এই ভবনটি ভেঙে পুনর্বাসন করে দেওয়া হক, যাতে আহত ও নিহত শ্রমিকের পরিবারের লোকজন এখানে থাকতে পারে।
এ বিষয়ে শ্রমিক নেতা সরোয়ার হোসেন জানান, অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে যাওয়া যে ভবনটি দাঁড়িয়ে রয়েছে সেটির তো কোনো পরীক্ষা এখনও করা হয়নি। পরীক্ষা করা হলেই তবে আমরা জানতে পারব এটি ঝুঁকিপূর্ণ কি না। যেহেতু দীর্ঘ সময়েও ভবনটি পরীক্ষা হয়নি, সেহেতু আমরা ভেবে নেব এটা ঝুঁকিপূর্ণ ভবন। আমাদের দাবি, এই ভবনটি ভেঙে বা সংস্কার করে, এখানে তাজরীনের আহত ও নিহত শ্রমিকদের পরিবারের সদস্যদের বাসস্থান করে দেওয়া হোক। এ বিষয়ে সাভার উপজেলা প্রকৌশলী সালেহ হাসান প্রামাণিক জানান, এলাকাবাসীকে এ বিষয়ে একটা অভিযোগ দিতে হবে। তখন আমরা পদক্ষেপ নিতে পারব।
প্রসঙ্গত, ২০০৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় তাজরীন ফ্যাশনস। এর মালিক মো. দেলোয়ার হোসেন তার মেয়ে তাজরীনের নামানুসারেই প্রতিষ্ঠানটির নামকরণ করেছিলেন। অন্যদিকে এ ঘটনার পর থেকে বদলে গেছে সারা দেশের পোশাক শিল্পের বিল্ডিং সেফটি, ফায়ার সেফটি, ইলেকট্রিক্যাল সেফটি এবং নিরাপদ জরুরি বহির্গমন ব্যবস্থা। সেসঙ্গে সবধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থাও জোরদার করা হয়েছে।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]