ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শুক্রবার ২২ জানুয়ারি ২০২১ ৮ মাঘ ১৪২৭
ই-পেপার শুক্রবার ২২ জানুয়ারি ২০২১

পাপকাজ প্রচলনের শাস্তি
আব্দুর রহমান
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর, ২০২০, ১১:৪৭ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 42

আল্লাহ মানুষকে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন পুণ্যের কাজে নিজেকে সাজিয়ে নিতে। পরকালে মানুষ সে পুণ্যের সুফল ভোগ করবে। মৃত্যুর পর পাপ-পুণ্যের সুযোগ না থাকলেও এমন কিছু কাজ আছে যাতে মানুষ কবরে শুয়েও প্রতিদান পেতে থাকে। কিছু কাজের সওয়াব অথবা গুনাহ মৃত্যুর পরও চলমান থাকে। সওয়াবের ক্ষেত্রে সদকায়ে জারিয়া, নেক সন্তান ও মসজিদ নির্মাণ ইত্যাদির কথা আমাদের জানা থাকলেও কোনো ধরনের গুনাহ মৃত্যুর পরও চলমান থাকে সে সম্পর্কে অনেকেরই ধারণা নেই। এখানে এমন কিছু গুনাহের কথা আলোচনা করছি যেগুলো মৃত্যুর পরও পাপের বোঝা ভারী হতে থাকে। অন্যায়ভাবে রক্তপাত করা শক্ত পাপ। কাউকে হত্যা করলে কিংবা কোথাও হত্যার সূচনা করলে এর কুফলও সে ভোগ করতে থাকবে। পৃথিবীতে সর্বপ্রথম মানবহত্যা করেছে আদম (আ.)-এর পুত্র কাবিল। পৃথিবীতে যত মানুষ হত্যাকাণ্ডে লিপ্ত হবে সবার পাপ সে পাবে। অনুরূপভাবে কেউ যদি কাউকে হত্যার প্রশিক্ষণ দেয় বা হত্যার ধারাবাহিকতা সৃষ্টি করে তা হলে সেও অনুরূপ শাস্তি পাবে। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) থেকে বর্ণিতÑ তিনি বলেন, রাসুল (সা.) বলেছেন, কোনো ব্যক্তিকে অন্যায়ভাবে হত্যা করা হলে, তার এ খুনের পাপের অংশ আদম (আ.)-এর প্রথম ছেলে (কাবিলের) ওপর বর্তায়। কারণ সেই সর্বপ্রথম হত্যার প্রচলন ঘটায়। (বুখারি : ৩৩৩৫)সুদের প্রচলন ঘটানো আরও একটি পাপের ধারাবাহিকতা। আল্লাহ তায়ালা সুদকে কঠোরভাবে হারাম করেছেন। যারা তা অমান্য করবে, তাদের সঙ্গে যুদ্ধের ঘোষণা দিয়েছেন। পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহ বলেন, ‘হে মুমিনরা! তোমরা আল্লাহকে ভয় কর এবং সুদের যা বকেয়া আছে তা ছেড়ে দাও, যদি তোমরা মুমিন হও। অতঃপর যদি তোমরা না কর, তা হলে আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের পক্ষ থেকে যুদ্ধের ঘোষণা নাও।’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ২৭৮-২৭৯)। যদি কেউ সুদি ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট করে, যত দিন তা থাকবে, তত দিন সেই অ্যাকাউন্টের গচ্ছিত টাকাগুলো সুদি কারবারেই ব্যবহৃত হবে। আর অ্যাকাউন্ট হোল্ডারও তত দিন আল্লাহ ও তাঁর রাসুল (সা.)-এর বিপক্ষে যুদ্ধে লিপ্ত থাকবে। কেউ যদি অ্যাকাউন্ট বন্ধ না করে মারা যায়, তা হলে সে কবরে থেকেই সুদের গুনাহের বোঝা বইতে থাকবে।
সমাজে কোনো কুপ্রথা ও রীতি চালু করাও একটি ধারাবাহিক পাপ। হজরত জারির বিন আব্দুল্লাহ (রা.) থেকে বর্ণিতÑ রাসুল (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি কোনো উত্তম পন্থার প্রচলন করল এবং লোক সে অনুযায়ী কাজ করল, তার জন্য তার নিজের পুরস্কার রয়েছে, উপরন্তু যারা সে অনুযায়ী কাজ করেছে তাদের সমপরিমাণ পুরস্কারও সে পাবে, এতে তাদের পুরস্কার মোটেও হ্রাস পাবে না। আর যে ব্যক্তি কোনো মন্দ প্রথার প্রচলন করল এবং লোকেরা সে অনুযায়ী কাজ করল, তার জন্য তার নিজের পাপ তো আছেই, উপরন্তু যারা সে অনুযায়ী কাজ করেছে, তাদের সমপরিমাণ পাপও সে পাবে, এতে তাদের পাপ থেকে মোটেও হ্রাস পাবে না। (ইবনে মাজাহ : ২০৩)
বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যাপকতার কারণে অনেকেই ভাইরাল হওয়ার জন্য কিংবা অর্থ উপার্জনের জন্য অশ্লীল ছবি বা ভিডিও প্রচার করে। এটি জঘন্য অপরাধ। এই পোস্ট, ছবি কিংবা ভিডিও ইত্যাদি দ্বারা যত মানুষ গুনাহ করবে, সে তার একটি অংশ পেতে থাকবে। আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘নিশ্চয় যারা মুমিনদের মধ্যে অশ্লীলতার প্রসার কামনা করে, তাদের জন্য রয়েছে দুনিয়া ও আখেরাতে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি। আর আল্লাহ জানেন তোমরা জান না। (সুরা নুর : ১৯)
যেসব পাপ মৃত্যুর পরও মানুষের আমলনামায় যোগ হবে এর ফিরিস্তি অনেক লম্বা। এমন আরও অনেক পাপ রয়েছে যেগুলো কেয়ামত পর্যন্ত মানুষের আমলনামায় গুনাহ পৌঁছাতে থাকবে। যেমন, মদের বার বানানো, সিনেমা হল বানানো ইত্যাদি। এককথায় অপকর্মের যেকোনো রাস্তা তৈরি করে দেওয়াই মানুষকে অগণিত পাপের সাগরে ভাসিয়ে দেয়। আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবাইকে সব পাপ থেকে মুক্ত থাকার তওফিক দান করুন।








সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]