ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ২১ জানুয়ারি ২০২১ ৭ মাঘ ১৪২৭
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ২১ জানুয়ারি ২০২১

ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যে রাস উৎসব পালিত
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২০, ১১:৩০ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 16

ষ সময়ের বাংলা ডেস্ক
রাস পূর্ণিমা উপলক্ষে সোমবার দেশের বিভিন্ন স্থানে সনাতন ধর্মাবলম্বী ও ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর নারী-পুরুষ ধর্মীয় নানা আচার-অনুষ্ঠান পালন করেছে। পটুয়াখালীর কুয়াকাটায় বঙ্গোপসাগরের সৈকতে প্রত্যুষে সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে উলুধ্বনি দিয়ে পূজা ও স্নান করা হয়। গোটা সৈকত পরিণত হয় পুণ্যার্থীদের মিলনমেলায়। এ ছাড়া মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে শুরু হয়েছে মনিপুরী সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ও ঐতিহ্যবাহী ধর্মীয় উৎসব মহারাসলীলা। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরÑ
কলাপাড়া (পটুয়াখালী) : ঐতিহ্যবাহী রাস পূর্ণিমা উপলক্ষে সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে উলুধ্বনি দিয়ে পূজা ও স্নান শুরু করে পুণ্যার্থীরা। সাগরে পুণ্যস্নানের মধ্য দিয়ে সমাপ্তি ঘটে সেখানকার অনুষ্ঠানমালার। করোনার কারণে এবারও রাস পূজায় ভক্তদের উপস্থিতি কম হয়েছে। রাতভর কুয়াকাটা রাধাকৃষ্ণ মন্দিরে ধর্মীয় অনুষ্ঠানে মিলিত হয় পুণ্যার্থী রাসভক্ত নারী-পুরুষ। কঠোর নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনুষ্ঠিত এই রাস পূজার অনুষ্ঠানে কুয়াকাটায় কলাপাড়া প্রশাসনের নিরাপত্তা ছিল চোখে পড়ার মতো। করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে এ বছর কুয়াকাটায় হয়নি রাসমেলা। সোমবার বিকাল থেকে উপজেলা সদর কলাপাড়ার মদনমোহন সেবাশ্রমে ধর্মীয় উৎসবে মিলিত হবে রাসভক্ত পুণ্যার্থীরা। সেবাশ্রমে স্থাপন করা রাধাকৃষ্ণের যুগল প্রতিমা দর্শন ছাড়াও ধর্মীয় উৎসব পালন করবে আগতরা। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক জানান, করোনার কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এ বছর রাস পূজা ও পুণ্যস্নান অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আগত দর্শনার্থী ও রাসভক্ত সবার জন্য সবধরনের সুযোগ-সুবিধার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলার সুযোগ নেই। করোনার কারণে রাসমেলা কিংবা মাস্কবিহীন সমাবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে
মৌলভীবাজার : কমলগঞ্জে শুরু হয়েছে মণিপুরি সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ও ঐতিহ্যবাহী ধর্মীয় উৎসব মহারাসলীলা। তবে করোনা পরিস্থিতির কারণে ধর্মীয় আচার ছাড়া সংক্ষিপ্ত করা হয়েছে উৎসবের সব আয়োজন। কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর শিববাজার ও আদমপুরে সোমবার দুপুর থেকে শুরু হয়েছে কৃষ্ণের বাল্যলীলা অনুসরণে রাখাল নৃত্য। রাখাল নৃত্যে অংশ নেয় মণিপুরি সম্প্রদায়ের শিশু-কিশোররা। রঙবেরঙের সাজ আর বাদ্যের বাদনে সৃষ্টি হয় অভূতপূর্ব পরিবেশ। সন্ধ্যায় সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা ও স্থানীয় শিল্পীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়েছে। মধ্যরাত থেকে শুরু হয়ে রাসনৃত্য চলে ভোর পর্যন্ত। মাধবপুর মহারাসলীলা সেবাসংঘের সাধারণ সম্পাদক শ্যাম সিংহ জানান, মাধবপুর জোড়ামণ্ডপে রাসোৎসব সিলেট বিভাগের মধ্যে ব্যতিক্রমী আয়োজন। এখানে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবার আগমন ঘটে। বর্ণময় শিল্পসমৃদ্ধ বিশ^নন্দিত মণিপুরি সম্প্রদায়ের ঐতিহ্যবাহী রাসোৎসবে সবার মহামিলন ঘটে। স্কুলশিক্ষিকা অঞ্জনা সিনহা জানান, বংশপরম্পরায় নান্দনিকতার পূজারি মণিপুরিদের মেলবন্ধন এই রাসোৎসব। এটি এখন জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সার্বজনীন উৎসবে রূপ নিয়েছে।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]