ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ১৮ জানুয়ারি ২০২১ ৩ মাঘ ১৪২৭
ই-পেপার সোমবার ১৮ জানুয়ারি ২০২১

এবার রাবির প্রশাসন ভবনে তালা, আলোচনার আহ্বান
রাবি প্রতিনিধি
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারি, ২০২১, ১:১৪ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 101

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) প্রশাসন ভবনে তালা লাগিয়ে অবস্থান করছেন ‘চাকরির দাবিতে’ আন্দোলনরত শাখা ছাত্রলীগের সাবেক-বর্তমান নেতাকর্মীরা। এর আগে, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানকে রাতভর নিজ বাসভবনে অবরুদ্ধ রেখেছিলেন তারা। 

আজ সকাল ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের দুইটি প্রশাসনিক ভবনে তালা লাগিয়ে দেয় আন্দোলনকারীরা। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ভবন দুটি অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। ফলে বন্ধ হয়ে গেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যক্রম।

এদিকে, আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনায় বসার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আহবান করেছে বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত  (বেলা সাড়ে ১২টা) আন্দোলনকারীদের একটি প্রতিনিধি দল ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের মধ্যে আলোচনা চলছে।  

এর আগে গতকাল সোমবার রাত ৯টায় উপাচার্য ভবনে তালা লাগায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এতে উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানসহ দুই উপ-উপাচার্য ও প্রক্টর এই ভবনে অবরুদ্ধ অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। অবশেষে প্রায় ১২ঘন্টা পর আজ সকাল ৮টায় উপাচার্য ভবনের তালা খুলে দেয় আন্দোলনকারীরা।

এ বিষয়ে আন্দোলনকারীদের একজন ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, ‘শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে একটি চিঠি দিয়ে নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত রাখতে বলা হয়েছে। আমরা মনে করি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এই চিঠি ১৯৭৩ সালের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের যে অ্যাক্ট আছে সেই অ্যাক্টের পরিপন্থী।। তিনি বলেন,  ‘উপাচার্য ৭৩’র অ্যাক্ট সমুন্নত রাখতে পারেননি। এ বিষয়ে তার ব্যাখ্যা না পাওয়া পর্যন্ত আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব।’

ফারুক হাসান জানান, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমাদের সঙ্গে আলোচনায় বসার জন্য আহবান করেছেন। আমরা আলোচনায় বসব। 

উদ্ভুত পরিস্থিতির বিষয়ে প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান জানান, এবিষয়টি সুষ্ঠু সমাধানের জন্যে আন্দোলনকারীদের প্রতিনিধি দলের সাথে আলোচনার আহবান জানিয়েছি আমরা।

এদিকে, আন্দোলনের বিষয়ে গতকাল রাতে রাবি ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি সব ধরনের নিয়োগ বাতিল রাখার নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও আজ এডহকে একজনের নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এবিষয়ে 'ক্যারিফাই' হওয়ার জন্যেই নেতা-কর্মীরা গিয়েছিলেন।’

জানতে চাইলে উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় থেকে একটি চিঠি দেওয়া হয়েছে একজন প্রতিবন্ধী ছেলেকে চাকরি দেওয়ার জন্য। যেহেতু নিয়োগে বন্ধে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ আছে। তাই আমি বিষয়টি সচিবকে জানিয়েছি, তিনি নিয়োগ দিতে বলেছেন এবং নিয়োগ দিয়েছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘এই নিয়োগের প্রেক্ষিতে সন্ধ্যার দিকে তারা এসেছে, কারণ তারা ভেবেছে আমি আবার নিয়োগ দেয়া শুরু করেছি। পরবর্তীতে যখন আমি বোঝাই, প্রধানমন্ত্রী দপ্তর থেকে আসা সুপারিশ অনুযায়ী আমি নিয়োগটি দিয়েছি, তখন তারা বলে, তাহলে আমাদের চাকরির ব্যবস্থাও করেন। তাদের চাকরির বিষয়ে আমার নেতিবাচক সিদ্ধান্ত শুনে তারা আন্দোলন শুরু করে দেয়।’




এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]