ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ১৯ জানুয়ারি ২০২১ ৫ মাঘ ১৪২৭
ই-পেপার মঙ্গলবার ১৯ জানুয়ারি ২০২১

কয়লা আত্মসাৎ
বড়পুকুরিয়ার ২২ কর্মকর্তা রাতে জেলে দিনে জামিন
নিজস্ব প্রতিবেদক দিনাজপুর
প্রকাশ: শুক্রবার, ১৫ জানুয়ারি, ২০২১, ১১:০৩ পিএম আপডেট: ১৪.০১.২০২১ ১১:২১ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 27

দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিতে কয়লা আত্মসাতের মামলায় এক রাত জেলা কারাগারে আটক থাকার পর জামিনে মুক্ত হয়েছেন বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের সাবেক ৬ এমডিসহ ২২ কর্মকর্তা। বৃহস্পতিবার সকাল পৌনে ৯টায় জেলা কারাগার থেকে ছাড়া পান তারা।
আদালত সূত্রে জানা যায়, বুধবার মামলার নির্ধারিত তারিখে ওই ২২ জন কর্মকর্তা দিনাজপুরের স্পেশাল জজ মাহমুদুল করীমের আদালতে হাজির হলে আদালত তাদের জামিন
 

বাতিল করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন। দুপুরে তাদের আদালত থেকে জেলা কারাগারে প্রেরণ করা হয়। জামিন বাতিল করার পর উচ্চ আদালতে করা জামিন আবেদন মামলা পেন্ডিং থাকায় বিকালে ওই ২২ আসামির জামিন আদেশ আবারও বহাল রাখেন একই আদালত। এই আদেশ কারাগারে পৌঁছানোর আগেই আসামিদের হাজতে নেওয়ায় বুধবার কারাগার থেকে মুক্তি পাননি তারা।
দিনাজপুর জেলা কারাগারের জেলার ফরিদুর রহমান রুবেল জানান, বুধবার সন্ধ্যা ৭টার পর ওই ২২ আসামির জামিন বহালের আদেশ আদালত থেকে কারাগারে আসে। কিন্তু ততক্ষণে তাদের হাজতখানায় নেওয়া হয়। সন্ধ্যার পর হাজতখানা থেকে আসামিদের বের করার নিয়ম না থাকায় বুধবার তাদের মুক্তি দেওয়া সম্ভব হয়নি। ফলে বৃহস্পতিবার সকালে তাদের মুক্তি দেওয়া হয়।
আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট নুরুজ্জামান জাহানী জানান, বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ওই মামলায় আসামিদের জামিন বিষয়ে একটি মামলা হাইকোর্টে পেন্ডিং রয়েছে। এই পেন্ডিং মামলাটি বিচারক জানতে না পারায় জামিন বাতিল করে আসামিদের জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন। পরে বিকালে হাইকোর্টের এই পেন্ডিং মামলার কাগজ দেখানোর পর আদালত আবার তাদের জামিন আদেশ বহাল রাখেন।
প্রসঙ্গত, বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিতে ১ লাখ ৪৩ হাজার ৭২৭ দশমিক ৯৯ টন কয়লা উধাও হয়ে যাওয়ার ঘটনায় ২০১৮ সালের ২৪ জুলাই বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানির পক্ষে ম্যানেজার (প্রশাসন) মোহাম্মদ আনিছুর রহমান বাদী হয়ে একটি মামলা করেন। গত বছরের ২৪ জুলাই ২৩ জনকে আসামি করে আদালতে এই মামলার চার্জশিট দাখিল করে দুর্নীতি দমন কমিশন। এরপর গত বছরের ১৫ অক্টোবর চার্জশিট আমলে নেন আদালত। এর মধ্যে একজন মারা যাওয়ায় বর্তমানে এই মামলার আসামি ২২ জন।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]