ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭
ই-পেপার শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১

ফেরাটা হোক জয়োৎসবে
১০ মাস পর প্রত্যাবর্তন বাংলাদেশের, ফিরছেন সাকিবও
রাজু আহাম্মেদ
প্রকাশ: বুধবার, ২০ জানুয়ারি, ২০২১, ১০:৪৩ পিএম আপডেট: ১৯.০১.২০২১ ১১:৩০ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 37

মাথাচাড়া দিয়ে ওঠা ঘাসগুলো ছেঁটে ফেলা হলো, বসানো হলো সীমানা-নির্ধারণীও। এর বেশ আগেই ন্যাড়া পিচটা হয়েছে আবরণমুক্ত, সব কিছুতে বেশ ব্যস্ত দেখাল মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের মাঠকর্মীদের, তাদের এই ব্যস্ততা মাঠ পরিচর্যায় তুলির শেষ আঁচড় টানার চেষ্টায়। গ্যালারির চেয়ারগুলো ধুয়ে-মুছে পরিষ্কার করতে দেখা গেল পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের। কিন্তু সেই চেয়ারগুলোতে বসবে কারা? বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) তো এখনও অনড়Ñ এই মহামারিকালে সংস্থাটি গ্যালারিতে ‘ক্রিকেটপাগল’ দর্শক ফেরাবে না। তাতেও কিন্তু উপলক্ষটা মøান হয়ে যাচ্ছে না।
একটি নয়, তিন তিনটি উপলক্ষ! প্রথমত, ৩১৪ দিন পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। দ্বিতীয়ত, আইসিসির এক বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে বাংলাদেশের জার্সিতে আবার ক্রিকেটে ফিরতে যাচ্ছেন সময়ের সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তৃতীয়ত, বাংলাদেশ আর প্রিয় বন্ধু সাকিবের ফেরার মঞ্চে টাইগারদের ওয়ানডে অধিনায়ক হিসেবে যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছেন তামিম ইকবাল। এমন মঞ্চে জয়োৎসব না হলে মানায়? তার ওপর প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ, সেরা ১২ তারকাকে দেশে রেখে যারা এসেছে খর্বশক্তির দল নিয়ে। ফেরার মঞ্চে এমন দলের বিপক্ষে টাইগারদের জয়োৎসব তো ধরেই রাখা!
ওয়েস্ট ইন্ডিজ, ক্রিকেটে কুলীন দলগুলোর একটি। এক সময় তারা ছিল পরাশক্তি। বর্তমান ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল অবশ্য সোনালি সময়ের কঙ্কাল। বাংলাদেশে খেলতে আসা দলটা তো সেই কঙ্কালেরও ছায়া! বিগত কয়েক বছর ধরে ওয়ানডেতে যে মানের ক্রিকেট টাইগাররা খেলছে, তাতে এই ওয়েস্ট ইন্ডিজ ‘নামমাত্র প্রতিপক্ষ’। তাদের পূর্ণ শক্তির দলকেই এখন বলে-কয়ে হারিয়ে দেয় বাংলাদেশ। সবশেষ ১০টি ওয়ানডেতে ৮-২ ব্যবধানে এগিয়ে থাকা কিন্তু সেটাই বলে। তাই প্রতিপক্ষ নিয়ে স্বাগতিক শিবির নির্ভার। করোনার কারণে মাঝে লম্বা বিরতি পড়ায় দুর্ভাবনা যা সেটা কেবল নিজেদের নিয়েই!
করোনা বদলে দিয়েছে ক্রিকেটের আবহ, যোগ হয়েছে কিছু নিয়ম-কানুন। খেলতে হচ্ছে জৈব-সুরক্ষা বলয় নামক বিলাসী বন্দিশালায় থেকে। সদ্য বিদায় নেওয়া বছরটার শেষভাগে দুটো ঘরোয়া টুর্নামেন্ট খেলে অবশ্য এসবের সঙ্গে সখ্য গড়ার চেষ্টা হয়েছে। নিয়মিত অধিনায়ক হিসেবে অভিষেকের অপেক্ষায় থাকা তামিম তাই তেমন কোনো সমস্যা দেখছেন না। সিরিজপূর্ব অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলে রাখলেন, ‘সবাই নিয়মের মধ্যে অভ্যস্ত হয়ে গেছে। কারণ আমরা ওই নিয়ম-কানুনগুলোই অনুসরণ করেছি। আমার মনে হয় না নিয়মগুলো নিয়ে সমস্যা হবে।’
বাংলাদেশ সবশেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছে গত বছরের ১১ মার্চ। প্রায় সাড়ে দশ মাসের বিরতি দিয়ে আরেকটি ম্যাচ খেলতে হচ্ছে। ২০০০ সালে টেস্ট মর্যাদা পাওয়ার পর দুটো ম্যাচ খেলার ফাঁকে এতটা সময় অপেক্ষায় থাকতে হয়নি বাংলাদেশকে। সুদীর্ঘ এই বিরতি একটা সমস্যা হতে পারে। তা ছাড়া যে মাশরাফি বিন মর্তুজা প্রায় পাঁচ বছর দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন, খেলতে হবে তাকে ছাড়া। নতুন অধিনায়ক তামিম প্রতিশ্রুতি দিলেন, পূর্বসূরির অভাব পূরণে সর্বাত্মক চেষ্টার, ‘মাশরাফি ভাই দলের জন্য অনেক কিছু করেছেন। এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। আমি আমার সর্বোচ্চটা দেওয়ার চেষ্টা করব।’
মাশরাফির অনুপস্থিতিতে তামিম আর বাংলাদেশের জন্য সব থেকে বড় স্বস্তির খবর, লম্বা সময় পর সাকিবের সার্ভিস পাওয়া যাচ্ছে। এই অলরাউন্ডার দলে থাকা মানেই একজন বাড়তি বোলার কিংবা ব্যাটসম্যান খেলানোর সুযোগ। সেই সুযোগে আজ সাত ব্যাটসম্যান থাকছে একাদশে। আরেক অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন থাকায় পেসারের সংখ্যা হচ্ছে তিন। পরিকল্পনায় বড়সড় বদল না এলে বাকি দুই পেসার হতে যাচ্ছেন মোস্তাফিজুর রহমান আর তাসকিন আহমেদ। অবশ্য তৃতীয় পেসার হিসেবে হাসান মাহমুদের অভিষেকের সম্ভাবনাও আছে। এদিকে সাকিবের সঙ্গে স্পিন বিভাগ সামলাবেন মেহেদী হাসান মিরাজ। সঙ্গে পার্টটাইমার হিসেবে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ তো আছেনই।
মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের উইকেট মন্থর আর নিচু বাউন্সেরই হওয়ার কথা। সে ক্ষেত্রে স্পিনাররাই বাড়তি সুবিধা পাবেন। তবে দলীয় কোচ রাসেল ডমিঙ্গো ভবিষ্যতের ভাবনায় একাদশে পেসারের সংখ্যা তিনের নিচে নামাতে নারাজ। বাড়তি একজন স্পিনার খেলানোর আছে, কিন্তু মঙ্গলবারের অনুশীলনে সৌম্য সরকারের চোট সেই সম্ভাবনা কিছুটা কমিয়ে দিয়েছে। যদিও টিম ফিজিও জানিয়েছেন, চোট গুরুতর নয়। সব কিছু ঠিক থাকলে আজ সাতে ব্যাটিং করতে দেখা যাবে তাকে। তামিমের সঙ্গে ইনিংসের সূচনায় থাকবেন লিটন দাস, তিনে নাজমুল হোসেন শান্ত। যে কারণে ফেরার মঞ্চে সাকিবকে খেলতে হবে চারে।
মূলত ২০২৩ বিশ^কাপে চোখ রেখেই ব্যাটিং অর্ডার পুনর্গঠনের চেষ্টা। প্রতিবেশী দেশ ভারতে হতে যাওয়া ওই বিশ^কাপের টিকেট পাওয়ার লড়াইটাও কিন্তু এই সিরিজ দিয়েই শুরু হচ্ছে। প্রতিপক্ষ ক্যারিবীয় দল খর্বশক্তির হলেও তাই সতর্ক বাংলাদেশ। তামিম যেমন বললেন, ‘পয়েন্ট সিস্টেমের জন্য প্রত্যেকটা ম্যাচ জেতাটা এখন খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমরা অবশ্যই চাইব যাতে আমাদের বাছাইয়ে না খেলা লাগে। আমরা যাতে সেরা আটে থাকতে পারি। আমাদের জন্য সব ম্যাচই গুরুত্বপূর্ণ। কোন দল আসছে, কারা খেলছে সেটা আমাদের নিয়ন্ত্রণে নেই। যেটা আমাদের নিয়ন্ত্রণে আছে সেটা নিয়ে আমরা কাজ করব।’
প্রতিপক্ষকে সমীহের চোখেই দেখছে বাংলাদেশ। স্বাগতিকদের প্রতি ওয়েস্ট ইন্ডিজের সমীহ আরও বেশি। তারা তো এই সিরিজে তামিম ব্রিগেডকে নিরঙ্কুশ ফেভারিট ঘোষণা দিয়েছে। তবে প্রধান কোচ ফিল সিমন্স আর ওয়ানডে অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদ এটাও বলে রেখেছেন, জিততেই বাংলাদেশে এসেছে তারা। মঙ্গলবার অনুশীলনের জন্য মাঠমুখো না হলেও আত্মবিশ^াসী ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এখন প্রত্যাশা, ক্যারিবীয় শিবিরের এই আত্মবিশ^াস টাইগারদের জয়োৎসবে বাধা হবে না।







সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]