ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭
ই-পেপার শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১

হকারদের জীবন বিপন্ন, তাদের পাশে দাঁড়ান
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারি, ২০২১, ১১:৩৫ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 19

করোনা মহামারির কারণে পৃথিবী আজ লন্ডভন্ড। লাখ লাখ কোটি কোটি মানুষ আজ চাকরিচ্যুত ও বেকার। এতে বাংলাদেশও আক্রান্ত। দেশের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের ওপর এক বিরাট আঘাত। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত মধ্যবিত্ত ও গরিব পরিবারগুলো। তারপর মেহনতি মানুষের মধ্যে যারা হকারি করে পেট চালায় তাদের অবস্থা শোচনীয়।
একের পর এক গার্মেন্টস বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। চাহিদা না থাকার কারণে অনেক ক্ষুদ্র শিল্প কল-কারখানা বন্ধ হওয়ার উপক্রম। গোটা দেশে লকডাউনের পর থেকে রাস্তার হকারদের অবস্থা নাজুক। তাদের বেচাকেনা প্রায় বন্ধ। তারপর এই করোনাকালে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের উচ্ছেদ অভিযানের নামে অমানবিক কর্মকাণ্ডে দেশের মানুষ হতবাক। গরিব ব্যবসায়ী ও হকাররা এখন মরতে বসেছে। তাদের পাশে দেশের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার এখনই মোক্ষম সময়। গোটা দেশে যখন লকডাউন শুরু হয় তারপর থেকে রাস্তার হকাররা মালামাল ফুটপাথে, খোলা রাস্তার ওপর বাক্সে অথবা ট্রাঙ্কে বা এক জায়গায় সব একত্রে করে প্লাস্টিক চাপা দিয়ে দড়ি দিয়ে প্রতিদিন বেঁধে সারা রাত রেখে যায়। সে সময় তাদের অনেক মালামাল খোয়া যায়। বর্তমানে হকারদের ব্যবসার অবস্থা ভালো নয়। হকারদের পেটে খাবারের জোগান দেওয়ার জন্য হাজার হাজার টাকার মালপত্র খোলা আকাশের নিচে রেখে যেতে হয়। হকাররা রাতে ফুটপাথে মালামাল রাখা নিরাপদ মনে করছে না। করার কিছুই নেই। পুলিশি হামলার ভয়ে তারা সর্বত্র তটস্থ।
এই গরিব হকারদের পুনর্বাসন শুধু নয় এই করোনাকালে উভয় সিটি করপোরেশন থেকে তাদের প্রণোদনা দেওয়া উচিত। প্রয়োজনে হকারদের অনুদান বা ঋণ দেওয়া দরকার। শুধু লকডাউন কেন স্বাভাবিক সময়েও স্বাভাবিক বছরই তো হকাররা রাস্তায় থাকে। শীত, গ্রীষ্ম, বর্ষা সবসময়। রাস্তায় যেকোনো ঘটনা বা দুর্ঘটনায় রাস্তার হকাররাই প্রথমে উদ্ধার কাজে ঝাঁপিয়ে পড়ে। তারাই বিপদে মানুষের পাশে দাঁড়ায়। অনেক ক্ষেত্রে রাতে রাস্তায় মেয়েদের চলাফেরায় এই হকাররা তাদের নিরাপত্তা। দেশে ইতোমধ্যে মহামারির প্রকোপে থমকে যাওয়া অর্থনীতিতে যে কাজ হারানো মানুষের সংখ্যা বাড়ছে সেই কর্মহারার সংখ্যায় শীর্ষে রয়েছে মহিলারা। এদের বেশিরভাগ হলেন অসংগঠিত ক্ষেত্রের মহিলা শ্রমিক। সবমিলে করোনা মহামারি অসংগঠিত গরিব ও দরিদ্র এমনকি মধ্যবিত্ত।
মহিলাদের কাজের জগৎ কর্মহারার ভিড় বাড়িয়ে দিয়েছে। যা আগে কখনও দেখা যায়নি। রাস্তার হকাররা পুনর্বাসনের জন্য অনেক বছর ধরে দাবি জানিয়ে আসছে। সাড়া বছরই রাস্তার হকারদের লড়াই করে বাঁচতে হয়। তারপরও এই করোনা অতিমারির নিদারুণ পরিস্থিতিতে সরকার বা সিটি করপোরেশন থেকে হকারদের মাত্র ১০ হাজার টাকার অনুদান বা ঋণ সুবিধা প্রদান করলে অন্তত তারা পরিবার নিয়ে বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখতে পারবে। তাদের ব্যথা ও সীমাহীন কষ্টের কথা ভাবুন এবং বুঝুন, তাদের লড়াইয়ের পাশে আজ সরকারসহ দেশবাসীকে দাঁড়ানোর অনুরোধ করছি।

ষ মাহবুব উদ্দিন চৌধুরী
    ফরিদাবাদ, গেণ্ডারিয়া









সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]