ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭
ই-পেপার শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১

পূর্বাচলে প্লট নিয়ে প্রতারণা
কোটি টাকা আত্মসাৎ
নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশ: সোমবার, ২৫ জানুয়ারি, ২০২১, ১০:১৮ পিএম আপডেট: ২৪.০১.২০২১ ১১:২৮ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 45

রাজউকের পূর্বাচল উপশহর প্রকল্পের ১২টি প্লট কিনে দেওয়ার কথা বলে জাল কাগজপত্রের মাধ্যমে এক ব্যক্তি ১ কোটি ১৬ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রতারণার শিকার ব্যবসায়ী কামাল উদ্দিন দাবি করেন, জালিয়াতির বিষয়টি ধরা পড়ার পর ব্যবসায়ী কামাল উদ্দিন টাকা ফেরত চাইলে প্রতারক উল্টো তাকে হুমকি-ধমকি দিচ্ছে এবং তার বিরুদ্ধে মামলা করে হয়রানি করছে।
ঢাকার ধানমন্ডির ১৫নং রোডের বাসিন্দা কামাল উদ্দিন জানান, ২০১৯ সালের ১ জুলাই একটি জাতীয় দৈনিকে পূর্বাচল উপশহর প্রকল্পে প্লট বিক্রির একটি বিজ্ঞাপন দেন রূপগঞ্জের পশিবাজার বাগবেড় এলাকার বাসিন্দা মোহাম্মদ আসাদ। সে বিজ্ঞাপন দেখে ব্যবসায়ী কামাল উদ্দিন যোগাযোগ করলে আসাদ জানায়, সেসহ আরও কয়েকজন একসঙ্গে রাজউকের পূর্বাচল উপশহর প্রকল্পের প্লট কেনাবেচার ক্ষেত্রে মধ্যস্থতাকারীর কাজ করে। রাজউকের পূর্বাচল উপশহর প্রকল্পে ক্ষতিগ্রস্ত স্থানীয় বাসিন্দাদের পাঁচ কাঠা ও তিন কাঠার ১০টি প্লট রাজউকের বরাদ্দপত্রের ব্যবস্থা করে ব্যবসায়ী কামাল উদ্দিনের কাছে বিক্রির ব্যবস্থা করে দেবে। এ ছাড়া বর্তমানে চূড়ান্ত বরাদ্দপত্র রয়েছে এমন একটি তিন কাঠার ও একটি পাঁচ কাঠার আরও দুটি প্লট মালিকদের কাছ থেকে মিডিয়া হয়ে কামাল উদ্দিনকে কিনে দেওয়ার প্রস্তাব করে। এ নিয়ে বেশ কয়েকবার আলোচনার পর ব্যবসায়ী কামাল উদ্দিন আসাদকে জমির মূল্যের অগ্রিম বাবদ ১ কোটি ১৬ লাখ ২০ হাজার টাকা প্রদান করেন। কিন্তু পরে ব্যবসায়ী কামাল উদ্দিন রাজউকসহ বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, প্লট বিক্রির জন্য যেসব কাগজ আসাদ তাকে দিয়েছে তার সবগুলোই জাল। বিষয়টি আসাদকে জানালে সে টাকা ফেরত দেবে বলে জানায়। কিন্তু টাকা ফেরত না দিয়ে সে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। পরে সে লোকজন পাঠিয়ে ব্যবসায়ী কামাল উদ্দিনকে এ টাকা চাইতে নিষেধ করে, না হলে অপহরণ ও হত্যার হুমকি দেয়। এ ব্যাপারে ব্যবসায়ী কামাল রূপগঞ্জ থানায় জিডি করলে আসাদ রূপগঞ্জের স্থানীয়দের মধ্যস্থতায় পুরো টাকার চারটি চেক প্রদান করে।
চেক প্রদানের প্রায় চার মাস পর আসাদ টাকা না দিয়ে উল্টো ব্যবসায়ী কামাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা করে। মামলায় আসাদ অভিযোগ করে, ব্যবসায়ী কামাল উদ্দিন ও তার সহযোগীরা তাকে পিস্তল ঠেকিয়ে জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প ও চেকে স্বাক্ষর নিয়েছে।
এরপর আসাদ আদালতে আরও একটি মামলা করে। মামলায় অভিযোগ করে, ব্যবসায়ী কামাল উদ্দিনের নেতৃত্বে তার বাড়িতে হামলা চালানো হয়। এরপর আসাদের স্ত্রী ময়না আক্তার বাদী হয়ে ব্যবসায়ী কামাল উদ্দিনকে সহায়তা করায় রূপগঞ্জের বাসিন্দা কাইয়ুম মিয়া ও সায়েমের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা করে। এই মামলায় আসাদের স্ত্রী দাবি করে, তাদের হারানো চেক কাইয়ুম মিয়া ও সায়েমের কাছে আছে। তারা এই চেক দিয়ে হয়রানিমূলক মামলা করতে পারে।
ব্যবসায়ী কামাল উদ্দিন জানান, মোহাম্মদ আসাদের চেক জালিয়াতির বিরুদ্ধে আমি আদালতে মামলা করেছি। সে মামলায় আসাদ জামিন পেয়েছে। নিজের অপকর্ম ঢাকতেই সে আমার বিরুদ্ধে মামলা করেছে।
অভিযোগের ব্যাপারে মোহাম্মদ আসাদের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে জানায়, টাকা আমি নেইনি। সায়েম ১৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা নিয়েছে। সায়েমের টাকার জের আমার ওপর ফেলছেন কামাল উদ্দিন। তিনি আমাকে পিস্তল ঠেকিয়ে ১১টি জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প ও সাতটি চেকে স্বাক্ষর নিয়েছেন। আমাকে ব্যাপক নির্যাতন করেছেন, যে কারণে আমি ঠিকমতো হাঁটতে পারি না। এজন্য আমি তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছি।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]