ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭
ই-পেপার শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১

দুই জেলায় ৪ জন নিহত
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারি, ২০২১, ১০:০২ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 15

ষ সময়ের বাংলা ডেস্ক
দিনাজপুর ও চাঁপাইনবাবগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় চারজন নিহত হয়েছে। দিনাজপুর নিজস্ব প্রতিবেদক ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধির পাঠানো খবরÑ
দিনাজপুর : দিনাজপুর-বোচাগঞ্জ সড়কের বিরল উপজেলার ফরক্কাবাদ ইউপির জয়নুল মুদিখানা সংলগ্ন সড়কে ট্রাকচাপায় তিন মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেনÑ একই ইউপির ফরক্কাবাদ ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের বেলাল হোসেনের পুত্র লাজু ইসলাম (২৫), শরিফ উদ্দীনের পুত্র মামুন হোসেন (৩০) ও মোজামের পুত্র আনোয়ার (৩০)। দিনাজপুর ফায়ার সার্ভিস স্টেশন লিডার মো. কামরুল হক ও বিরল ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ভারপ্রাপ্ত স্টেশন অফিসার মো. আজাহারুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টায় জেলার বোচাগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা একটি ট্রাকের সঙ্গে একটি মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটলে মোটরসাইকেল আরোহী তিনজন ঘটনাস্থলেই নিহত হয়।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জ-সোনামসজিদ মহাসড়কের রানীহাটি বাজার এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় একজন নিহত ও একজন আহত হয়েছে। বুধবার বিকালে শিবগঞ্জ উপজেলার রানীহাটি বাজার এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ব্যক্তি হলেনÑ সদর উপজেলার আঙ্গারীয়াপাড়া এলাকার মৃত মাহতাব উদ্দিনের ছেলে মোরসালিন (২১)। আহত ব্যক্তি একই উপজেলার চাঁদলাই এলাকার মৃত সাদিকুল ইসলামের ছেলে মাসুদ রানা (২৫)। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, মোরসালিন ও মাসুদ একটি মোটরসাইকেলযোগে শিবগঞ্জ থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ যাওয়ার পথে রানীহাটি লাইফ কেয়ার হাসপাতাল এলাকায় পৌঁছলে একটি বাইসাইকেলের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এতে মোরসালিন সড়কে ছিটকে পড়লে পেছন থেকে আসা একটি মোটরসাইকেল তাকে চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। আহত মাসুদকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করেছে।





এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টায় বিএনপিষ মো. মুস্তাফিজুর রহমান কাজল জামালপুর আগামীকাল ২৮ ফেব্রæয়ারি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জামালপুর পৌরসভা নির্বাচন। নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করতে শুরু থেকেই আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগসহ সকল অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে মাঠে কাজ করে যাচ্ছে। অন্যদিকে প্রচার-প্রচারণায় ধানের শীষ প্রতীক প্রার্থীর সমর্থকরাও প্রার্থীকে বিজয়ী করতে প্রাণপণ প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। দেড়শত বছরের পুরনো জামালপুর পৌরসভায় পৌর মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন বয়সে তরুণ জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ছানোয়ার হোসন ছানু। তিনি নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। অপরদিকে এই পৌরসভায় ২০০৪ সাল থেকে ২০১১ সাল এবং ২০১১ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত দুই বারের নির্বাচিত সাবেক মেয়র, ময়মনসিংহ বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও জামালপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শাহ মো. ওয়ারেছ আলী মামুন প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন ধানের শীর্ষ প্রতীক নিয়ে। এ ছাড়াও এ নির্বাচনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মুফতি মোস্তফা কামাল হাতপাখা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। জামালপুর পৌরসভা নির্বাচনে ৩ জন মেয়র প্রার্থীর পাশপাশি ১২টি ওয়ার্ডে ১৩ জন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর ও ৪১ জন সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। এরই মধ্যে ৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিল প্রার্থী বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় নির্বাচিত হয়েছেন। জামালপুর পৌরসভায় বিএনপির শক্তিশালী অবস্থান থাকলেও নানা প্রতিক‚লতার কারণে এবার চিত্র কিছুটা ভিন্ন। প্রথম শ্রেণির ‘ক’ ক্যাটাগরি এই পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র পদে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ছানোয়ার হোসেন ছানুকে নৌকা প্রতীক মনোনয়ন দেওয়ায় সব দ্বিধাদ্ব›দ্ব ভুলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে মাঠে কাজ করছেন। দলে কোনো অভ্যন্তরীণ কোন্দল আর বিদ্রোহী প্রার্থী না থাকায় এবারের পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে বলে জানা গেছে। অপরদিকে বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক প্রার্থী অ্যাডভোকেট শাহ মো. ওয়ারেছ আলী মামুন পর পর দুইবার জামালপুর পৌরসভার মেয়রের দায়িত্ব পালন করার সুবাদে পৌরবাসীদের কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন। এরই মধ্যে নির্বাচনি প্রচারণায় বাধা ও দলীয় নেতাকর্মীদের ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলনও করেছেন তিনি। অপরদিকে বিএনপি প্রার্থীর সংবাদ সম্মেলনে বিরোধিতা করে আওয়ামী লীগও দলীয় কার্যালয়ে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেছেন।ছুরিকাঘাতে এক ব্যক্তি নিহতষ মাগুরা প্রতিনিধিমাগুরা শহরতরীর বরুনাতৈল পশ্চিম পাড়া গ্রামে বৃহস্পতিবার রাতে প্রতিবেশী যুবকের ছুরিকাঘাতে আকামত মোল্লা (৬০) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। বরুনাতৈল গ্রামের মৃত মোবারক মোল্লার পুত্র নিহত আকামত মাগুরা পুরাতন বাজারে শ্রমিকের কাজ করতেন।নিহতের ছেলে নাসিরুল হোসেন মোল্লা জানান, তার বাবা বাড়ির সামনে আলাউদ্দিনের দোকানে চা খেতে যান। এ সময় প্রতিবেশি জালাল শেখের (জালার) ছেলে এশা শেখ হঠাৎ করে সেখানে উপস্থিত হয়ে তার বাবা আকামতের বুকে ছুরি দিয়ে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলে উপস্থিত লোকজন উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নাসিরুল জানান, তার বাবা তাদের পরিবারের কারো সঙ্গে এশা নামের ওই যুবক বা এলাকাবাসীর কোনো পূর্ব বিরোধ নেই। কি কারণে তার বাবাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হলো তারা তা জানেন না। মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক আরিফুর রহমান জানান, হাসপাতালে আসার আগেই আকামতের মৃত্যু হয়। নিহতের বুকের বাম পাশে ধারালো অস্ত্রের একাধিক কোপের চিহৃ রয়েছে।মাগুরা সদর থানার ওসি জয়নাল আবেদীন জানান, পুলিশ সুপারসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। হত্যাকাÐের কারণ জানা ও অভিযুক্ত হত্যাকারীকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।শহীদ মিনারের চারপাশ দখলকরে সিএনজি স্ট্যান্ডষ সাইদুল হাসান সিপন মৌলভীবাজার মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ঐতিহ্যবাহী, সমৃদ্ধ ও ব্যস্ততম অঞ্চল শমশেরনগর। অনেক পুরনো একটি শহীদ মিনার ছিল এখানে যার বেদীর বেশিরভাগ অংশ ভেঙে যায়। বছর খানেক আগে সিদ্ধান্ত হয় নতুন শহীদ মিনার নির্মাণের। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হবে। অথচ নতুন শহীদ মিনারের চারপাশ দখল করে আছে সিএনজি অটোরিকশা স্ট্যান্ড। এ ছাড়াও ময়লা ও আবর্জনায় শহীদ মিনার আশপাশ দুর্গন্ধে একাকার। পথচারী, সিএনজি অটোরিকশা স্ট্যান্ডের ড্রাইভার, যাত্রীরা কেউ দাঁড়িয়ে, কেউ বসে প্রস্রাব করছেন এখানে। এতে পরিবেশটা অত্যন্ত নোংরা ও দুর্গন্ধময় হয়ে আছে। ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর এই স্থানে নেই কোনো পবিত্রতা রক্ষার নিয়ম নীতি। কর্তৃপক্ষের নেই কোনো তদারকি। স্থানীয়রা মনে করেন, ভাষা শহীদদের এমন অবমাননা কোনো অবস্থাতেই মানা যায় না। অনতিবলম্বে শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ ও আশপাশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করতে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন স্থানীয়রা।শমশেরনগর ইউনিয়ন পরিষদ সূত্রে জানা যায়, বিমানবন্দর সড়ক এলাকায় ডাকঘরের সামনে প্রায় ১০ বছর আগে একটি শহীদ মিনার নির্মিত হয়। শহীদ মিনার নির্মিত হওয়ার পর থেকে শমশেরনগরের একাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও স্থানীয়রা শহীদ মিনারটিতে বিভিন্ন দিবসে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। তবে শহীদ মিনারটির বেদীর কিছু অংশ ভেঙে যাওয়ায় বছর খানেক আগে মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের অর্থায়নে ২ লাখ টাকা ব্যয়ে পূর্বমুখী করে নতুন একটি শহীদ মিনার স্থাপন করা হয়।পাশর্^বর্তী স্থানে শমশেরনগর উত্তরবাজার সিএনজি-অটোরিকশাচালক সমিতির স্ট্যান্ড হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। তবে করোনাকালীন সময়ে শহীদ মিনার ব্যবহার না হওয়ায় শহীদ মিনারের পূর্ব দিকের সীমানা প্রাচীর ভেঙে সিএনজি অটোরিকশা চালকরা দখলে নেন। এরপর থেকে শহীদ মিনার স্থলে ও সম্মুখে সারিবদ্ধভাবে সিএনজি-অটো রাখা হচ্ছে। শহীদ মিনার চত্বরে লোকজন প্রস্রাব কাজেও ব্যবহার করছেন। ফলে এ এলাকায় দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে ও শহীদ মিনারের পবিত্রতা বিনষ্ট হচ্ছে।শমশেরনগর সাহিত্যাঙ্গনের সমন্বয়ক ও সুজা মেমোরিয়াল কলেজের প্রভাষক শাহজাহান মানিক ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, শহীদ মিনারের বেদীর বেশ কিছু অংশ ভেঙে গেলে জেলা পরিষদ পূর্বমুখী করে একটি বড় শহীদ মিনার নির্মাণ করে দিয়েছে। এবারও প্রথম নতুন শহীদ মীনারে মহান ভাষা ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি সম্মান জানানো হবে। তার আগেই সিএনজি অটোরিকশাচালক সমিতি শহীদ মিনারের চত্বরে গড়ে তুলেছে তাদের স্ট্যান্ড। এটি খুবই দুঃখজনক বলে তিনি মন্তব্য করেন। শমশেরনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. জুয়েল আহমেদ জানান, তিনি জানেন না কিভাবে সিএনজি অটোচালকরা শহীদ মিনারের চত্বরে স্ট্যান্ড গড়ে তুলেছে। তিনি মনে করেন অবিলম্বে শহীদ মিনার চত্বর থেকে সিএনজি অটোর স্ট্যান্ড সরিয়ে নেওয়া হোক।এ ব্যাপারে শমশেরনগর উত্তর বাজার সিএনজি অটোরিকশাচালক সমিতির সভাপতি মোস্তফা মিয়া জানান, এ এলাকাটি ব্যস্ততম। সড়কধারে সিএনজি অটোর সারি থাকলে যানজট বেড়ে যায়। তাই শহীদ মিনারের ভেতরের খালি জায়গায় সিএনজি অটো রাখছেন। কাল শনিবার ২০ ফেব্রæয়ারিও এ শহীদ মিনারের চত্বর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে দেওয়া হবে। কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক বলেন, বিষয়টি আমাকে কেউ জানায়নি। তবে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টায় বিএনপিষ মো. মুস্তাফিজুর রহমান কাজল জামালপুর আগামীকাল ২৮ ফেব্রæয়ারি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জামালপুর পৌরসভা নির্বাচন। নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করতে শুরু থেকেই আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগসহ সকল অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে মাঠে কাজ করে যাচ্ছে। অন্যদিকে প্রচার-প্রচারণায় ধানের শীষ প্রতীক প্রার্থীর সমর্থকরাও প্রার্থীকে বিজয়ী করতে প্রাণপণ প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। দেড়শত বছরের পুরনো জামালপুর পৌরসভায় পৌর মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন বয়সে তরুণ জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ছানোয়ার হোসন ছানু। তিনি নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। অপরদিকে এই পৌরসভায় ২০০৪ সাল থেকে ২০১১ সাল এবং ২০১১ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত দুই বারের নির্বাচিত সাবেক মেয়র, ময়মনসিংহ বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও জামালপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শাহ মো. ওয়ারেছ আলী মামুন প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন ধানের শীর্ষ প্রতীক নিয়ে। এ ছাড়াও এ নির্বাচনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মুফতি মোস্তফা কামাল হাতপাখা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। জামালপুর পৌরসভা নির্বাচনে ৩ জন মেয়র প্রার্থীর পাশপাশি ১২টি ওয়ার্ডে ১৩ জন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর ও ৪১ জন সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। এরই মধ্যে ৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিল প্রার্থী বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় নির্বাচিত হয়েছেন। জামালপুর পৌরসভায় বিএনপির শক্তিশালী অবস্থান থাকলেও নানা প্রতিক‚লতার কারণে এবার চিত্র কিছুটা ভিন্ন। প্রথম শ্রেণির ‘ক’ ক্যাটাগরি এই পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র পদে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ছানোয়ার হোসেন ছানুকে নৌকা প্রতীক মনোনয়ন দেওয়ায় সব দ্বিধাদ্ব›দ্ব ভুলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে মাঠে কাজ করছেন। দলে কোনো অভ্যন্তরীণ কোন্দল আর বিদ্রোহী প্রার্থী না থাকায় এবারের পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে বলে জানা গেছে। অপরদিকে বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক প্রার্থী অ্যাডভোকেট শাহ মো. ওয়ারেছ আলী মামুন পর পর দুইবার জামালপুর পৌরসভার মেয়রের দায়িত্ব পালন করার সুবাদে পৌরবাসীদের কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন। এরই মধ্যে নির্বাচনি প্রচারণায় বাধা ও দলীয় নেতাকর্মীদের ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলনও করেছেন তিনি। অপরদিকে বিএনপি প্রার্থীর সংবাদ সম্মেলনে বিরোধিতা করে আওয়ামী লীগও দলীয় কার্যালয়ে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেছেন।ছুরিকাঘাতে এক ব্যক্তি নিহতষ মাগুরা প্রতিনিধিমাগুরা শহরতরীর বরুনাতৈল পশ্চিম পাড়া গ্রামে বৃহস্পতিবার রাতে প্রতিবেশী যুবকের ছুরিকাঘাতে আকামত মোল্লা (৬০) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। বরুনাতৈল গ্রামের মৃত মোবারক মোল্লার পুত্র নিহত আকামত মাগুরা পুরাতন বাজারে শ্রমিকের কাজ করতেন।নিহতের ছেলে নাসিরুল হোসেন মোল্লা জানান, তার বাবা বাড়ির সামনে আলাউদ্দিনের দোকানে চা খেতে যান। এ সময় প্রতিবেশি জালাল শেখের (জালার) ছেলে এশা শেখ হঠাৎ করে সেখানে উপস্থিত হয়ে তার বাবা আকামতের বুকে ছুরি দিয়ে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলে উপস্থিত লোকজন উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নাসিরুল জানান, তার বাবা তাদের পরিবারের কারো সঙ্গে এশা নামের ওই যুবক বা এলাকাবাসীর কোনো পূর্ব বিরোধ নেই। কি কারণে তার বাবাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হলো তারা তা জানেন না। মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক আরিফুর রহমান জানান, হাসপাতালে আসার আগেই আকামতের মৃত্যু হয়। নিহতের বুকের বাম পাশে ধারালো অস্ত্রের একাধিক কোপের চিহৃ রয়েছে।মাগুরা সদর থানার ওসি জয়নাল আবেদীন জানান, পুলিশ সুপারসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। হত্যাকাÐের কারণ জানা ও অভিযুক্ত হত্যাকারীকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।শহীদ মিনারের চারপাশ দখলকরে সিএনজি স্ট্যান্ডষ সাইদুল হাসান সিপন মৌলভীবাজার মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ঐতিহ্যবাহী, সমৃদ্ধ ও ব্যস্ততম অঞ্চল শমশেরনগর। অনেক পুরনো একটি শহীদ মিনার ছিল এখানে যার বেদীর বেশিরভাগ অংশ ভেঙে যায়। বছর খানেক আগে সিদ্ধান্ত হয় নতুন শহীদ মিনার নির্মাণের। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হবে। অথচ নতুন শহীদ মিনারের চারপাশ দখল করে আছে সিএনজি অটোরিকশা স্ট্যান্ড। এ ছাড়াও ময়লা ও আবর্জনায় শহীদ মিনার আশপাশ দুর্গন্ধে একাকার। পথচারী, সিএনজি অটোরিকশা স্ট্যান্ডের ড্রাইভার, যাত্রীরা কেউ দাঁড়িয়ে, কেউ বসে প্রস্রাব করছেন এখানে। এতে পরিবেশটা অত্যন্ত নোংরা ও দুর্গন্ধময় হয়ে আছে। ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর এই স্থানে নেই কোনো পবিত্রতা রক্ষার নিয়ম নীতি। কর্তৃপক্ষের নেই কোনো তদারকি। স্থানীয়রা মনে করেন, ভাষা শহীদদের এমন অবমাননা কোনো অবস্থাতেই মানা যায় না। অনতিবলম্বে শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ ও আশপাশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করতে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন স্থানীয়রা।শমশেরনগর ইউনিয়ন পরিষদ সূত্রে জানা যায়, বিমানবন্দর সড়ক এলাকায় ডাকঘরের সামনে প্রায় ১০ বছর আগে একটি শহীদ মিনার নির্মিত হয়। শহীদ মিনার নির্মিত হওয়ার পর থেকে শমশেরনগরের একাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও স্থানীয়রা শহীদ মিনারটিতে বিভিন্ন দিবসে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। তবে শহীদ মিনারটির বেদীর কিছু অংশ ভেঙে যাওয়ায় বছর খানেক আগে মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের অর্থায়নে ২ লাখ টাকা ব্যয়ে পূর্বমুখী করে নতুন একটি শহীদ মিনার স্থাপন করা হয়।পাশর্^বর্তী স্থানে শমশেরনগর উত্তরবাজার সিএনজি-অটোরিকশাচালক সমিতির স্ট্যান্ড হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। তবে করোনাকালীন সময়ে শহীদ মিনার ব্যবহার না হওয়ায় শহীদ মিনারের পূর্ব দিকের সীমানা প্রাচীর ভেঙে সিএনজি অটোরিকশা চালকরা দখলে নেন। এরপর থেকে শহীদ মিনার স্থলে ও সম্মুখে সারিবদ্ধভাবে সিএনজি-অটো রাখা হচ্ছে। শহীদ মিনার চত্বরে লোকজন প্রস্রাব কাজেও ব্যবহার করছেন। ফলে এ এলাকায় দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে ও শহীদ মিনারের পবিত্রতা বিনষ্ট হচ্ছে।শমশেরনগর সাহিত্যাঙ্গনের সমন্বয়ক ও সুজা মেমোরিয়াল কলেজের প্রভাষক শাহজাহান মানিক ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, শহীদ মিনারের বেদীর বেশ কিছু অংশ ভেঙে গেলে জেলা পরিষদ পূর্বমুখী করে একটি বড় শহীদ মিনার নির্মাণ করে দিয়েছে। এবারও প্রথম নতুন শহীদ মীনারে মহান ভাষা ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি সম্মান জানানো হবে। তার আগেই সিএনজি অটোরিকশাচালক সমিতি শহীদ মিনারের চত্বরে গড়ে তুলেছে তাদের স্ট্যান্ড। এটি খুবই দুঃখজনক বলে তিনি মন্তব্য করেন। শমশেরনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. জুয়েল আহমেদ জানান, তিনি জানেন না কিভাবে সিএনজি অটোচালকরা শহীদ মিনারের চত্বরে স্ট্যান্ড গড়ে তুলেছে। তিনি মনে করেন অবিলম্বে শহীদ মিনার চত্বর থেকে সিএনজি অটোর স্ট্যান্ড সরিয়ে নেওয়া হোক।এ ব্যাপারে শমশেরনগর উত্তর বাজার সিএনজি অটোরিকশাচালক সমিতির সভাপতি মোস্তফা মিয়া জানান, এ এলাকাটি ব্যস্ততম। সড়কধারে সিএনজি অটোর সারি থাকলে যানজট বেড়ে যায়। তাই শহীদ মিনারের ভেতরের খালি জায়গায় সিএনজি অটো রাখছেন। কাল শনিবার ২০ ফেব্রæয়ারিও এ শহীদ মিনারের চত্বর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে দেওয়া হবে। কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক বলেন, বিষয়টি আমাকে কেউ জানায়নি। তবে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক : শাহনেওয়াজ দুলাল, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড-এর পক্ষে
প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ। নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]