ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শুক্রবার ২৩ এপ্রিল ২০২১ ১০ বৈশাখ ১৪২৮
ই-পেপার শুক্রবার ২৩ এপ্রিল ২০২১

কওমি শিক্ষার্থীদের বিদেশে উচ্চশিক্ষা নিয়ে সেমিনার অনুষ্ঠিত
ইসলামের আলো ডেস্ক
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারি, ২০২১, ৭:৪১ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 334

‘কওমি শিক্ষার্থীদের বিদেশে উচ্চশিক্ষা সমস্যা ও সম্ভাবনা’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে রাজধানী ফকিরাপুলের হোটেল রাহমানিয়া রুফটপ রেস্টুরেন্টে।

বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) মুসলিম ইয়ুথ সার্কেলের উদ্যোগে  দিনব্যাপী এ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। মাদরাসা দারুর রাশাদের প্রিন্সিপাল মাওলানা মুহাম্মদ সালমানের সভাপতিত্বে ও মুসলিম ইউ সার্কেলের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য মোহাম্মদ মনযূরুল হকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সেমিনারে  প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের মাননীয় সংসদ সদস্য ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে নদভী বলেন, ‘বিদেশে উচ্চশিক্ষা অর্জন করা প্রতিটি কওমি শিক্ষার্থীদের অধিকার। রাষ্ট্রীয়ভাবে তাদেরকে বিদেশে উচ্চশিক্ষার বৈধ পথ ও পন্থা তৈরি দেওয়া সকলের দায়িত্ব। স্টুডেন্ট ভিসায় দেওবন্দ ও নদওয়ায় যাওয়ার ক্ষেত্রেও আমি কাজ করব। প্রয়োজনে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদির সাথে সাক্ষাত করব। বাংলাদেশের শিক্ষামন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ প্রতিটি সেক্টরে আমি এসব নিয়ে কাজ করার সুযোগ করে দেব।’

সেমিনারে প্রধান আলোচক ছিলেন ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ। বিশেষ ৬ টি দাবিসহ মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন মুসলিম ইয়ুথ সার্কেলের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য মাওলানা সালাহউদ্দীন জাহাঙ্গীর।

এতে সরকার, সংশ্লিষ্ট মহল এবং দেশবাসীর প্রতি ৬টি দাবি ও আহবান তুলে ধরা হয়- ১. কওমি শিক্ষার্থীদের বিদেশে উচ্চশিক্ষা সহজ ও নিষ্কণ্টক করতে সরকারিভাবে কওমি সনদকে যথাযথ মূল্যায়ন করা। ২. পৃথিবীর সকল দেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের সুযোগ করে দিতে স্টুডেন্ট ভিসা সহজলভ্য এবং সকল আইনি জটিলতা নিরসন করা। ৩. ভারত, পাকিস্তান, সৌদি আরব, মিশর, কাতার, বাহরাইন, তুরস্ক, মালয়েশিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, যুক্তরাজ্যসহ পৃথিবীর অন্যান্য ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের বিভিন্ন ইসলামিক ইনস্টিটিউট ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে ক্রেডিট ট্রান্সফারের প্রক্রিয়া সহজ ও সহযোগিতামূলক করা। ৪. একইভাবে এসব দেশের ইসলামিক ইনস্টিটিউট ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সঙ্গে কওমি মাদরাসার শিক্ষার্থী আদান-প্রদানের ব্যবস্থা নেওয়া। ৫. বিভিন্ন দেশের ইসলামিক ইনস্টিটিউট ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো থেকে প্রদত্ত স্কলারশিপ (বৃত্তি) গ্রহণের সমন্বিত ব্যবস্থা গ্রহণ করা। ৬. সরকারিভাবে কওমি সনদের ভিত্তিতে শিক্ষার্থীদের বিসিএস, পিএইচডি ও উচ্চতর গবেষণার সুযোগ করে দেওয়া।

রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আগত প্রায় দেড়শ কওমি শিক্ষার্থী ও দায়িত্বশীল পর্যায়ের কওমি শিক্ষকগণের উপস্থিতে আরো বক্তব্য রেখেছেন বেফাকুল মাদারিসিলি আরাবিয়া বাংলাদেশের সহ-সভাপতি মাওলানা মুসলেহ উদ্দীন রাজু, জাতীয় দীনি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের মহাসচিব মুফতি মুহাম্মদ আলী।

সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের মুহাদ্দিস মুফতি ওয়ালিয়ুর রহমান খান, সাইফুরসের প্রতিষ্ঠাতা প্রফেসর সাইফুর রহমান, ইসলামিক ল রিসার্চ অ্যান্ড লিগ্যাল এইড সেন্টারের নির্বাহী পরিচালক শহীদুল ইসলাম, দাতব্য সংস্থা মারকাযুল ইসলামির চেয়ারম্যান মাওলানা হামজা ইসলাম, অধ্যক্ষ সৈয়দ রেজওয়ান আহমদ, শাঈখ মুহাম্মাদ উছমান গনী, মাওলানা আবু নোমান আল-মাদানী, ড. মোহাম্মদ ওবায়দুল্লাহ ও মুফতী সালমান আহমদ প্রমুখ।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক: হারুন উর রশীদ, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]