ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০২১ ৬ বৈশাখ ১৪২৮
ই-পেপার মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০২১

কাঠগড়ায় ‘মোদির’ উইকেট
ক্রীড়া ডেস্ক
প্রকাশ: শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৯:৪৯ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 26

বিশে^র সব থেকে বড় ক্রিকেট স্টেডিয়াম, আহমেদাবাদের ওই স্টেডিয়ামের আবার পরিবর্তন করে রাখা হয়েছে ভারতের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নামে। ভারত-ইংল্যান্ড সিরিজের তৃতীয় টেস্ট দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছে ১ লাখ ১০ হাজার দর্শক ধারণক্ষমতার স্টেডিয়ামটির। কিন্তু দুই দলের লড়াই সেভাবে বিনোদিত করতে পারেনি ক্রিকেটপ্রেমীদের। টেস্টটি যে মোটে পৌনে দুদিনেই শেষ হয়ে গেছে! যেখানে খেলা হওয়ার কথা ৪৫০ ওভার, সেখানে ১৪১ ওভার হওয়ার আগেই ম্যাচটা ১০ উইকেটে জিতে নিয়েছে ভারত। এরপর থেকেই সমালোচকদের কাঠগড়ায় নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামের উইকেট। কেউ বলছেন খুব কঠিন উইকেট, কেউবা চ্যালেঞ্জিং। কারও চোখে উইকেট ছিল খুব বেশি স্পিনবান্ধব, আবার পক্ষ টেনে কেউ বলছেনÑ ব্যাটিংয়ের জন্য খুব ভালো উইকেট ছিল!
ওভাবে হারের পরও খুব বেশি কিছু বলেননি ইংল্যান্ডের অধিনায়ক জো রুট। তবে এই টেস্টে হেরে বিশ^ টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে খেলার পথটা খুব কঠিন হয়ে যাওয়াটা, তাকে কিছুটা পোড়াচ্ছে তো বটেই। এই স্টেডিয়ামেই হবে সিরিজের শেষ টেস্ট, লর্ডসে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ফাইনাল খেলতে হলে সেই টেস্টে জিততে হবে ইংল্যান্ডকে। কিন্তু উইকেটের চরিত্র যদি এমনই হয়, সেটা যে সম্ভব হবে না, রুট সেটা বেশ ভালো করেই আঁচ করতে পারছেন। উইকেটটা কেমন ছিল? নিয়মিত বোলার না হওয়া সত্তে¡ও রুট প্রথম ইনিংসে ৫ উইকেট নিয়েছিলেন অফস্পিনে, উইকেটের প্রকৃত অবস্থা ব্যাখ্যা করতে নিজের বোলিং পারফরম্যান্সকেই উদাহরণ হিসেবে সামনে টেনেছেন তিনি, ‘আমি পাঁচ উইকেট নিয়েছি। এতেই হয়তো বোঝা যেতে পারে, পিচ আসলে কেমন ছিল।’
স্পিনের বিপক্ষে ইংলিশ ব্যাটসম্যানরা অপেক্ষাকৃত দুর্বল। তাই তাদের বধ করতে স্পিন-ফাঁদই পেতেছে ভারত। তাই বলে উইকেট এতটা স্পিন-সহায়ক হবে, সেটা যেন মানতে কষ্টই হচ্ছে রুটের পূর্বসূরি অ্যালিস্টার কুকের। তার ভাষ্য, মোদির উইকেটে ব্যাটসম্যানদের কাজটা একটু বেশিই কঠিন ছিল, ‘আমরা একটি পরিসংখ্যান দেখেছি যে, ভারতের অন্য যেকোনো পিচের চেয়ে এখানে বল বেশি টার্ন করেছে। তবে এর সঙ্গে এটাও মানতে হবে যে, অনেক বল পিচ করার পর সোজা গেছে। যার মানে দাঁড়ায়, যখন বল টার্ন করেছে, তখন অনেক বেশিই টার্ন করেছে। হাইলাইটস দেখলে বুঝবেনÑ কিছু বল স্কিডও করেছে। এভাবে পরিকল্পনা করা যায় না। কারণ একই জায়গার বল অনেক বেশি টার্ন করেছে।’
উইকেট কতটা স্পিনবান্ধব ছিল, সেটা বোঝাতে ইংল্যান্ডের আরেক সাবেক অধিনায়ক অ্যান্ড্র স্ট্রাউস সামনে টেনেছেন রুটের ব্যাটিং ব্যর্থতাকে। তিনি বলেছেন, ‘জো রুটের দিকে দেখেন। সবাই জানে, রুট স্পিন খুব ভালো খেলে। এমনকি সে দারুণ ফর্মেও আছে। সে কত করল? ১৯ রানে আউট। এ রান করার পথে কয়েকবার বেঁচেও গেছে। আমি কুকের সঙ্গে একমত। এখানে স্পিনারদের জন্য অতিরিক্ত সুবিধা ছিল।’ ইংল্যান্ডের সাবেক দুই অধিনায়কই নন, উইকেট অনেক বেশি স্পিনবান্ধব ছিল বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের সাবেক ক্রিকেটার যুবরাজ সিং, ‘দুদিনে ম্যাচ শেষ হওয়া, টেস্ট ক্রিকেটের জন্য ভালো উদাহরণ কি না, সে বিষয়ে চিন্তিত নই। যদি অনিল কুম্বলে আর হরভজন সিং এ ধরনের পিচে বল করত, তা হলে কি ওদের ঝুলিতে হাজার কিংবা ৮০০ উইকেট থাকত না?’
ইংলিশদের ওমন কথার সঙ্গে যুবরাজের তাল মেলানো, বিষয়টা একেবারেই পছন্দ হয়নি ভারতীয় স্পিনার রবিচন্দ্রন অশি^নের। এক টুইটবার্তায় তিনি উল্টো তোপ দেগেছেন এভাবে, ‘আমরা সবাই জানি যে পণ্য বিক্রি করার জন্য বিভিন্ন ধরনের কৌশল নেওয়া হয়। আমরা এখন এমন একটা যুগে বাস করছি, যেখানে ভাবনাচিন্তাও আমাদের কাছে বিক্রি করা হচ্ছে!’ সঙ্গে যোগ করেছেন, ‘এক দশক ধরে খেলার পর আমি এটা বুঝেছি যে, ওদের কথা যত বেশি বিশ^াস করব, তত বেশি আমাদের মুখের সামনে সেটা তুলে ধরা হবে। যদি ভাবনাচিন্তা আমাদের নিজস্ব হয়, তা হলে বেশিরভাগ লোক এর বিরুদ্ধে হলেও আমাদের উচিত নিজেদের পক্ষে দাঁড়ানো।’
কিন্তু অধিনায়ক বিরাট কোহলি যেন আরও একধাপ এগিয়ে গিয়েই নিজেদের পক্ষ নিলেন। তার সাফ কথা, উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য বেশ ভালো ছিল! ম্যাচ শেষে তিনি বলেছেন, ‘ব্যাটিংয়ের জন্য খুব ভালো উইকেট ছিল এটা। বিশেষ করে প্রথম ইনিংসে। আমার মনে হয়েছে, বল খুব ভালো ব্যাটে আসছে। মাঝেমধ্যে দুয়েকটি বল টার্ন করেছে।’ সঙ্গে যোগ করেছেন, ‘আমি কেবল এটাই বলব যে, দুই দলই গড়পড়তার চেয়ে খারাপ ব্যাটিং করেছে। আমাদের বোলাররা বেশি কার্যকর ছিল এবং এ কারণেই ফল আমাদের পক্ষে এসেছে।’






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক: হারুন উর রশীদ, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]