ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০২১ ৬ বৈশাখ ১৪২৮
ই-পেপার মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০২১

রাত পোহালেই পঞ্চম ধাপের পৌরসভার ভোট
সহিংসতা এড়াতে তৎপর ইসি শেষ হলো প্রচারণা
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১০:০৯ পিএম আপডেট: ২৭.০২.২০২১ ১২:৩১ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 33

ধাপে ধাপে শেষ হতে যাচ্ছে স্থানীয় পৌরসভা নির্বাচন। সহিংসতা-সংঘর্ষ আর প্রাণহানির মধ্যেও সুষ্ঠুভাবেই চ্যালেঞ্জ উত্তরণ হচ্ছে বলে বরাবরই দাবি করে আসছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। একে একে চারটি ধাপে ভোটগ্রহণ শেষে আগামীকাল অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে পঞ্চম ধাপের পৌরসভার নির্বাচন। এই নির্বাচনে যেন সংঘর্ষে একটি প্রাণও বলি না হয় সেই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে ইসি। সর্বোচ্চ সতর্কতায় রয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও। কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছে গেছে প্রায় সব নির্বাচনি সরঞ্জাম। শুক্রবার মধ্যরাত থেকে শেষ হয়েছে প্রার্থীদের প্রচারণাও। এবার ইসির অগ্নি-পরীক্ষার পালা বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। ইসি সূত্র জানায়, এদিন সকাল ৮টা থকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত একটানা 
ভোট চলবে। ৩১টি ভোটকেন্দ্রে ভোট হওয়ার কথা থাকলেও জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ, যশোর ও চট্টগ্রামে ভোটগ্রহণ স্থগিত হওয়ায় আগামীকাল রোববার ২৯টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ চলবে জানিয়ে ইসির যুগ্ম সচিব এসএম আসাদুজ্জামান সময়ের আলোকে বলেন, পঞ্চম ধাপের নির্বাচনে জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন অনুবিভাগের (এনআইডি) কর্মকর্তারা সরেজমিন উপস্থিত থেকে ইভিএমের মাধ্যমে ভোটগ্রহণের প্রয়োজনীয় কারিগরি সহায়তা দেবে। এ ছাড়া ভোটকেন্দ্রে ভোটগ্রহণ প্রশিক্ষণের জন্য প্রয়োজনীয় ইভিএম কাস্টমাইজেশনসহ নির্বাচন উপযোগী করে রিটার্নিং অফিসারের কাছে হস্তান্তর করতে হবে। তিনি বলেন, পঞ্চম ধাপে সংশ্লিষ্ট জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা অথবা জ্যেষ্ঠ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা অথবা ক্ষেত্রবিশেষে অতিরিক্ত আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও অতিরিক্ত জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাকে রিটার্নিং অফিসার নিয়োগ করা হয়েছে। তবে আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে কয়েকটি পৌরসভায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও ইউএনওকে রিটার্নিং অফিসার নিয়োগ করা হয়েছে। একই সঙ্গে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তাকে সহকারী রিটার্নিং অফিসার হিসেবেও নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।
তিনি বলেন, এই ধাপের পৌরসভা নির্বাচনে ৩১টি ভোটকেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোটগ্রহণ হবে। এ লক্ষ্যে ইতোমধ্যে জারি হয়েছে একটি পরিপত্র। যেকোনো নির্বাচনেই কোনো ধরনের সহিংসতা হোক নির্বাচন কমিশন তা চায় না এবং সহিংসতা বন্ধে ইসি সবসময়ই সচেষ্ট থাকে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও তৎপর থাকে। কিন্তু এরপরও দুয়েকটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা তো ঘটেই থাকে। তবুও আমরা চাইব এ ধরনের কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা যেন না ঘটে। আশা করি সুষ্ঠুভাবেই সম্পন্ন হবে পঞ্চম ধাপের পৌরসভা নির্বাচন।
ইসি সূত্রে জানা যায়, দেশে পৌরসভা রয়েছে মোট ৩২৯টি। করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে এবার পাঁচ ধাপে এসব পৌরসভায় নির্বাচন করছে কমিশন। প্রথম ধাপের তফসিলের ২৪টি পৌরসভায় ২৮ ডিসেম্বর ইভিএমে ভোট হয়েছে। এরপর ১৬ জানুয়ারি ভোট হয়েছে দ্বিতীয় ধাপের ৬১ পৌরসভায়। তৃতীয় ধাপে ৬৪টি পৌরসভায় ৩০ জানুয়ারি এবং চতুর্থ ধাপে ৫৮ পৌরসভায় ১৪ ফেব্রæয়ারি ভোট হয়।
আইন অনুযায়ী, মেয়াদ শেষের পূর্ববর্তী ৯০ দিনের মধ্যেই পৌরসভার ভোট করতে হয়। স্থানীয় সরকার আইন সংশোধনের পর ২০১৫ সালে পৌরসভায় প্রথম দলীয় প্রতীকে ভোট হয়েছিল। এর আগের নির্বাচনগুলোতে ভোটার উপস্থিতি কম হলেও এবার উল্লেখযোগ্য পরিমাণ ভোটারের উপস্থিতি কামনা করছে নির্বাচন কমিশন।
এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশন সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার বলেন, দিন দিন ভোটার উপস্থিতি এখন বেড়েছে। এতে বোঝা যায় ভোটের প্রতি মানুষের আস্থা বেড়েছে এবং সম্পূর্ণ আস্থা আছে। ইভিএমে ভোট দিলে ভোট আরও সুন্দর হয়, এ জন্য দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট দিয়েছে। তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, ম্যাজিস্ট্রেট মোতায়েন করা হয়। তবে সব জায়গায় কিছু লোক থাকে, যারা ভালো জিনিসকে ভালো দেখতে চায় না। যখন দেখে ভালো হয়ে যাচ্ছে, তাদের ভালো লাগে না। এ জন্য যেখানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী থাকে না, সেখানে উচ্ছৃঙ্খল আচরণ করে। আচরণবিধি যাতে সবাই মেনে চলেন, সে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যারা মানবেন না, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নেবে। আচরণবিধি লঙ্ঘন করলে বিজয়ী হওয়ার পরও কমিশন চাইলে ব্যবস্থা নিতে পারে। অন্যদিকে শুক্রবার মধ্যরাত থেকে শেষ হয়েছে এই নির্বাচনের প্রচারণা। তাই শেষ মুহূর্তের প্রচারে ব্যস্ত সময় পার করেছেন মেয়র ও কাউন্সিল প্রার্থীরা। সবার চোখেই একটি শান্তিপূর্ণ ভোটের স্বপ্ন।
চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া, রাউজান, মিরসরাই ও বারইয়ারহাট, ল²ীপুরের রায়পুর, চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল, হবিগঞ্জ, জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ, ইসলামপুর, মাদারগঞ্জ ও জামালপুর, রাজশাহীর চারঘাট ও দুর্গাপুর, বগুড়া, মানিকগঞ্জের সিংগাইর, চাঁদপুরের মতলব ও শাহরাস্তি, মাদারীপুরের শিবচর ও মাদারীপুর, রংপুরের হারাগাছ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ ও মহেশপুর, জয়পুরহাট, ময়মনসিংহের নান্দাইল, ভোলা ও গাজীপুরের কালীগঞ্জে এদিন ভোটগ্রহণের কথা থাকলেও পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন। আর চট্টগ্রামের রাউজানে সব প্রার্থী জয়ী হওয়ায় ভোটগ্রহণের প্রয়োজন হচ্ছে না। সীমানা সংক্রান্ত জটিলতা নিষ্পত্তি না হওয়ায় আপাতত হচ্ছে না যশোর পৌরসভার নির্বাচনও।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক: হারুন উর রশীদ, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]