ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শুক্রবার ২৩ এপ্রিল ২০২১ ১০ বৈশাখ ১৪২৮
ই-পেপার শুক্রবার ২৩ এপ্রিল ২০২১

পাহাড়ে যাওয়ার প্রস্তুতি
মনিরা নওরোজ সেতু
প্রকাশ: শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৮:৫৪ পিএম আপডেট: ২৮.০২.২০২১ ১০:৪৩ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 567

আমার অল্পবিস্তর অভিজ্ঞতা থেকে পাহাড়ে যাবার প্রস্তুতি নিয়ে কিছু বলতে চাই। এইবার জোতলাং ট্রেইল থেকে ফেরার পথে মনে হয়েছে, আজকাল মানুষ ফেসবুকের ছবি দেখেই চলে আসে দুর্গম পথে।

জোতলাং-কে (দেশের ২য় সর্বোচ্চ পাহাড়চূড়া) বাংলাদেশের টাফ ট্রেইল বলা যায়। এই ট্রেইলে নামার আগে অবশ্যই মানসিক ও শারীরিক ভালো প্রস্তুতি থাকা উচিত। আর দরকার গোছানো পরিকল্পনা থাকা। পুরো ট্রেইল শেষ করতে কত সময় লাগতে পারে, সেটা যাচাই করে নেওয়াও জরুরি। কারণ সে অনুযায়ী খাবার নিতে হবে। আর যারা দলবল নিয়ে যান, তাদেরও উচিত- যাদেরকে নিয়ে যাচ্ছেন, তাদেরকে যাবার আগে থেকেই ব্রিফিং দেওয়া। ট্রেইল সম্পর্কে সুন্দর করে ধারণা দিয়ে নেওয়া।

এইবার জোতলাং ট্রেইলে দেখেছি অনেকের কাছেই হেডল্যাম্প নেই, অথচ ট্রেইলে নেমে গেছেন। অনেককেই প্রতিটা স্টেপ বলে বা ধরে নিতে হচ্ছে ডিরেকশান দিয়ে দিয়ে, মানে সে আগে কখনো ট্রেক করে নি, অথচ নেমে গেছে জোতলাং ট্রেইলে। দেখলাম, অনেকের কাছেই নেই শুকনো খাবার।

ট্রেইলে নামলে যে কোনও বিপদাপদ আসতে পারে। হয়তো ৫ ঘন্টার ট্রেইলেও আপনার সঙ্গী বা আপনি নিজেই আহত হতে পারেন।  কখনও রাত হয়ে যেতে পারে। তাই ট্রেকে সাথে হেড ল্যাম্প থাকাটা জরুরি।

এবার আসি খাবারের কথায়। একদিনের ট্রেইলে সাথে থাকা চাই , দ্রুত এনার্জি দেয় এমন ড্রাই ফুডস। আমি এই ক্ষেত্রে একটা ট্রিকস ফলো করি। প্রচুর চিনি জাতীয় খাবার সাথে রাখি। চিনি খুব দ্রুত ব্রেইনকে এক্টিভ করে।

ট্রেইলে লম্বা সময় চলতে থাকলে এক সময় গা, হাত-পা কাঁপতে পারে। আমি এ জন্য ২০-২৫ মিনিট পরপরই মুখে ঢুকিয়ে দিই ক্যান্ডি। যেটা পুরোটাই চিনির। যেমন ফক্সেস বা যে কোনও ছোট ক্যান্ডি। আর পিনাট বার, ম্যাংগো বার এবং খেজুর। এ ছাড়া পানি তো রাখতেই হবে পর্যাপ্ত। ট্রেইল যদি লম্বা হয়, মানে সময় লাগতে পারে ১২ ঘন্টার বেশি, সে ক্ষেত্রে সাথে রাখতে হবে ওটস বার, কয়েক স্লাইস পাউরুটি, কলা। পাড়া থেকে সেদ্ধ ডিম নিতে পারেন। আর এই সবকিছু নিজের কাছে রাখার জন্য দরকার ডে ব্যাকপ্যাক।

এবার আসি জুতার বিষয়ে। ট্রেইলে দেখেছি প্রচুর মানুষ ছেঁড়া জুতা নিয়ে যুদ্ধ করছেন। পাহাড় এবং পা এই দুইটা একে অন্যের সঙ্গে জড়িত। ভালো মানের জুতা কিনুন। সাথে মোজা ব্যবহার করুন। পায়ে ফোস্কা হবে না। ঐ দুই টাকা সেইভ-এর থেকে আপনার একটা আরামদায়ক ট্রেক অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ট্রেইলে নামলাম আর গায়ের জোরে সব মেরে দিলাম, খেয়ে দিলাম এই ধ্যান-ধারণা নিয়ে ট্রেক শেষ হয়তো করা যায়,  কিন্তু যেখানে সঠিক পরিকল্পনা নেই, সেখানে সাফল্যকে ঠিক সাফল্য বলা যায় না।

যেখানে সঠিক পরিকল্পনা নেই, সেখানে সাফল্যকে ঠিক সাফল্য বলা যায় না

এবার মেয়েদের নিয়ে কিছু বলতে চাই। দুঃখজনক হলেও সত্য যে, এসব ট্রেইলে অধিকাংশ মেয়েরা যায়, তাদের পরিচিত এবং আস্থার কিছু ভাই-বন্ধুর ভরসায়। হ্যালো গার্লস, নিজে চলাটা আগে শেখেন,  তাতে শুধু পাহাড়েই নয়, পুরো জীবনেই কাজে লাগবে। একবার ভাবুন তো কাউকে হাত ধরে ধরে, ‘এখানে পা রাখো, ওখানে হাত রাখো’ এভাবে একটা লম্বা, রিস্কি পথ পার করতে আপনার মানসিক এবং শারীরিক অবস্থা কেমন দাঁড়াবে? তাই কোনও ট্রেকে যাবার আগে সেটা নিয়ে খানিকটা পড়ালেখা করে নিন। নিজেকে কিছুটা মজবুত করতে প্রতিদিন জগিং করতে পারেন। সঙ্গে হালকা এক্সারসাইজ।

নারীদের জীবনচক্রের একটা স্বাভাবিক প্রক্রিয়া হচ্ছে পিরিয়ড। অনেকেরই হয়তো ডেট ঠিক থাকে না, কিন্তু ট্রেকের শারীরিক-মানসিক চাপে ট্রেকের সময় সেটা হয়ে যায়। তাই ঘুরতে গেলে এই প্রস্তুতি অবশ্যই রাখতে হবে সাথে। রাখবেন ওয়েট টিস্যু। যদি সেই সময় বিশেষ কোনও মেডিসিন খান,  সেটাও নিতে ভুলবেন না।

তাই লম্বা ট্রেইলে নামার আগে সঙ্গে রাখুন-
১. হেড ল্যাম্প
২. ভালো জুতা, মোজা
৩. পরিমাণ মতো খাবার, পানি
৪. আগুন জ্বালাবার লাইটার
৫.  একটা নাইফও রাখতে পারেন
৬. কমপক্ষে ১০ লিটার-এর ডে ব্যাকপ্যাক

আর অবশ্যই ময়লা-আবর্জনা ট্রেইলে ফেলা থেকে আমাদের বিরত থাকতে হবে। স্থানীয় মানুষদের সঙ্গে বন্ধুসুলভ আচরণ করতে হবে। অনুমতি ছাড়া তাদের ছবি তোলা উচিত নয়।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক: হারুন উর রশীদ, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]