ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০২১ ৬ বৈশাখ ১৪২৮
ই-পেপার মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০২১

ফরজ পরিমাণ জ্ঞান অর্জন
প্রকাশ: রোববার, ৭ মার্চ, ২০২১, ১০:০৭ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 79

হুসাইন আহমদ
পার্থিব জীবন আল্লাহর নির্দেশনা মোতাবেক পরিচালনা করার জন্য প্রত্যেক মুসলমানের ওপর ফরজ পরিমাণ জ্ঞান অর্জন করা ফরজ। হাদিসে এসেছে, ‘প্রতিটি মুসলমানের ওপর ইলম শিক্ষা করা ফরজ।’ (ইবনে মাজা : ২২৪)। প্রতিটি নর-নারীর ওপর জরুরি দ্বীনি ইলম শিক্ষা করা ফরজ। এর মধ্যে রয়েছে অজু, গোসল, নামাজ-রোজার ইলম। যার নেসাব পরিমাণ মাল আছে, তার জন্য জাকাতের ইলম শিক্ষা করাও ফরজ। যার ওপর হজ ফরজ তার হজের বিধানাবলি জানা ফরজ। ব্যবসায়ীর জন্য ব্যবসা সংক্রান্ত জ্ঞান অর্জন করা ফরজ। যেন লেনদেনে নিষিদ্ধ ও হারাম বিষয় থেকে বেঁচে থাকতে পারে। এমনিভাবে প্রতিটি পেশাজীবীর জন্য তার পেশা সংক্রান্ত শরিয় ইলম শিক্ষা করা ফরজ।
ইসলামের মৌলিক ৫ স্তম্ভের ইলম অর্জন করা, ইখলাস সংক্রান্ত ইলম অর্জন করাও ফরজ। কারণ, ইখলাসের ওপর আমল কবুল হওয়া নির্ভরশীল। হালাল ও হারাম সংক্রান্ত ইলম, লৌকিকতা তথা রিয়া সম্পর্কে জানাও জরুরি। কারণ রিয়ার কারণে মানুষ আমলের সওয়াব থেকে বঞ্চিত হয়। হিংসা ও অহঙ্কার সংক্রান্ত বিধিবিধান জানাও আবশ্যক। কারণ এ দুটি আমলকে ধ্বংস করে দেয়, যেমন আগুন কাষ্ঠখণ্ড পুড়িয়ে দেয়। যে ব্যক্তি ক্রয়-বিক্রয় বা বিয়ে শাদী করতে চায়, তার জন্য ক্রয়-বিক্রয় ও বিবাহ সংক্রান্ত হুকুম জানাও ফরজ।
হারাম ও কুফরি বাক্যবলি সম্পর্কিত ইলম থাকাও ফরজ। ইমাম ইবনে আবেদীন শামী (রহ.) বলেন, আমার জীবনের কসম! হারাম ও কুফরি বাক্য সম্পর্কিত ইলম বর্তমান সময়ের জন্য সবচেয়ে বেশি জরুরি। কারণ অনেক মানুষ কুফরি কথা বলে তাদের অজ্ঞাতেই। একারণেই জাহেল লোকদের জন্য প্রতিদিন তার ঈমানকে নবায়ন করা উচিত। আর দুজন সাক্ষীর সামনে প্রতি এক দুই মাস অন্তর অন্তর বিয়ে দোহরিয়ে নেওয়া উচিত। এমন কুফরি বক্তব্য পুরুষদের থেকে কম হলেও নারীদের থেকে অনেক হয়ে থাকে। (ফাতাওয়া শামি : ১/১২৬)
ইমাম গাজালি (রহ.) বলেন, তিন প্রকার ইলম শিক্ষা করা ফরজÑ ১. ইলমুত তাওহিদ, ২. ইলমুসি সির এবং ৩. ইলমুশ শরিয়াহ। অর্থাৎ এতটকু জ্ঞান রাখা তওহিদ সম্পর্কে, যা দ্বীনের মূলের অন্তর্ভুক্ত। আল্লাহ তায়ালা সম্পর্কে এ জ্ঞান রাখা যে, তিনি জীবিত, সকল কিছুর ওপর ক্ষমতাশালী, সর্বশ্রোতা, সর্বজ্ঞানী, তার কোনো শরিক নেই, সব গুণে গুণান্বিত, মাখলুকের সিফাত থেকে পবিত্র। হজরত মুহম্মদ (সা.) তার বান্দা ও রাসুল। দ্বিতীয় বিষয়, ইলমুস সির দ্বারা উদ্দেশ্য হচ্ছেÑ অন্তরকে নিষিদ্ধ বিষয় থেকে পবিত্র করা এবং কাম্য বস্তু দিয়ে ভরপুর করা। ইখলাস, নিয়ত, আমলের হিফাজত ইত্যাদি। আর ইলমুশ শরিয়ত বলতে উদ্দেশ্য হলোÑ ব্যক্তির জন্য যা কিছু আদায় করা ফরজ সে সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করাও ফরজ। (মিনহাজুল আবেদীন ইলা জান্নাতি রাব্বিল আলামিন, ইমাম গাজালি : ৪৮-৪৯)
অতএব আমাদের পার্থিব জীবনকে সুন্দর, শান্তিপূর্ণ ও শরিয়তসম্মতভাবে পরিচালনার ফরজ পরিমাণ জ্ঞানার্জন করতে হবে ও শিখতে হবে এবং সে অনুযায়ী আমল করতে হবে। আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবাইকে ফরজ পরিমাণ জ্ঞানার্জন করে আমল করার তাওফিক দান করেন। আমিন।







সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক: হারুন উর রশীদ, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]