ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০২১ ৬ বৈশাখ ১৪২৮
ই-পেপার মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০২১

পিতার সম্পদে বোনের হক
প্রকাশ: সোমবার, ৮ মার্চ, ২০২১, ৯:৫৬ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 56

শায়খ আহমাদুল্লাহ
ইসলাম নারীকে শুধু সামাজিক মর্যাদাই দেয়নি, দিয়েছে অর্থনৈতিক অধিকারও। একজন নারী কেবল তার বাবার সম্পত্তিতেই নয়, তার স্বামী ও সন্তানের সম্পত্তিতেও অংশ রয়েছে। জন্মগ্রহণের পরই একজন নারীর ভরণ-পোষণের দায়িত্ব তার বাবার, বাবা মারা গেলে বড় ভাইয়ের; যদি থাকে। বিয়ের পর স্বামীর। বৃদ্ধকালে সন্তানের। পক্ষান্তরে একজন পুরুষ প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার পর নিজের উপার্জনে চলতে বলা হয়েছে; এমনকি স্ত্রীর উপার্জিত সম্পদেও স্বামীর সামান্যতম অধিকার থাকে না। ইসলাম নারীর জন্য পরিষ্কার ভাষায় পৈতৃক সম্পত্তির অধিকার নিশ্চিত করেছে। পুরুষ এবং নারীÑ উভয়েই পৈতৃক সম্পত্তির ন্যায্য অংশ লাভ করবে। এ ক্ষেত্রে সমাজে কিছু কুসংস্কার দেখা যায়। যেমনÑ অনেক সময় দেখা যায়, বোন শ^শুর বাড়িতে মোটামুটি ভালো অবস্থানে থাকেন কিংবা ভাই থেকে বেশি সম্পদশালী হয়ে থাকেন। এখন বোন যদি মনে করে, বাবার সম্পত্তিতে আমার যে অধিকার আছে তা নেব না, এটা ভাইকে দিয়ে দেব; তা হলে ভাইয়ের জন্য সেই সম্পত্তি ভোগ করা হালাল হবে কি?
হ্যাঁ, বোন যদি বাবার সম্পত্তির অংশ খুশি মনে ভাইকে দেয়, তা হলে ভাইয়ের জন্য সেটা ভোগ করা হালাল বা জায়েজ।
কিন্তু জটিলতা হচ্ছেÑ অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা যায়, আমাদের দেশের মেয়ে বা বোনেরা বাবার বাড়ির সম্পত্তি আনেন না। প্রথম কারণ হলোÑ তারা মনে করেন, বাবার বাড়ির সম্পত্তি আনলে তারা গরিব হয়ে যাবেন! দ্বিতীয় ধারণা হলোÑ তারা মনে করেন, বাবার বাড়ির সম্পত্তি আনলে ভাইদের কাছে দাঁড়ানো অধিকার তাদের থাকবে না। বাবার বাড়ির সম্পত্তি নিলে যেন সে পর হয়ে যায়।
বাস্তবেও অনেক এলাকায় দেখা যায়Ñ বোন বা ফুফুরা যদি তাদের হক নিয়ে যায়, তা হলে তাদের বাবার বাড়ি আসা, বেড়ানোর অধিকার থাকে না। এটা ঠিক নয়। ইসলাম একে সমর্থন করে না। কারণ, সম্পত্তির অংশ নেওয়া বোনের অধিকার। পবিত্র কোরআনে এসেছেÑ ‘আল্লাহ তোমাদেরকে তোমাদের সন্তানের বিষয়ে আদেশ দিচ্ছেন। (তোমাদের রেখে যাওয়া সম্পদে) এক ছেলের অংশ দুই মেয়ের অংশের সমান। আর যদি সন্তান শুধুই মেয়ে হয়, তা হলে তারা একাধিক হলে পুরো সম্পদের দুই-তৃতীয়াংশ পাবে। যদি এক মেয়ে থাকে, তা হলে সে পাবে পূর্ণ সম্পদের অর্ধেক...।’ (সুরা নিসা : ১১)। ভাইয়ের যেমন বাবার সম্পত্তি ভোগ করার অধিকার আছে, বোনেরও আছে। এই সম্পত্তি নেওয়ার কারণে আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্ন হবে কেন?
ভাইয়ের সঙ্গে বোনের যে রক্তের সম্পর্কÑ তা হক নিলেও থাকবে, না নিলেও থাকবে। বাবার সম্পত্তি যদি বোন নিয়ে যায় তারপরেও ভাইয়ের কর্তব্য হলো; বোনের দেখাশোনা করা, খোঁজখবর নেওয়া। বোন যদি তার হক না নেয় তারপরেও ভাইয়ের কর্তব্য হলো, তার বোন কি কুসংস্কারের কারণে বা তার খোঁজখবর নেওয়া হবে নাÑ এ কারণে সম্পত্তি নিচ্ছে না! এটা জানা। যদি এটাই হয় তা হলে বোনকে বোঝাতে হবে, ভাই হিসেবে তোমার প্রতি আমার যে দায়িত্ব এটা ক্ষুণ্ন হবে না। অতএব তুমি নির্দ্বিধায় সম্পত্তি নিতে পার। এভাবে বলার পরও যদি বোন বাবার বাড়ির সম্পত্তি না নেয় তা হলে এটা ভাইয়ের জন্য ভোগ করা জায়েজ। অন্যথায় নয়। প্রতিটি নারীর এই প্রাপ্ত অধিকার সমাজে বাস্তবায়ন করা সবার দায়িত্ব। আল্লাহ নারীদের অধিকার আদায়ের গুরুত্ব অনুধাবনের তওফিক দিন।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক: হারুন উর রশীদ, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]