ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শুক্রবার ২৩ এপ্রিল ২০২১ ১০ বৈশাখ ১৪২৮
ই-পেপার শুক্রবার ২৩ এপ্রিল ২০২১

বাসাইলে টমেটোর বাম্পার ফলনেও দিশেহারা কৃষক
বাসাইল (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ৩০ মার্চ, ২০২১, ৭:১৪ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 112

টাঙ্গাইলে অন্যান্য বছরের তুলনায় টমেটোর ফলন হয়েছে বেশ ভালো। কিন্তু এবার বাজারে টমেটোর দাম ও চাহিদা তুলনামূলকভাবে একেবারেই কম। ক্ষেত থেকে টমেটো তুলতে কর্মচারীর খরচও ওঠাতে পারছেন না চাষীরা। বাজারে নিয়েও বিক্রি করতে না পেরে টমেটো ফেলে দেওয়ার ঘটনাও ঘটছে। বিক্রি করতে না পেরে ক্ষেতেই নষ্ট হচ্ছে অসংখ্য কৃষকের টমেটো। ফলে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন এ অঞ্চলের টমেটো চাষীরা।

জানা যায়, টাঙ্গাইলের ১২টি উপজেলায় এবার ৭শ’ ৭৩ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের টমেটোর আবাদ করা হয়েছে। এবার এ অঞ্চলে ফলনও হয়েছে বাম্পার। বাজারে টমেটো বিক্রির শুরুতে ৩শ’ থেকে সাড়ে ৩শ’ টাকা মণ দরে বিক্রি করা যেত। কিন্তু বর্তমানে বাজারে সর্বোচ্চ ২শ’ টাকা মণ করে বিক্রি করা যাচ্ছে।

সরেজমিনে জেলার বাসাইল উপজেলার আদাজান গ্রামে গিয়ে চোখে পড়ে বিশাল চক। এই চকে টমেটো, কাঁচা মরিচ, বেগুন, ডাটা, শসা, আলু, গম, ভুট্টাসহ বিভিন্ন ধরনের কৃষি আবাদ করা হচ্ছে।

সেখানে কথা হয় টমেটো চাষী মালম খানের সাথে। তিনি বলেন, “আমি প্রায় ৮০ শতাংশ জমিতে টমেটোর আবাদ করেছি। এ পর্যন্ত আমার খরচ হয়েছে প্রায় ৬০ হাজার টাকা। বাজারে দুইশ’ টাকা মণ করে টমেটো বিক্রি করতে হচ্ছে। যেখানে অন্যান্য বছর বিক্রি করতাম ৬শ’ থেকে ৮শ’ টাকা মণ। টমেটো তুলতে কর্মচারী ও বাজারে নেওয়ার খরচই উঠছে না। এখন টমেটো ক্ষেতেই পচে যাচ্ছে।”


টমেটো চাষী লতিফ বলেন, “আমি ৫০ শতাংশ জমিতে টমেটোর আবাদ করেছি। এ পর্যন্ত আমার ৪০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। বাজারে টমেটোর দাম একেবারেই কম। বাজারে ২ টাকা থেকে ৩ টাকা কেজি দরে টমেটো বিক্রি হচ্ছে। অনেক সময় বাজারে নিয়ে বিক্রি করতে না পেরে ফেলে দিয়েও আসতে হয়। টমেটো তুলতে কর্মচারী ও বাজারে নেওয়ার জন্য গাড়ির খরচই উঠছে না।

জহুরা নামের এক কৃষানি বলেন, “আমরা ৪০ শতাংশ জায়গায় টমেটোর আবাদ করেছি। আমার খরচ হয়েছে ৩৫ হাজার টাকা। এখন আর বিক্রি করতে পারছি না। এজন্য টমেটো ক্ষেতেই নষ্ট হচ্ছে। এবার আমি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছি।”

বাসাইল উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নাজনীন আক্তার বলেন, “বাসাইলে প্রায় ২০ হেক্টর জমিতে টমেটোর আবাদ হয়েছে। বিভিন্ন ধরনের হাইব্রিট ও স্থানীয় জাতসহ কৃষকরা টমেটোর আবাদ করেছেন। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার ফলন বেশ ভালো। কৃষকরা এই মুহূর্তে বাজারে বিক্রি করছেন। তবে যেহেতু এটা শীতকালীন মৌসুমের একেবারে শেষ পর্যায়ে। এই মুহূর্তে এসে চাষীরা কাঙ্ক্ষিত বাজার মূল্য পাচ্ছেন না।”




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক: হারুন উর রশীদ, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]