ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ ৫ বৈশাখ ১৪২৮
ই-পেপার সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১

দোকান খুলতে অনড় ব্যবসায়ীরা
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ৮ এপ্রিল, ২০২১, ১২:০০ এএম আপডেট: ০৮.০৪.২০২১ ২:৩৬ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 32

ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলতে অনড় অবস্থানে রয়েছেন ব্যবসায়ীরা। তাদের দাবি অফিস-আদালত, গণপরিবহনসহ সবকিছুই যেখানে খোলা সেখানে মার্কেট কেন বন্ধ থাকবে। এ জন্য দোকান খোলার দাবিতে বুধবারও রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় বিক্ষোভ করেছেন ব্যবসায়ীরা। আগামী রোববার থেকে দোকান খুলে দিতে সরকারের নির্দেশনা চেয়েছেন তারা। দাবি না মানলে আরও কঠোর আন্দোলনেরও ঘোষণা দেওয়া হয়েছে ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে।
এদিকে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন বুধবার  সময়ের আলোকে বলেন, আমরা দোকান খোলার দাবি জানালেও সরকারের নির্দেশনার বাইরে কিছু করব না। দোকান খুলে দেওয়ার জন্য গত সোমবার প্রধানমন্ত্রী বরাবর ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। আশা করব, তিনি ব্যবসায়ীদের দুঃখ-কষ্ট অনুধাবন করে দোকান খোলার বিষয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত জানাবেন। আমরা এখন সরকারের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছি। তিনি আরও বলেন, ‘জনপ্রশাসন মন্ত্রী আজ (বুধবার) আমাকে ফোন দিয়েছিলেন। তিনি বলেছেন, বৃহস্পতিবার (আজ) সরকারের উচ্চপর্যায়ের একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। বৈঠক থেকে হয়তো কোনো সিদ্ধান্ত আসতে পারে। সুতরাং আমরাও সরকার কী সিদ্ধান্ত নেয়, সেটি দেখার অপেক্ষায় আছি। হুট করে কোনো সিদ্ধান্ত নেব না।’
বুধবার রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এসব চিত্র দেখা গেছে। ব্যবসায়ীদের দাবি, সরকার সবকিছু খোলা রেখেছে। কিন্তু দোকানপাট বন্ধ রেখেছে। দোকানগুলোতেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে খোলা রাখার ব্যবস্থা করতে হবে। এভাবে চলতে থাকলে ব্যবসায়ীরা না খেয়ে মারা যাবে।
ব্যবসায়ীরা বলছেন, সামনে রমজান, স্বাস্থ্যবিধি মেনে মার্কেট খুলে দেওয়া হলে তারা বিপুল অঙ্কের আর্থিক ক্ষতি থেকে রক্ষা পাবেন। গত বছর করোনাকালে এমনিতেই তারা ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তারা করোনা সংক্রমণ রোধে সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন বলে জানান। করোনার চেয়ে আমাদের জীবিকাই এখন মুখ্য বিষয়। বেশিরভাগ ব্যবসায়ী দোকান খোলার পক্ষে। তা না করলে আগামীতে আন্দোলন ঘোষণা করা হবে।
ব্যবসায়ী নেতারা বলছেন, চলমান পরিস্থিতি মোকাবিলায় ব্যবসায়ীদের ধৈর্য ধরতে হবে। শিগগিরই আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে কীভাবে দোকান খোলা যায় এ বিষয়ে সরকারের সংশ্লিষ্টদের নিয়ে বৈঠকে বসব।
এদিকে চলমান লকডাউনে স্বল্পপ‌রিস‌রে হ‌লেও বুধবারও দোকান খোলার দাবিতে ব্যবসায়ীরা আন্দোলন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন। ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আ‌ন্দোলনে নেমেছেন কর্মচারীরাও। এ দাবিতে বুধবার রাজধানীর বসুন্ধরা ও ইস্টার্ন প্লাজা শপিং কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন এলাকার ব্যবসায়ীরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে মার্কেট খুলে দেওয়ার দাবিতে সকাল থেকেই ব্যবসায়ী ও কর্মচারীরা বিভিন্ন মার্কেটের সামনে সমবেত হতে থাকেন। এ সময় তারা ‘স্বাস্থ্যবিধি মানব, দোকানপাট খুলব’, ‘আমাদের দাবি মানতে হবে, দোকানপাট খুলতে হবে’, ‘গণপরিবহন যদি চলে, মার্কেট কেন বন্ধ থাকবে’ ইত্যাদি নানা সেøাগান দিয়ে তাদের দাবি জানাতে থাকেন।
সরেজমিন দেখা গেছে, বসুন্ধরা শপিং কমপ্লেক্সের সামনের সড়কে ব্যবসায়ী-কর্মচারীদের বাধার মুখে ক্ষণিকের জন্য যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পুলিশ এসে দ্রুত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং তাদের সড়ক অবরোধ থেকে নিবৃত্ত করে। এ সময় তারা সুশৃঙ্খলভাবে ব্যানার নিয়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। ইস্টার্ন প্লাজার সামনে, বঙ্গবাজার এলাকায় দোকান মা‌লিক ও কর্মচারীরা বি‌ক্ষোভ ও মানববন্ধন করেন। গাজীপুরে সকাল ৮টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত মার্কেট ও দোকানপাট খোলা রাখার দাবিতে মানববন্ধন করেছেন ব্যবসায়ী ও কর্মচারীরা।
নিউমার্কেট, গাউছিয়া, এলিফেন্ট রোডসহ বিভিন্ন মার্কেটের সামনে কর্মসূচি না থাকলেও অসংখ্য দোকান মালিক ও কর্মচারীদের দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। গাজীপুর মহানগরীর ব্যস্ততম চান্দনা চৌরাস্তা এলাকায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের পাশে শাপলা ম্যানশনসহ বিভিন্ন মার্কেটের কয়েকশ ব্যবসায়ী ও কর্মচারীরাও মানববন্ধনে অংশ নেন।
মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে অংশ নিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকাল ৮টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দোকান ও শপিংমল খোলা রাখার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে জোর দাবি জানান দোকান মালিক-কর্মচারীরা। তারা বলেন, দোকান চালাতে গিয়ে ব্যাংক ঋণ, এনজিও ঋণ, দোকান ভাড়া ও সিকিউরিটি, বাসাভাড়া, কর্মচারীদের বেতনসহ পরিবারের অন্যান্য ব্যয়ভার মেটানোর সক্ষমতা পুরোপুরি হারিয়ে ফেলেছেন। গত বছরের প্রথম দফার লকডাউন চলাকাল থেকে এখন পর্যন্ত তারা মানবেতর জীবনযাপন করছেন।
বক্তারা আরও বলেন, বছরের সবচেয়ে বেচাকেনা হয় ঈদকে ঘিরে। আর এই সময় যদি তারা দোকান খুলতে না পারেন, তা হলে আমাদের পথে বসা ছাড়া আর কোনো উপায় থাকবে না। দোকান খোলার ঘোষণা না এলে আগামী রোববার থেকে নিজ উদ্যোগে দোকান খুলে দেওয়ার পাশাপাশি তীব্র আন্দোলনেরও ঘোষণা দেন ব্যবসায়ীরা।









সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, নির্বাহী সম্পাদক: হারুন উর রশীদ, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]