ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা রোববার ১৬ মে ২০২১ ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮
ই-পেপার রোববার ১৬ মে ২০২১

রোজা অবস্থায় ড্রপ ব্যবহার
প্রকাশ: শনিবার, ১৭ এপ্রিল, ২০২১, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 29

আবু সাঈদ যুবায়ের
চোখের ড্রপ
চোখে বিভিন্ন সমস্যার কারণে ডাক্তার চোখে ড্রপ দেওয়ার পরামর্শ দেন। আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানের মতে, চোখ থেকে সরাসরি পাকস্থলীতে পৌঁছার কোনো পথ নেই। তবে চোখ থেকে নাক হয়ে গলায় কোনো কিছু পৌঁছে যেতে পারে এর সম্ভাবনা রয়েছে। চোখের ড্রপ ব্যবহারের বিষয়টি ফিকহের কিতাবে বর্ণিত চোখে সুরমা দেওয়ার সঙ্গে অনেকটাই মিলে যায়। রোজা অবস্থায় চোখে সুরমা ব্যবহার করা যাবে কি না এ বিষয়ে পূর্ববর্তী ফকিহগণের মধ্যে মতপার্থক্য রয়েছে।
হানাফি এবং শাফেঈ মাজহাবের মতে, রোজা অবস্থায় চোখে সুরমা ব্যবহার করলে রোজা নষ্ট হবে না। আর মালিকি এবং হাম্বলি মাজহাবের মতে, রোজা অবস্থায় চোখে সুরমা ব্যবহার করা যাবে না। হানাফি মাজহাবের দলিল হলো হজরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসÑ তিনি বলেন, রাসুল (সা.) রোজা অবস্থায় চোখে সুরমা ব্যবহার করেছেন। (ইবনে মাজা : ১৬৮৭)। তাই রোজা অবস্থায় চোখে ড্রপ ব্যবহার করা যাবে। যদিও এটি গলায় চলে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, তবে হাদিসে সরাসরি বিষয়টি থাকার কারণে ফকিহগণ এটিকে জায়েজ বলেছেন। আন্তর্জাতিক ফিকহ একাডেমি জিদ্দাহর সিদ্ধান্তও অনুরূপ। (মাজাল্লাতু মাজমাউল ফিকহিল
ইসলামী : সংখ্যা ১০)।
কানের ড্রপ
আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানের মতানুযায়ী কানে কোনো কিছু ব্যবহার করলে সেটি সরাসরি সাধারণত গলায় পৌঁছে না। পূর্ববর্তী ফকিহগণের অভিমত ছিল কানে কোনো কিছু ব্যবহার করলে তার মাধ্যমে রোজা ভেঙে যাবে। এ বিষয়ে চার মাজহাবই একমত। ইমাম কাসানি (রহ.) বলেছেন ‘যদি কানের মধ্যে তেল বা ভিন্ন কিছু ব্যবহার করে তারপর তা পেটে বা মাথায় পৌঁছে যায় তার মাধ্যমে রোজা ভেঙে যাবে।’ (বাদায়েউস সানায়ে : ২/৯৩)
নাকের ড্রপ
নাকে বিভিন্ন ধরনের সমস্যার কারণে ডাক্তার নাকে ড্রপ ব্যবহারের পরামর্শ দিয়ে থাকেন। আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞান প্রমাণ করেছে, নাকে কোনো ধরনের ড্রপ বা ওষুধ ব্যবহার করলে এটি সরাসরি পাকস্থলীতে পৌঁছা সম্ভব। এ কারণেই মুখে খাবার দেওয়া সম্ভব না হলে নাকে রাইস টিউব ব্যবহার করা হয়। যার মাধ্যমে রোগীকে খাবার খাওয়ানো হয়।
চার মাজহাবের ইমামরা এ বিষয়ে একমত যে, নাকে কোনো কিছু ব্যবহার করা হলে তাতে রোজা নষ্ট হয়ে যাবে। তাই রোজা অবস্থায় নাকে ড্রপ বা তেল ব্যবহার করা যাবে না। আল্লাহর রাসুল (সা.) হজরত লাকিত ইবনে সাবুরাহকে (রা.) বলেছিলেন, ‘তুমি অজু পরিপূর্ণ কর তোমার আঙুলগুলো খিলাল কর এবং নাকে ভালো করে পানি দাও। তবে হ্যাঁ, রোজাদার হলে নাকে পানি দিও না।’ (তিরমিজি : ৭৭৮)




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]