ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ৮ মে ২০২১ ২৪ বৈশাখ ১৪২৮
ই-পেপার শনিবার ৮ মে ২০২১

গোপালগঞ্জে বোরো ধানের ক্ষতি ৯০ কোটি টাকা
গোপালগঞ্জ সংবাদদাতা
প্রকাশ: বুধবার, ২১ এপ্রিল, ২০২১, ১২:০৪ পিএম আপডেট: ২১.০৪.২০২১ ২:২৫ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 82

গোপালগঞ্জের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া গরম বাতাসে চলতি বোরো মৌসুমে জেলার ৪১ হাজার কৃষকের ১০ হাজার ৭৫ হেক্টর জমির ধান গরম বাতাসে আক্রান্ত হয়ে ৯০ কোটি টাকার ধানের ক্ষতি হয়েছে। ইতোমধ্যে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকের তালিকা প্রস্তুত করে ক্ষয়-ক্ষতির পরিমান নির্ধারন ও দরিদ্র প্রান্তিক কৃষকদের প্রনোদনার জন্য তালিকা প্রস্তুতির কাজ শুরু করা হয়েছে। গোপালগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ ড. অরবিন্দু কুমার রায় এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। গত ৫ এপ্রিল রাতে ঝাড়ের পর আধা ঘন্টার গরম বাতাসে জেলা ৫টি উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে এ ক্ষতি হয়।

গোপালগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ ড. অরবিন্দু কুমার রায় জানিয়েছেন, গত ৫ এপ্রিল রাতে গোপালগঞ্জের উপর দিয়ে প্রায় আধা ঘন্টাব্যাপী বয়ে যায় গরম বাতাস। তখন ছিল ধানের ফ্লাওয়ারিং অবস্থা। এতে জেলার পাঁচ উপজেলার ৪১ হাজার কৃষকের ১০ হাজার ৭৫ হেক্টর জমির ধান গরম বাতাসে আক্রান্ত হয়। যা আবাদের শতকরা ৬ ভাগ ক্ষতি হয়েছে। যার বাজার মূল্য প্রায় ৯০ কোটি টাকা। 

তিনি আরো বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ ৪১ হাজার কৃষকের মধ্য থেকে ২২ হাজার ৬শ’ দরিদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের তালিকা প্রস্তুতির কাজ চলছে। তালিকা সম্পন্ন হলে সংশ্লিষ্ট বিভাগে আর্থিক প্রনোদনার জন্য পাঠানো হবে। সরকার মোবাইল ব্যাংকিং-এর মাধ্যমে কৃষকদের কাছে প্রণোদনার অর্থ পাঠাবেন।

প্রসঙ্গত, চলতি মাসের ৫ এপ্রিল রাতে জেলার টুঙ্গিপাড়া, কোটালীপাড়া, কাশিয়ানী, মুকসুদপুর ও সদর উপজেলার উপর দিয়ে গরম বাতাস প্রবাহিত হয়। এতে  জমির ধান সবুজ থেকে সাদা বর্ণ ধারন করে। এরপর গোপালগঞ্জ কৃষি বিভাগ বিষয়টি তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া ও পরামর্শের জন্য ফরিদপুরের ভাঙ্গায় অবস্থিত ধান গবেষণা ইনিষ্টিটিউটের (ব্রি) বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তাদের আহবান করেন। সে অনুযায়ী ৭ এপ্রিল ধান গবেষণা ইনিষ্টিটিউটের ভাঙ্গা (ব্রি) এর প্রধান বৈজ্ঞানীক কর্মকর্তা মো: একলাচুর রহমান, বাংলাদেশ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ফরিদপুর অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ মনোজিৎ কুমার মল্লিক, গোপালগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ ড. অরবিন্দ কুমার রায় ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শণ করেন।

তারা পরিদর্শন শেষে গরম বাতাসের কারনেই যেসব ধান কেবলমাত্র দুধ অবস্থায় বা ফ্লাওয়ারিং অবস্থায় ছিল সেসব ধানই ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বলে জানান। তারা কৃষকদেরকে তখন ধানের গোড়ায় পানি জমিয়ে রাখার পরামর্শ দিয়েছিলেন।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]