ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ৮ মে ২০২১ ২৪ বৈশাখ ১৪২৮
ই-পেপার শনিবার ৮ মে ২০২১

পাল্লেকেলেতে শান্ত-সৌরভ কীর্তিগাথা
প্রকাশ: শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২১, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 20

ষ ক্রীড়া প্রতিবেদক
যতটা গতিতে বল ব্যাটে আসবে বলে আশা করেছিলেন, ততটা গতিতে আসেনি। তাতেই টাইমিংয়ে গড়বড়। সোজা বোলারের হাতেই ক্যাচ তুলে দিলেন নামজুল হোসেন শান্ত, ততক্ষণে তার নামের পাশে জমা ১৬৩ রান। ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরিটাকে বেশ ভালোই ফুলিয়ে-ফেঁপিয়ে তুলেছিলেন তরুণ বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। তবে ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরিটাকে আরও বড় করার নজির বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের আছে। পাল্লেকেলে টেস্টে যার সঙ্গে লম্বা সময় ব্যাটিং করে একের পর এক রেকর্ড ভাঙা-গড়ায় মত্ত ছিলেন শান্ত, সেই মুমিনুল হক সৌরভই ২০১৩ সালে চট্টগ্রামে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে নিজের প্রথম সেঞ্চুরিটাকে টেনে নিয়ে গিয়েছিলেন ১৮১ পর্যন্ত।
এরপর একের পর এক টেস্টে সৌরভ ছড়িয়েছে মুমিনুলের ব্যাট। আরও ১০টি সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন, তবে প্রথম সেঞ্চুরির ইনিংসটাই এখন পর্যন্ত তার ক্যারিয়ারসেরা হয়ে আছে। বৃহস্পতিবার পাল্লেকেলেতে ক্যারিয়ারের ১১তম সেঞ্চুরি পেয়েছেন মুমিনুল, খেলেছেন ১২৭ রানের অনবদ্য ইনিংস। এটাও একদিক থেকে তার সেরা, দেশের বাইরে আগে যত টেস্ট খেলেছেন এই বাঁহাতি, এর কোনোটিতেই ৭৭ রানের থেকে বড় ইনিংস খেলা হয়নি তার। অর্থাৎ বিদেশের মাটিতে এই প্রথম সেঞ্চুরি পেলেন তিনি। তাতে অনাকাক্সিক্ষত একটি রেকর্ড থেকে মুছে গেছে মুমিনুলের নাম। বিদেশের মাটিতে কোনো সেঞ্চুরি না করেও সব থেকে বেশি সেঞ্চুরির বিশ^রেকর্ড এতদিন ছিল টাইগার দলপতির দখলে।
টেস্টে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সব থেকে বেশি গড় মুমিনুলের (৪২.৩৩)। দেশের মাটিতে তিনি অনেক বেশি সফল, গড়টাও অনেক (৫৬.২৯)। কিন্তু বিদেশে খেলতে গেলেই তিনি হয়ে যান অচেনা। পাল্লেকেলে টেস্টের আগে দেশের বাইরে খেলা ১৭ টেস্টে তার গড় ছিল মোটে ২২.৩০। বৃহস্পতিবার ১২৭ রানের ইনিংস খেলার পর সেটা বেড়ে হয়েছে ২৫.৩৮। এই গড়টাও মুমিনুলের নামের সঙ্গে বড্ড বেমানান। অথচ ২০১৩ সালে টেস্টে তার যাত্রা শুরু হয়েছিল বিদেশের মাটিতে, আরও নির্দিষ্ট করে বললে এই শ্রীলঙ্কাতেই। সেই সফরের দুই টেস্টেই হাফ সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন কিন্তু শুরুর এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে পারেননি তিনি।
সব মিলে দেশের বাইরে আগের ১৭ টেস্টের ৩৩ ইনিংসে ছয়টি হাফ সেঞ্চুরি ছিল মুমিনুলের। ১৮তম টেস্টে এসে তিনিই নিজেকে রাঙিয়েছেন সেঞ্চুরির রঙে। ২২৪ বলে সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন তিনি, এটিই তার ক্যারিয়ারের সব থেকে মন্থরতম সেঞ্চুরি। শেষতক ৩০৪ বল খেলে আউট হয়েছেন। ৪৩ টেস্টে এই প্রথম কোনো ইনিংসে তিনশর অধিক বল খেললেন তিনি। এই ইনিংস খেলার পথে শান্তর সঙ্গে গড়েছেন ২৪২ রানের জুটি। তৃতীয় উইকেটে দেশে এবং দেশের বাইরে টাইগারদের সেরা জুটি এটিই। দেশের বাইরে আগের সেরা ছিল জাভেদ ওমর আর মোহাম্মদ আশরাফুলের ১৩০, যেটি তারা পেশোয়ারে ২০০৩ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে গড়েছিলেন। সব মিলে এই উইকেটে আগের সেরা ২৩৬ রানের জুটিতেও ছিলেন মুমিনুল, এই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষেই ২০১৮ সালে চট্টগ্রামে সেই জুটির অপরজন ছিলেন মুশফিকুর রহিম।
জুটির আরও একটি রেকর্ড থেকে মুশফিকের নাম মুছে যেত, যদি আর পাঁচটি বল স্থায়ী হতো মুমিনুল-শান্ত জুটির। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২০১৩ সালে গলে ৫১৮ বল খেলে ২৬৭ রানের জুটি গড়েন মুশফিক আর মোহাম্মদ আশরাফুল। আগের দিনের ১৫০ রানের জুটিটাকে এদিন ২৪২ রান পর্যন্ত টেনে নিয়ে সব মিলে ৫১৪ বল খেলেছেন শান্ত আর মুমিনুল। টেস্টে বাংলাদেশের কোনো জুটির ৫০০ বল খেলার ঘটনা এই দুটোই। তবে রানের হিসাবে এই দুই জুটির অবস্থান যথাক্রমে তৃতীয় এবং পঞ্চম। ৩৫৯ রান নিয়ে সবার ওপরে মুশফিক-সাাকিব জুটি, যেটি তারা ২০১৭ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়েলিংটনে গড়েছিলেন। এর পরের স্থানে আছে তামিম আর ইমরুল কায়েসের ৩১২ রানের জুটি, খুলনায় ২০১৫ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে এই জুটি গড়েন তারা।








সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]