ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ৮ মে ২০২১ ২৪ বৈশাখ ১৪২৮
ই-পেপার শনিবার ৮ মে ২০২১

ময়মনসিংহে স্কুল কলেজে নেওয়া হচ্ছে অতিরিক্ত ফি
প্রকাশ: শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২১, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 15

ষ ময়মনসিংহ ব্যুরো
ময়মনসিংহে সরকারি নির্দেশনা না মেনে সরকারি-বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে নানা খাতে অতিরিক্ত সেশন ফি। সরকারি প্রতিষ্ঠান ময়মনসিংহ জিলা স্কুল শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ১৬টি খাতে ফি নেওয়া হয়েছে। ময়মনসিংহ জিলা স্কুল, মুসলিম বালিকা বিদ্যালয় ও কলেজসহ বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও অতিরিক্ত ফি নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। তবে জেলা প্রশাসন ও শিক্ষা বোর্ডের শীর্ষ কর্মকর্তারা বলছেন, অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগ প্রমাণিত হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
করোনা মহামারির কারণে প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় সরকারি-বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে টিউশন ফির সঙ্গে শুধু অত্যাবশ্যকীয় বেসরকারি কর্মচারী ও কম্পিউটার ফি আদায় করতে নির্দেশনা জারি করে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতর। কিন্তু ময়মনসিংহ জিলা স্কুলে নির্দেশনা না মেনে কৃষি, কমনরুম, সাংস্কৃতিক, নবীনবরণ, ছাপা, ক্রীড়া, আনুষঙ্গিকসহ ১৬টি খাতে প্রায় ১ হাজার টাকা করে অতিরিক্ত ফি আদায় করা হয়েছে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে। লকডাউনের মাঝেই ২০ এপ্রিলের মধ্যে শিউর ক্যাশে ফি পরিশোধ করতে হয় তাদের। এ ছাড়া নগরীর মুসলিম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজেও অতিরিক্ত ফি আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এতে ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা।
অভিভাবক জাকিয়া সুলতানা বলেন, এই করোনা মহামারিতে আমাদের আয়-রোজগার এমনিতেই কম এর মাঝে স্কুলে অতিরিক্ত ফি দেওয়া আমাদের পক্ষে কষ্টকর। ছাত্রী মাইমোনা ফারা বলেন, স্কুল থেকে যে টাকা চাওয়া হয়েছে করোনাকালে এ অতিরিক্ত টাকা আমাদের দেওয়ার সামর্থ্য নেই। এদিকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানরা বলছেন, নিয়ম মেনেই ফি আদায় করছেন তারা।
ময়মনসিংহ জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক মহসিনা বেগম বলেন, নিয়ম মেনেই আমরা ফি নিচ্ছি। স্কুলে ছাত্র নেই কিন্তু স্কুলটিকে টিকিয়ে রাখার জন্য এবং স্কুল পরিচর্যা করার জন্য কিছু কিছু ফি বাড়িয়ে নেওয়া হচ্ছে। মুসলিম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অধ্যক্ষ মো. আলাউদ্দিন বলেন, এক বছরের সেশন ফি বাবদ ২ হাজার ২শ টাকা এবং উন্নয়ন ফি বাবদ ৩ হাজার টাকাসহ সর্বমোট ৫ হাজার ২শ টাকা নেওয়া হচ্ছে।
ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসক মো. এনামুল হক বলেন, কোনো প্রতিষ্ঠানই অতিরিক্ত ফি আদায়ের সুযোগ নেই। বিষয়টি যেহেতু আমার নজরে আসছে আমি বিষয়টি নিয়ে খতিয়ে দেখব এবং অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগ প্রমাণিত হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. গাজী হাসান কামাল বলেন, কেন শিক্ষা বোর্ডের নির্দেশ উপেক্ষা করে তারা অতিরিক্ত ফি আদায় করছে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে এবং মন্ত্রণালয়কে অবহিত করা হবে। এদিকে ময়মনসিংহ নগরীর তিনটি প্রতিষ্ঠানসহ ১০-১২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অতিরিক্ত ফি নেওয়ার বিষয়ে শিক্ষা বোর্ডে অভিযোগ জমা পড়েছে বলে বোর্ড সূত্রে জানা গেছে।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]