ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা  বুধবার ১৬ জুন ২০২১ ১ আষাঢ় ১৪২৮
ই-পেপার  বুধবার ১৬ জুন ২০২১

সম্মানজনক শিক্ষা ক্যাডার প্রতিষ্ঠায় লড়াই করতে হবে : সংলাপে বক্তারা
সময়ের আলো অনলাইন
প্রকাশ: রোববার, ২৫ এপ্রিল, ২০২১, ৫:৩২ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 66

বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিসিএস ক্যাডার হচ্ছে শিক্ষা ক্যাডার। প্রায় সাড়ে ১৬ হাজার মেধাবী কর্মকর্তার সম্মিলন এই ক্যাডারে। শিক্ষা ক্যাডারে যোগ দিতে হলে আবশ্যিকভাবে সবার মাস্টার্স ডিগ্রি থাকতে হয়। প্রফেশনাল ক্যাডার ব্যতীত অন্যান্য সাধারণ ক্যাডারে পাস কোর্সে ডিগ্রি পাস করেও বিসিএস দিয়ে ক্যাডার কর্মকর্তা হওয়া যায়। কিন্তু সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারে মাস্টার্স পাস বাধ্যতামূলক। এত যোগ্যতাসম্পন্ন একটি ক্যাডারকে নানা ষড়যন্ত্র করে পিছিয়ে রাখা হয়েছে। এই ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে নবীন শিক্ষা ক্যাডার কর্মকর্তাদের জন্য একটি নিরাপদ এবং সম্মানজনক ক্যাডার প্রতিষ্ঠার জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই করতে হবে।

সম্প্রতি অনুষ্ঠিত এক অনলাইনে সংলাপে অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তারা। ‘বিদ্যমান সমস্যা থেকে উত্তরণের উপায় এবং ভবিষ্যৎ ভাবনা’ শীর্ষক এই সংলাপের আয়োজন করে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি।

সংলাপ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির সদস্য সচিব প্রফেসর মো. শাহেদুল খবির চৌধুরী। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের উপপরিচালক সৈয়দ মইনুল হাসান।

মো. শাহেদুল খবির চৌধুরী তার বক্তব্যের শুরুতে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন। একটি জাতি গঠনের মৌলিক উপাদান এবং শক্তি হিসেবে বঙ্গবন্ধু শিক্ষাকে সব কিছুর উপরে রাখতে চেয়েছেন। এ খাতের সঠিক বিকাশ না হলে একটি জাতি অন্ধকারে নিমজ্জিত হবে। তিনি বলেন, শিক্ষা ক্যাডার বিগত দুই বছরে বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত হয়েছে এবং তার প্রায় সব কটিতেই মন্ত্রণালয়ের ধীরগতি, সদিচ্ছা এবং আন্তরিকতার অভাব রয়েছে। তবে তিনি দৃঢ়কন্ঠে বলেন, শিক্ষা ক্যাডারের বিরুদ্ধে যে চক্রান্ত চলছে, তা থেকে ক্যাডারকে অচিরেই মুক্ত করা হবে। পদোন্নতিসহ অন্যান্য সমস্যা সমাধানে অবস্থান কর্মসূচি ঘোষণা, কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের প্রতারণার বিরুদ্ধে কঠোর জবাব প্রদান, শিক্ষা ক্যাডারের দাবি আদায়ে জনমত সংগঠন, প্রিন্ট মিডিয়াতে প্রচার, ক্যাডার স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়ারও ইঙ্গিত দেন তিনি।

শিক্ষা ক্যাডারের সবচেয়ে নবীন ৩৮তম বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডার কর্মকর্তা হারুনুর রশিদ সংলাপে অংশ নিয়ে অন্যান্য ক্যাডারের মতো যোগদানের পরপরই বুনিয়াদি প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা দাবি জানান এবং আইসিটি ক্যাডারের জন্য নতুন পদ সৃজনের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরেন।

এরপর পর্যায়ক্রমে ১৬ থেকে ৩৮তম বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের প্রতিনিধি অনলাইন সংলাপে অংশ নিয়ে শিক্ষা ক্যাডারের বিভিন্ন সমস্যা এবং এগুলো সমাধানের উপায় নিয়েও আলোকপাত করেন। সব শেষে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির সাবেক দপ্তর সম্পাদক এবং বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সৈয়দ মইনুল হাসান, সমিতির সাবেক সহ-সভাপতি এবং বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মাসুদা বেগম বক্তব্য দেন।

অনলাইন ধারাবাহিক সংলাপে সারা বাংলাদেশ থেকে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারের বিভিন্ন ব্যাচের প্রতিনিধি, সমিতির আহবায়ক কমিটির নেতা, সমিতির কর্মকর্তা এবং শিক্ষা ক্যাডারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ শতাধিক ক্যাডার কর্মকর্তা অংশ নেন।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]