ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা  বুধবার ১৯ মে ২০২১ ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮
ই-পেপার  বুধবার ১৯ মে ২০২১

জয়রথে কিংস, আবাহনীর গোলোৎসব
প্রকাশ: বুধবার, ৫ মে, ২০২১, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 19

ষ ক্রীড়া প্রতিবেদক
হারতে ভুলে গেছে বসন্ধুরা কিংস, ম্যাচের পর ম্যাচ জয়রথে চেপে পার হচ্ছে দলটি। মঙ্গলবার পুলিশ এফসির বিপক্ষেও জয়ের ধারা অব্যাহত রেখেছে তারা। জিতেছে ২-০ গোলের ব্যবধানে। এই বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামেই দিনের প্রথম ম্যাচে গোলোৎসব করেছে আবাহনী। দ্বিতীয় পর্বের শুরুতেই হোঁচট খাওয়ার হতাশা ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটি কিছুটা হলেও ভুলেছে ব্রাদার্স ইউনিয়নের বিপক্ষে পাওয়া ৫-২ গোলের জয়ে।
এদিন শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ফুটবলের পসরা মেলে ধরে আবাহনী। রেকর্ড ছয়বারের চ্যাম্পিয়নরা সারাক্ষণই ব্যতিব্যস্ত রাখে ব্রাদার্সের রক্ষণভাগকে। দারুণ পারফরম্যান্স দেখিয়েছেন মধ্যবর্তী দলবদলে আবাহনীতে ফিরে আসা সানডে সিজোবা। অষ্টম মিনিটেই গোল পেতে পারতেন তিনি। সতীর্থের বাড়ানো ক্রসে হেড নিয়েছিলেন নাইজেরিয়ান এই ফরোয়ার্ড, কিন্তু বল রুখে দেন ব্রাদার্স গোলরক্ষক জাফর সরদার। মিনিট দশেক পর আরও একটি সুযোগ নষ্ট করেন তিনি। তবে ২২তম মিনিটের মাথায় আর কোনো ভুল করেননি সানডে, দারুণ এক গোলে লিড এনে দেন আবাহনীকে।
ব্রাদার্সের সীমানায় জটলার মধ্যে ব্যাক হেড করেন আবাহনীর হাইতিয়ান ফরোয়ার্ড কেরভেন্স ফিলস বেলফোর্ট। বল পেয়ে যান বক্সে অরক্ষিত থাকা সানডে। বিন্দুমাত্র দেরি না করে বল জালে জড়িয়ে দিয়ে সতীর্থদের সঙ্গে উল্লাসে মেতে ওঠেন তিনি। ৪০ মিনিটের মাথায় আবার উল্লাস তাদের। রায়হান হাসানের লম্বা থ্রোতে উড়ে আসা বলে ব্যাক হেড করেন আফগান ডিফেন্ডার মাসিহ সাইঘানি। পেছন থেকে দৌড়ে এসে সেই বলে মাথা ছুঁইয়ে স্কোরলাইন ২-০ করেন আরেক ডিফেন্ডার নাসিরউদ্দিন চৌধুরী। বিরতিতে যাওয়ার আগে জুয়েল রানার গোলে ব্যবধান আরও বাড়িয়ে নেয় আবাহনী।
ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার রাফায়েল অগাস্তো দা সিলভার কর্নার কিকে হেড নেন বক্সের ভেতরে দাঁড়ানো বেলফোর্ট। দারুণ দক্ষতায় বল রুখে দিলেও শেষরক্ষা করতে পারেননি ব্রাদার্স গোলরক্ষক জাফর। তার হাত ফসকে বেরিয়ে যাওয়া বল আলতো টোকায় জালে জড়িয়ে দেন জুয়েল। বিরতির পর স্কোরলাইন ৪-০ করেন বেলফোর্ট নিজেই। ৬২ মিনিটে সানডের বাড়ানো বলে দুর্দান্ত এক শট নেন হাইতির এই ফরোয়ার্ড। বল জড়ায় গোপীবাগের দলটির জালে, গোলরক্ষক জাফরের কিছুই করার ছিল না। বেলফোর্টের ওই গোলেই ম্যাচটা মূলত শেষ হয়ে যায় ব্রাদার্সের। এরপরও চেষ্টা করে গেছে দলটি।
আওয়ালা মাগালানের দারুণ শটে ৭৭ মিনিটে একটি গোল শোধও দেয় ব্রাদার্স। চার মিনিট বাদে রুবেল মিয়ার গোলে আবাহনী ফের ব্যবধান বাড়ানোর পর এই ফরোয়ার্ডই ইনজুরি সময়ে পেনাল্টি থেকে দ্বিতীয় গোল উপহার দেন ব্রাদার্সকে। কিন্তু তার এই গোল দুটো কেবল সান্ত্বনার হয়েই থেকেছে ব্রাদার্সের জন্য। এই হারে ৫ পয়েন্ট নিয়ে ১২তম স্থানেই থাকতে হচ্ছে ব্রাদার্সকে। তাদের সমান ১৪ ম্যাচে ২৯ পয়েন্ট নিয়ে তিনে আবাহনী। সমান ম্যাচে ৪০ পয়েন্ট নিয়ে যথারীতি শীর্ষে বসুন্ধরা কিংস, এদিন তারা হারিয়েছে পুলিশ এফসিকে।
আগের ম্যাচে আবাহনীকে ২-২ গোলে রুখে দিয়েছিল পুলিশ, তারা এদিনও কিংসের সঙ্গে দারুণভাবে লড়াই করেছে। প্রথমার্ধে শিরোপা প্রত্যাশীদের বেঁধে রাখে তারা। কিন্তু খেই হারায় দ্বিতীয়ার্ধে। গোলশূন্য প্রথমার্ধের পর দ্বিতীয়ার্ধে চার মিনিটের ব্যবধানে ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দেন তৌহিদুল আলম সবুজ আর তপু বর্মণ। সতীর্থ রবিনহোর ক্রসে বল পেয়ে দারুণ হেডে ৫৮ মিনিটে ম্যাচের গোলখরা কাটান সবুজ, ৬২ মিনিটে ফার্নান্দেজের কর্নার থেকে হেডেই স্কোরলাইন ২-০ করেন তারকা ডিফেন্ডার তপু। ব্যবধান আরও বাড়ানোর সুযোগ ছিল কিংসের, কিন্তু এদিন পেনাল্টি থেকে গোল করতে পারেননি রবিনহো। সেটা নিয়ে কিংস শিবিরে খুব বেশি আক্ষেপ থাকার কথা নয়। কারণ সবুজ আর তপুর গোলেই চলতি লিগে কিংসের ১৩তম জয়ের আনুষ্ঠানিকতা সারা হয়ে যায়।
এই মৌসুমে কিংস এখনও অজেয়। অপরাজিত থেকে ফেডারেশন কাপ জয়ের পর লিগেও কোনো ম্যাচ হারেনি তারা। তাদের জিততে দেয়নি কেবল শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাব, ১৩ খেলায় ২৯ পয়েন্ট নিয়ে যারা আছে টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে।









সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]