ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা  বুধবার ১৬ জুন ২০২১ ১ আষাঢ় ১৪২৮
ই-পেপার  বুধবার ১৬ জুন ২০২১

সিরি’আতে জুভেন্টাসকে নিষিদ্ধের হুমকি
প্রকাশ: বুধবার, ১২ মে, ২০২১, ১২:০০ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 23

ক্রীড়া ডেস্ক
ইউরোপিয়ান সুপার লিগে নাম লিখিয়েছিল ইতালির শীর্ষ তিন ক্লাবÑ জুভেন্টাস, এসি মিলান ও ইন্টার মিলান। তবে চতুর্মুখী চাপে ইতোমধ্যে সরে দাঁড়িয়েছে মিলানের দুই ক্লাব। কিন্তু তুরিনের বুড়িরা এখনও অনড় তাদের অবস্থানে এবং নাম প্রত্যাহার করেনি ‘বিদ্রোহী’ লিগ থেকে। তাই আগামী মৌসুমে সিরি’আতে জুভেন্টাসকে নিষিদ্ধের হুমকি দিলেন ইতালিয়ান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের (এফআইজিসি) প্রধান গ্যাব্রিয়েলে গ্রাভিনা।
গত মাসে ১২টি ধনী ক্লাবের যৌথ বিবৃতির মাধ্যমে আত্মপ্রকাশ করে সুপার লিগ, যা বড়সড় ধাক্কাই দেয় ইউরোপিয়ান ফুটবলে। তাৎক্ষণিক বিদ্রোহী লিগের প্রতিষ্ঠাতা ১২ সদস্যকে নিষিদ্ধ করার হুমকি দেয় ফিফা এবং উয়েফা। সেই সঙ্গে চাপ বাড়ে ভক্ত এবং অংশীদারদের পক্ষ থেকেও। চতুর্মুখী চাপ সইতে না পেরে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে টুর্নামেন্ট থেকে সরে দাঁড়ায় ইংল্যান্ডের বিগ সিক্সÑ ম্যানসিটি, ম্যানইউ, চেলসি, আর্সেনাল, টটেনহাম এবং লিভারপুল।
কয়েক ঘণ্টা পর ইংলিশ ক্লাবগুলোর দেখানো পথেই হাঁটে এসি ও ইন্টার মিলান এবং সরে দাঁড়ায় স্পেনের অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। তারপরও সাজা পেতে হয়েছে তাদের। বিদ্রোহী লিখে নাম লেখানোয় ৯ ক্লাবকে জরিমানা করেছে উয়েফা এবং জানিয়ে দেয়, ক্লাবগুলো সঙ্গে নতুন করে চুক্তি করবে ইউরোপিয়ান ফুটবলের সবোচ্চ সংস্থা। তখনই উয়েফা প্রধান আলেকসান্দের চেফেরিন ইঙ্গিত দেন, বড় শাস্তি পেতে যাচ্ছে সুপার লিগে থাকা রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা এবং জুভেন্টাস।
চেফেরিনের ওমন ইঙ্গিতের বাস্তব প্রতিফলন গ্রাভিনার হুমকি। এফআইজিসি প্রধান সোজাসাপ্টা জানিয়ে দিলেন, ইতালির শীর্ষ প্রতিযোগিতা থেকে বাদ পড়ার শঙ্কায় জুভেন্টাস। তিনি বলেন, ‘নিয়মগুলো স্পষ্ট। যখন পরের মৌসুমের সময় আসবে তখনও যদি জুভেন্টাস সুপার লিগে থাকে, তারা সিরি’আরে অংশ নিতে পারবে না। আমি ভক্তদের জন্য দুঃখ প্রকাশ করব তবে নিয়ম নিয়মই এবং সেগুলো সবার জন্য প্রযোজ্য হবে।’
এ নিয়ে সন্দেহ নেই যে জুভেন্টাসহীন সিরি’আ হারাবে জৌলুস। তাই গ্রাভিনাও চান না এমন কিছু। তাই তিনি আশা রাখছেন, দ্রুতই মিলবে সমাধান এবং প্রয়োজনে মধ্যস্থতা করার চেষ্টাও করবেন। একটি রেডিওকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে গ্রাভিনা বলেন, ‘নিয়মগুলো সহজ, যা অলিম্পিক সনদ দ্বারা নিশ্চিত করা হয় এবং পরবর্তীতে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ফেডারেশনগুলোকে অবগত করা হয়। এগুলো স্পষ্ট নীতি, যা খেলাধুলা পরিচালনার জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।’
এফআইজিসি প্রধান যোগ করেন, ‘আমি মনে করি, এই বিরোধটি যত দ্রুত সম্ভব সমাধান করা যেতে পারে। উয়েফা এবং তিন ক্লাবের মধ্যে এই যুদ্ধে আমরা সবাই কিছুটা ক্লান্ত। আমি আশা করি যে জুভেন্টাস এবং উয়েফার মধ্যে মধ্যস্থতা করতে সক্ষম হব। আন্তর্জাতিক ফুটবল, ইতালিয়ান ফুটবল, জুভেন্টাসের পক্ষের এটি ভালো নয়। আমরা ইতোমধ্যে বলেছি যে ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন নিয়মগুলোকে সম্মান করে। সুতরাং ফেডারেশন এবং উয়েফার নিয়মগুলো না মানলে আমাদের চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ না নেওয়ার পূর্বাভাস দেয়।’





গ্রাভিনা কোনো কিছু না লুকিয়ে ভালোভাবেই খোলাশা করেছে ইতালিয়ান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের সিদ্ধান্ত। এখন সব কিছুই জুভেন্টাসের হাতে। তুরিনের বুড়িরা যদি এখন নমনীয় না হয়, তবে কঠিন সাজাই পাবে তারা। কারণ সুপার লিগে থাকলে আগামী মৌসুমে কেবল সিরি’আতে নয়, উয়েফার সব প্রতিযোগিতায়ও নিষিদ্ধ হবে ইতালিয়ান জায়ান্টরা। আর তাদের কপালে এমন কিছু জুটলে শেষতক ধ্বংসের দিকেই এগিয়ে যাবে ক্লাবটি। তাই এখন দেখার অপেক্ষা, গ্রাভিনার হুমকি পর কী সিদ্ধান্ত নেয় জুভেন্টাস।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]