ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ১৭ জুন ২০২১ ৩ আষাঢ় ১৪২৮
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ১৭ জুন ২০২১

গ্যাং-গ্রুপ বন্ধে কী করবেন
মোহাম্মদ নূরুল হক
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১০ জুন, ২০২১, ১১:৫১ এএম আপডেট: ১০.০৬.২০২১ ১২:০১ পিএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 522

সামাজিক অবক্ষয় শুরু হলে তার ছোবল থেকে কিশোর-বুড়ো কেউ-ই রেহাই পায় না। উপরন্তু সেসব ‘সামাজিক ব্যাধি’ কিশোর মনে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। এতে তারা জড়িয়ে পড়ে ঝগড়াঝাঁটি থেকে শুরু করে হত্যাকাণ্ডের মতো ভয়াল কর্মকাণ্ডে। আর এসব অপরাধ দমনে প্রশাসনকে সাধারণত আইনি ব্যবস্থা নিতে তৎপর হতে দেখা যায়। কিন্তু সব ধরনের অপরাধ কি আইন প্রয়োগের মাধ্যমে দমন সম্ভব?

প্রশ্ন করার সঙ্গত কারণ রয়েছে। শিশু-কিশোররা আইন জানে না। তাই যা জানে না, তা মানা-না মানার দায়ও তাদের ওপর বর্তানোর কথা নয়। কিন্তু আইন না জেনেও বিশেষ সময় তাদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হয়। সমাজ-রাষ্ট্র তাদের দোষারোপ করে। ফলে একসময় না বুঝে বেআইনি-অনৈতিক পথে তারা পা বাড়ায়, ‘দুনিয়াদারি’ বুঝে ওঠার আগেই তারা সেই অপরাধ জগতের স্থায়ী বাসিন্দা হয়ে যায়। অথচ এই পরিণতির জন্য তাদের পরিবার-সমাজ-রাষ্ট্র যতটা দায়ী, ততটা তারা মোটেও নয়। এ ছাড়া তাদের এসব কর্মকাণ্ডকে অপরাধ বিবেচনা করে দণ্ড দিলেই তারা শুধরে যাবে, এমনটা ভাবার যৌক্তিক কারণ নেই। কারণ যে কাজ বড়দের জন্য অপরাধ, তা কিশোরদের ক্ষেত্রে ভুল মাত্র। অর্থাৎ কিশোররা জেনে-বুঝে এ ধরনের কাজ করে না। তারা যা করে, তা ভুল। সঙ্গদোষ ও ভালো পরিবেশের অভাবে তারা ভুল পথে যায়।

যেসব কারণে তারা অপরাধে জড়িয়ে পড়ে, তার অন্যতম পারিবারিক বন্ধন-পরিবেশের অভাব। এরপর রয়েছে সাহচর্য, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও আত্মীয়স্বজনের ব্যবহার। মনোবিজ্ঞানীরা বলছেন, পরিবারের মা-বাবার মধ্যে নিত্যকলহ লেগে থাকলে সন্তানের মনে তার প্রভাব পড়বে। মা-বাবার অশান্ত জীবন দেখে দেখে হতাশায় ভোগে। তারা সাধারণত মা-বাবার কলহ মেটাতে পারে না। বিপথগামী হয়ে পড়ে। এ ছাড়া প্রতিবেশী ও আত্মীয়স্বজনের দুর্ব্যবহার, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক ও সহপাঠীদের বিরূপ আচরণও তাদের মনে রেখাপাত করে। ফলে একসময় সেই আচরণে অভ্যস্ত হয়ে ওঠে।

পরিবার থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পর্যন্ত, সমাজের চারদিকে যা কিছু ঘটে, তারই অনুকরণ করে কিশোররা। ফলে যে শিশু-কিশোরের পরিবার থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পর্যন্ত নিত্য বিবাদ-কলহ লেগে থাকে, সে স্বভাবতই বখে যায়। বড়রা যা করে, তা প্রথমে অনুকরণ করে। পরে সেই কাজ অভ্যাসে পর্যবসিত হয়। সমাজের একাধিক কিশোর যখন একই ধরনের আচরণে অভ্যস্ত হয়ে পড়ে, তখন তাদের মধ্যে এক ধরনের ঐক্য তৈরি হয়। তারা নিজেদের স্বগোত্রীয় ভাবতে থাকে। এভাবে তাদের মধ্যে হিরোইজম কাজ করে। অপেক্ষাকৃত দুর্বল, নিজের চেয়ে কম বয়সি ও সমবয়সিদের মধ্যে নিজের আধিপত্য বিস্তারে তারা মরিয়া হয়ে ওঠে।

পুলিশ সদর দফতর ও গোয়েন্দা সূত্রের বরাত দিয়ে দৈনিক সময়ের আলোর ৯ জুন প্রকাশিত ‘গ্যাং গ্রুপে কেন তারা’ শীর্ষক এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সারা দেশে গ্যাং গ্রুপের সদস্য প্রায় ৬ হাজার। ২০১৭ সাল থেকে এই পর্যন্ত প্রায় ৩০০ জনকে আটক করা হয়েছে। এই চিত্রই বলে দিচ্ছে, কিশোর অপরাধ কতটা ভয়াবহ হয়ে উঠছে।

কিন্তু এই ‘কিশোর গ্যাং’ কালচার বন্ধের উপায় কী? এই প্রশ্নের জবাবে মোটা দাগে কয়েকটি পদক্ষেপের কথা বলা যেতে পারে। এগুলো হলো : ক) পারিবারিক স্নেহ-মমতা। খ) খেলাধুলার সঙ্গী নির্বাচনের সতর্কতা। গ) শিক্ষায় আনন্দজনক পরিবেশ তৈরি। ঘ) গণিতসহ বিভিন্ন পাঠ্যবইয়ে যুদ্ধের নামে হত্যাকাণ্ডের মাহাত্ম্য বর্ণনা বন্ধ করা। ঘ) মানসিক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়া ও কাউন্সেলিং করা। ঙ) সামাজিক আন্দোলন।

আগেই বলা হয়েছে, পারিবারিক কলহ কিশোরদের বিপথগামী করে তোলে। তাই শিশু-কিশোরদের স্বাভাবিক জীবনযাপনে অভ্যস্ত করে তুলতে হবে, পারিবারিক শান্তি-স্নেহমমতার চর্চা জরুরি। পরিবার থেকেই ভালোবাসার পাঠ গ্রহণ করলে তাদের মন হবে কোমল। মায়া-মমতায় তারা হয়ে উঠবে অভ্যস্ত। বাইরের জগতে গিয়ে আর হিংস্র হয়ে উঠতে পারবে না।

অভিভাবকদের নজর রাখতে হবে সন্তানরা কার সঙ্গে কোথায় মিশছে। তাদের আচরণে দিনে দিনে কোনো পরিবর্তন আসছে কি না। এসব বিষয়ের ওপর বাবা-মায়ের ‘কোমল নজরদারি’ থাকতে হবে। তাহলে হঠাৎ খেয়ালের বশে সন্তান কুসঙ্গে যেতে চাইলেও ‘কোমল অনুশাসনের’ কারণে ফিরে আসবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পরিবেশ শিশুমনে প্রভাব ফেলে সবচেয়ে বেশি। কারণ দিনের সবচেয়ে বেশি সময় তারা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কাটায়। সেখানের পরিবেশ চরিত্র গঠন ও মানসগঠনের অনুকূল না হলে শিশুর ভবিষ্যৎ জীবন প্রায় অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে পড়তে বাধ্য। তাই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষা ও জীবন গঠনের অনুকূল পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে রাষ্ট্র, শিক্ষক ও অভিভাবকদের।

ধর্মীয় শিক্ষা ও ইতিহাসের কোনো কোনো অধ্যায়ে প্রায় যোদ্ধাদের বীরত্বগাথা বর্ণনার ছলে হত্যাকাণ্ডের ওপর মাহাত্ম্য আরোপ করা হয়। এ ছাড়া গণিতেও ধর্মযুদ্ধে প্রতিপক্ষকে হত্যার হিসাব শেখানো হয়। এই মাহাত্ম্যসর্বস্ব ঐতিহাসিক ও ধর্মীয় কাহিনি পাঠে, গণিতচর্চায় শিশুমনে হিরোইজম বাসা বাঁধে। শিশুটিও বীরের মতো শত্রুর ওপর সশস্ত্র ঝাঁপিয়ে পড়ার স্বপ্ন দেখে। এই দুঃস্বপ্ন থেকে তাকে রক্ষার স্বার্থে শিশু-কিশোর উপযোগী পাঠ্যবইয়ে হত্যাকাণ্ড-সংবলিত ইতিহাস-গণিতচর্চা বাদ দিতে হবে। তার শৈশব- কৈশোরকে করে তুলতে হবে স্বপ্নময়, ভালোবাসাপূর্ণ। এরপরও তাদের সুপথে আনতে না পারলে প্রয়োজনে মানসিক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞের কাছে নিয়ে যেতে হবে। করাতে হবে কাউন্সেলিং।

তবে উল্লিখিত কাজগুলো করলেই তারা অপরাধ করবে না এই কথা শতভাগ জোর দিয়ে বলা যায় না। এই ধরনের অপরাধ বন্ধে সবচেয়ে জরুরি হলো, সামাজিক আন্দোলন। খুব বেশি আগের কথা নয়, মাত্র তিন দশক আগেও জন্মনিয়ন্ত্রণের ব্যাপারে পরিবার-পরিকল্পনা বিভাগের স্বাস্থ্যকর্মীরা গ্রামগঞ্জ-শহরে বাড়ি বাড়ি গিয়ে বুঝিয়েছেন। এরপর দুই দশক আগে অ্যাসিড ছুড়ে নারীদের ঝলসে দেওয়ার প্রবণতা বেড়েছিল আশঙ্কাজনক হারে। সেই অপরাধও এখন প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। এর পেছনে সামাজিক আন্দোলনের পাশাপাশি গণমাধ্যমে বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। তেমনিভাবে ‘গ্যাং-গ্রুপ’ বন্ধেও সর্বাত্মক সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। সরকারি-বেসরকারি টেলিভিশন-রেডিও চ্যানেলে ‘গ্যাং-গ্রুপ’ কালচারবিরোধী বার্তাসংবলিত নাটক-গান-সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান প্রচার করতে হবে। পাড়ায়-মহল্লায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সচেতনতা বাড়াতে হবে। সামাজিক আন্দোলনের মাধ্যমে শিশু-কিশোরদের সৃষ্টিশীলতা, খেলাধুলা ও মানবকল্যাণের দীক্ষা দিতে হবে। তাদের মনে, শুধু মানুষ নয়, সর্বপ্রাণের প্রতিও প্রেম জাগাতে হবে। সমাজের ছোট-বড় মঙ্গলজনক কাজে তাদের অংশগ্রহণ বাড়ানোর উদ্যোগ নিতে হবে। সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ যেন তাদের মনে বাসা বাঁধতে না পারে, সে ব্যাপারেও সবাইকে লক্ষ রাখতে হবে। তবেই ধীরে ধীরে কমে আসবে কিশোর অপরাধ। কমবে  ‘গ্যাং-গ্রুপ’ কালচারও।

লেখক : বার্তা সম্পাদক, সময়ের আলো

/এসএ/


আরও সংবাদ   বিষয়:  কিশোর গ্যাং  




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]