ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ১৭ জুন ২০২১ ৩ আষাঢ় ১৪২৮
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ১৭ জুন ২০২১

ইউরোপিয়ান ফুটবলের মহোৎসব আজ শুরু
রাজু আহাম্মেদ
প্রকাশ: শুক্রবার, ১১ জুন, ২০২১, ১০:৩৬ পিএম আপডেট: ১১.০৬.২০২১ ১২:১৫ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 24

অনেক বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে অবশেষে আজ থেকে শুরু হচ্ছে ইউরোপিয়ান ফুটবলের মহোৎসব ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ। করোনার কারণে এক বছর পিছিয়ে গেলেও নামে পরিবর্তন আসেনিÑ ‘ইউরো ২০২০’ই হচ্ছে ২০২১ সালে এসে। বাছাইপর্বের বাধা টপকে মূল আসরে নাম লেখানো ২৪ দল মহাদেশীয় ফুটবল শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনে লড়বে মাঠে, আগামী এক মাস সেই লড়াইয়ে, ফুটবল উন্মাদনা আর রোমাঞ্চে বুঁদ হয়ে থাকবে ফুটবলপ্রেমীরা। এই করোনাকালেও প্রিয় দলকে সমর্থন জানাতে, ফুটবলের আমেজে গা ভাসাতে গ্যালারিতে থাকবে দর্শক, যদিও তা সীমিত পরিসরে।
১৯৬০ সালে ফ্রান্সে যাত্রা করা ইউরোর ১৬তম আসর এটি। যেহেতু টুর্নামেন্টের ৬০ বছর পূর্তিতে ছিল এবারের আসর, এটিকে বিশেষ রূপ দেওয়ার ঘোষণা ৯ বছর আগেই দিয়ে রেখেছিল উয়েফা। নির্দিষ্ট কোনো এক দেশের মাটিতে নয়, ইউরোপের প্রতিটি প্রান্তকে ফুটবলের এই মহাযজ্ঞে শামিল করার পরিকল্পনা নিয়েছিল সংস্থাটি। ফুটবলকে আরও বেশি দর্শকদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার পরিকল্পনায় প্রাথমিকভাবে ইউরোপের ১২টি শহরের ১২টি ভেন্যুতে ৫১টি ম্যাচ হওয়ার কথা ছিল। ম্যাচ ৫১টিই থাকছে, তবে করোনার কারণে আয়োজক শহরের সংখ্যা অর্থাৎ ভেন্যুর সংখ্যা কমে গেছে একটি। ১১টি ভেন্যুতে হচ্ছে এবারের ইউরো।
করোনাকালে কঠিন পরিস্থিতিতেও মাঠে দর্শক উপস্থিতি নিশ্চিত করতে শেষ মুহূর্তে স্বাগতিক শহরের তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয় ডাবলিনকে। আয়ারল্যান্ডের ওই শহরের নির্ধারিত ম্যাচগুলো ভাগ করে দেওয়া হয়েছে লন্ডনের বিখ্যাত ওয়েম্বলি আর রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে। বদল আছে আরও একটি। শুরুতে স্পেনের স্বাগতিক শহরের তালিকায় ছিল বিলবাও। শেষবেলায় বেছে নেওয়া হয়েছে সেভিয়াকে। স্পেন তাদের গ্রুপপর্বের ম্যাচগুলো এই শহরেই খেলবে। একইভাবে রাশিয়া তাদের গ্রুপপর্বের ম্যাচগুলো খেলবে সেন্ট পিটার্সবার্গে।
২৪টি দল খেলবে ছয় গ্রুপে বিভক্ত হয়ে। গ্রুপের সেরা দুই দল উঠে যাবে নকআউট পর্বে। যে দলটি তৃতীয় হবে, তাদেরও সুযোগ থাকছে। তবে ছয় গ্রুপে তৃতীয় হওয়া দলগুলোর সেরা চারটিই কেবল নকআউট পর্বের টিকেট পাবে। অর্থাৎ নকআউট পর্ব হবে ১৬ দলের, যে পর্বের খেলা শুরু হবে ২৬ জুন। কোয়ার্টার ফাইনাল হবে ২ আর ৩ জুলাই, সেমিফাইনাল ৬ ও ৭ জুলাই। ১১ জুলাই লন্ডনের ওয়েম্বলিতে হবে ফাইনাল, সেদিনই জানা যাবে শিরোপা উঠছে কোন দলের হাতে। সম্ভাবনায় এগিয়ে বর্তমান বিশ^চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স, ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর পর্তুগালও।
সর্বোচ্চ তিনবারের চ্যাম্পিয়ন জার্মানি আর স্পেন, সময়টা ভালো না গেলেও তাদের পিছিয়ে রাখার উপায় নেই। উপায় নেই একবারের চ্যাম্পিয়ন ইতালি আর হল্যান্ডকেও পিছিয়ে রাখার। হ্যাজার্ড, ডি ব্রুয়েন, লুকাকু, কর্তোয়া, মের্টেন্সদের সোনালি প্রজন্মের হাত ধরে সাম্প্রতিক সময়ে দুর্দান্ত হয়ে উঠেছে বেলজিয়াম, ১৯৮০ সালে একবারই ফাইনাল খেলা দলটিও এবার শিরোপার অন্যতম দাবিদার। বরাবরের মতো ইংল্যান্ডও থাকছে হিসেবে, কিন্তু বড় আসরের চাপ সামলাতে না পেরে তালগোল পাকিয়ে ফেলার রোগটা তাদের পুরনো। ১৯৬৬ সালে বিশ^কাপ জয়ের পর প্রতিটি আন্তর্জাতিক আসরেই বড় স্বপ্ন নিয়ে যায় ইংল্যান্ড, ফেরে স্বপ্নভঙ্গের যাতনা সঙ্গী করে।
ইউরোয় কখনই ফাইনাল খেলা হয়নি ইংল্যান্ডের। তবে গ্যারেথ সাউথগেটের দারুণ কৌশল আর হ্যারি কেন, হেন্ডারসনদের দারুণ পারফরম্যান্সে সবশেষ বিশ^কাপে সেমিফাইনাল খেলেছে দলটি। তারপরও প্রশ্ন থাকছেÑ এবার চাপ সামলে আক্ষেপ ঘুচাতে পারবে ইংল্যান্ড? সতীর্থদের পূর্ণ সমর্থন পেয়ে পর্তুগালকে টানা দ্বিতীয় শিরোপা জেতাতে পারবেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো? করোনার ধাক্কা সামলে স্পেন দেখাতে পারবে নিজেদের সেরাটা? টোটাল ফুটবলের জনক হল্যান্ড পারবে নিজেদের সামর্থ্য প্রমাণ করতে? সবশেষ বিশ^কাপের মতো জ্বলে উঠতে পারবে ক্রোয়েশিয়া? এবার আইসল্যান্ডের মতো চমক হয়ে উঠবে কোন দল?
এমন অনেক প্রশ্ন নিয়েই আজ ইতালি আর তুরস্কের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে মাঠে গড়াবে ইউরো ২০২০। সব থেকে বড় প্রশ্ন হচ্ছেÑ এমবাপে, গ্রিজম্যান, পগবা, দেম্বেলে, কান্তেদের ফ্রান্স কি পারবে ইতিহাস গড়তে? পরপর বিশ^কাপ আর ইউরো জয়ের ডাবলÑ জার্মানি, স্পেন আর ইতালির মতো ফ্রান্সও কীর্তিটা গড়ে দেখিয়েছে ১৯৯৮ সালে বিশ^কাপ আর ২০০০ সালে ইউরো জিতে। কিন্তু কোনো দলই দুবার এই কীর্তি গড়তে পারেনি। ২০১৮ বিশ^কাপ জেতা দিদিয়ের দেশমের ফ্রান্সের সামনে এবার দারুণ সুযোগ সেটি করে দেখানোর। এমবাপে-গ্রিজম্যানরা পারবেন তো?




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]