ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ১৭ জুন ২০২১ ৩ আষাঢ় ১৪২৮
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ১৭ জুন ২০২১

রুইয়ের নতুন জাত সুবর্ণ
ময়মনসিংহ ব্যুরো
প্রকাশ: শুক্রবার, ১১ জুন, ২০২১, ১০:৪৭ পিএম আপডেট: ১১.০৬.২০২১ ১২:৫১ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 39

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা জেনেটিক গবেষণার মাধ্যমে রুই মাছের চতুর্থ প্রজন্মের একটি নতুন জাত উদ্ভাবন করেছেন। রুই মাছের নতুন এই জাতটি দ্রুত বর্ধনশীল, মূল জাতের চেয়ে ২০.১২ শতাংশ অধিক উৎপাদনশীল, খেতে সুস্বাদু এবং দেখতে লালচে ও আকর্ষণীয়। বৃহস্পতিবার ইনস্টিটিউটের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর প্রাক্কালে রুই মাছের চতুর্থ প্রজন্মের এ জাতটি উদ্ভাবিত হওয়ায় এই জাতটিকে ‘সুবর্ণ রুই’ হিসেবে নামকরণ করা হয়েছে। প্রধান অতিথি হিসেবে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব রওনক মাহমুদ বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠানিকভাবে এ জাতটি মৎস্য অধিদফতর ও কয়েকজন হ্যাচারি মালিকদের কাছে অবমুক্ত করেন।
‘সুবর্ণ রুই’ হিসেবে নামকরণের ফলে চাষি, হ্যাচারি মালিক ও উদ্যোক্তাদের কাছে নতুন এ জাতটি বিশেষ গুরুত্ব পাবে এবং মাঠ পর্যায়ে দ্রুত সম্প্রসারিত হবে বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন। এতে সামগ্রিকভাবে দেশে মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। এ উপলক্ষে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের ব্যবস্থাপনায় ইনস্টিটিউটের সম্মেলন কক্ষে ভার্চুয়াল সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহমুদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য অধিদফতরের মহাপরিচালক কাজী শামস আফরোজ।
উল্লেখ্য, স্বাদু পানির অন্যতম প্রধান মৎস্য প্রজাতি হচ্ছে রুই। বাংলাদেশে চাষযোগ্য মাছের মধ্যে রুই সবচেয়ে বাণিজ্যিক গুরুত্বসম্পন্ন মাছ। বর্তমানে মৎস্যচাষ প্রায় সম্পূর্ণভাবে হ্যাচারি উৎপাদিত পোনার ওপর নির্ভরশীল। কিন্তু হ্যাচারিতে উৎপাদিত কার্প জাতীয় মাছের কৌলিতাত্ত্বিক অবক্ষয় ও অন্তপ্রজননজনিত সমস্যা মৎস্যচাষ উন্নয়নে অন্যতম একটি অন্তরায়। এ সমস্যা থেকে উত্তরণের লক্ষ্যে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটে কৌলিতাত্ত্বিক গবেষণার মাধ্যমে রুই মাছের নতুন এই উন্নত জাত উদ্ভাবন হয়েছে। এক্ষেত্রে যমুনা, ব্রহ্মপুত্র ও হালদা নদীর প্রাকৃতিক উৎসের রুই মাছ ব্যবহার করা হয়েছে।
এ মাছের গায়ের রঙ লালচে হওয়ায় দেখতে অত্যন্ত আকর্ষণীয় ও অন্তপ্রজনন সমস্যামুক্ত।
বিএফআরআই মহাপরিচালক জানান, অধিক উৎপাদনশীল ও অন্তপ্রজনন সমস্যামুক্ত উন্নতজাতের চতুর্থ প্রজন্মের ‘সুবর্ণ রুই’ মাছ স্বাদুপানি ও আধা-লবণাক্ত পানির পুকুর, বিল, বাঁওড় এবং হাওরে চাষ করা যাবে। এতে সামগ্রিকভাবে দেশে প্রায় ৮০ হাজার কেজি মাছ অধিক উৎপাদিত হবে, যার বর্তমান বাজারমূল্য ২ কোটি ৪০ লাখ টাকায় দাঁড়াবে। তা ছাড়া, উন্নত এ জাতের রেণু পোনা হ্যাচারি থেকে সংগ্রহ করে নার্সারি ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে অনেকেই লাভবান হতে পারবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]