ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা বৃহস্পতিবার ১৭ জুন ২০২১ ৩ আষাঢ় ১৪২৮
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ১৭ জুন ২০২১

একসঙ্গে এত মসজিদ তৈরি করেনি কেউ
মহতী উদ্যোগের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে সাধুবাদ
প্রকাশ: শুক্রবার, ১১ জুন, ২০২১, ৮:৫২ এএম আপডেট: ১১.০৬.২০২১ ১১:০৪ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 54

মুজিব বর্ষ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি ৫০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। চলতি বছরের জুলাই থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে আরও ১০০টি মসজিদের কাজ শেষ হচ্ছে। এই প্রকল্পের আওতায় ২০২৩ সালের জুনের মধ্যে সারা দেশে ৫৬০টি মডেল মসজিদ তৈরি করা হবে । এর আগে বিশ্বে কোনো রাষ্ট্রনায়কের একসঙ্গে এতসংখ্যক মসজিদ নির্মাণের নজির নেই। দেশব্যাপী মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করে সারা দেশে শক্তিশালী ইসলামী প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো গড়ে তোলার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এটি একটি অনন্য উদ্যোগ বলে দেশের মানুষ মনে করছে। এসব মসজিদ থেকে সন্ত্রাস ও নারীর প্রতি সহিংসতা রোধ এবং সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম বিষয়ে জনসচেতনতা বাড়ানো হবে, যা ধর্মীয় বাতাবরণে আধুনিক শিক্ষাব্যবস্থা চালু করার সুযোগ সৃষ্টি করবে।

সরকারের তথ্য অনুযায়ী, অনুমোদিত প্রকল্পের নকশায়  ৪০ শতাংশ জায়গার ওপর জেলা পর্যায়ে চারতলা ও উপজেলার জন্য তিনতলা এবং উপকূলীয় এলাকায় চারতলা মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের নির্মাণকাজ চলমান রয়েছে। তিন ক্যাটাগরিতে মসজিদগুলো নির্মাণ হচ্ছে। জেলা শহর ও সিটি করপোরেশনে ‘এ’ ক্যাটাগরিতে ৬৯টি চারতলা মসজিদ হচ্ছে। সব উপজেলায় ‘বি’ ক্যাটাগরির ৪৭৫টি, এ ছাড়া ‘সি’ ক্যাটাগরির মসজিদ ১৬ উপকূলীয় এলাকায় নির্মাণ করা হচ্ছে। মসজিদগুলোয় ইসলামিক নানা বিষয়সহ প্রতিবছর ১ লাখ ৬৮ হাজার শিশুর প্রাথমিক শিক্ষার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। প্রকল্পের আওতায় ২ হাজার ২৪০ জন দেশি-বিদেশি অতিথির আবাসনের ব্যবস্থা থাকবে। মসজিদভিত্তিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রগুলোতে পবিত্র হজ পালনের জন্য ডিজিটাল নিবন্ধনের ব্যবস্থা থাকবে। উপকূলীয় এলাকায় আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে মসজিদগুলোর নিচতলা ফাঁকা থাকবে, যাতে প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় লোকজন তাতে আশ্রয় নিতে পারে।

এসব মডেল মসজিদে নারী ও পুরুষদের পৃথক অজু ও নামাজ আদায়ের সুবিধা, প্রতিবন্ধী মুসল্লিদের টয়লেটসহ নামাজের পৃথক ব্যবস্থা, ইসলামিক বই বিক্রয় কেন্দ্র, ইসলামিক লাইব্রেরি, অটিজম কর্নার, ইমাম ট্রেনিং সেন্টার, ইসলামিক গবেষণা ও দীনি দাওয়াত কার্যক্রম, পবিত্র কোরআন হেফজখানা, শিশু ও গণশিক্ষার ব্যবস্থা, দেশি-বিদেশি পর্যটকদের আবাসন ও অতিথিশালা, লাশ গোসল ও কফিন বহনের ব্যবস্থা, ইমামের প্রশিক্ষণ, ইমাম-মুয়াজ্জিনের আবাসনসহ সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অফিসের ব্যবস্থা রয়েছে। অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা সংবলিত দৃষ্টিনন্দন প্রতিটি মসজিদে একসঙ্গে ১২০০ মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবেন। 

উপজেলা ও উপকূলীয় এলাকার মডেল মসজিদে একত্রে ৯০০ মুসল্লির নামাজ আদায়ের ব্যবস্থা থাকবে। এসব মসজিদে সারা দেশে প্রতিদিন ৪ লাখ ৯৪ হাজার ২০০ জন পুরুষ ও ৩১ হাজার ৪০০ জন নারী একসঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারবেন। আদর্শ ও চরিত্রবান নাগরিক গঠনে এ মসজিদে সাংস্কৃতিক প্রশিক্ষণ, গবেষণা, সভা, কর্মশালা, ওয়াজ মাহফিল, সেমিনার, সিম্পোজিয়াম আয়োজনের ব্যবস্থা রয়েছে। এখানে লাইব্রেরি, গবেষণাসহ ইসলামী মূল্যবোধের চর্চা, প্রচার ও বিকাশের নানামুখী ব্যবস্থা রয়েছে। এর মাধ্যমে একটি দুর্নীতিমুক্ত, শোষণমুক্ত, ন্যায়ভিত্তিক স্বপ্নের সোনার বাংলা গঠনে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখার সুযোগ তৈরি হয়েছে। ২০১৪ সালের নির্বাচনি ইশতেহারে আওয়ামী লীগ ইসলামী মূল্যবোধের উন্নয়ন এবং ইসলামী সংস্কৃতি বিকাশের উদ্দেশ্যে প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। সেই প্রতিশ্রুতি এবার বাস্তবায়ন শুরু হলো।

 জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৫ সালের ২২ মার্চ ইসলামী শিক্ষা, গবেষণা ও কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। একজন ধর্মপ্রাণ মুসলমান হিসেবে বঙ্গবন্ধুর যে স্বপ্ন ছিল তা পূরণে তাঁর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা সারা দেশে মসজিদ উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে আজ অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন। শুধু বাংলাদেশেই নয়, বিশ^ ইতিহাসে নতুন এক মাইলফলক সৃষ্টি করলেন প্রধানমন্ত্রী।

আমরা প্রত্যাশা করছি, এ কার্যক্রমের আওতায় আগামী প্রজন্ম ধর্মীয় শিক্ষার সঙ্গে আধুনিক বিজ্ঞানমনস্ক শিক্ষার সুযোগ পাবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ মহতী উদ্যোগকে আমরা আন্তরিক সাধুবাদ জানাই।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]