ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা  বুধবার ১৬ জুন ২০২১ ২ আষাঢ় ১৪২৮
ই-পেপার  বুধবার ১৬ জুন ২০২১

অবশেষে আবাহনীকে হারাল মোহামেডান
প্রকাশ: শনিবার, ১২ জুন, ২০২১, ১১:২৪ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 14

ষ ক্রীড়া প্রতিবেদক
আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচÑ বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনে ধ্রুপদী লড়াই। কিন্তু ফুটবল কিংবা ক্রিকেটÑ সাম্প্রতিক সময়ে এই লড়াই জৌলুস হারিয়েছে অনেকটা। দায়টা মোহামেডানের। আবাহনী তাদের শক্তি ধরে রাখার চেষ্টা চালিয়ে গেলেও নানান জটিলতায় মোহামেডান তা পারেনি। দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর লড়াইটাও তাই একপেশে বনে গেছে। ক্রিকেটেই যেমন বিগত পাঁচ বছরে আবাহনী-মোহামেডানের ম্যাচ মানেই আবাহনীর জয় ছিল অবধারিত। ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে ২০১৬ সালের পর থেকে এমনটাই দেখা গেছে। তবে শুক্রবার অধিনায়ক সাকিব আল হাসান বিতর্কের জন্ম দেওয়ার দিনে সেই ধারায় ছেদ টেনেছে মোহামেডান। বৃষ্টিস্নাত ম্যাচে আবাহনীকে ৩১ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে তারা।
মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ১৪৫ রান তোলে মোহামেডান। তাড়া করতে নেমে বিপাকে পড়ে আবাহনী। তার ওপর ষষ্ঠ ওভারের খেলা শেষ হওয়ার এক বল আগে বৃষ্টি হানা দেয় ম্যাচে, আবাহনীর রান তখন ৩ উইকেটে ৩১। লম্বা সময় বন্ধ থাকার পর ফের যখন খেলা শুরু হয়, মুশফিকুর রহিমের দলকে ৯ ওভারে ৭৬ রানের লক্ষ্য বেঁধে দেওয়া হয়। অর্থাৎ জিততে হলে বাকি ৩.১ ওভারে ৪৫ রান করতে হতো আবাহনীকে। কিন্তু ১৩ রানের বেশি তুলতে পারেনি তারা। ফলে ৪৪ রানেই থামে আবাহনীর ইনিংস।
বিতর্কের জন্ম দিলেও ব্যাট হাতে মোহামেডানের সেরা পারফরমার ছিলেন সাকিব। ২৭ বলে ৩৭ রান করেন তিনি। ওপেনার পারভেজ হোসেন ইমন করেন ২৬ রান আর মাহমুদুল হাসান অপরাজিত থাকেন ৩০ রান করে। তবে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে লড়াইয়ে ম্যাচসেরার খেতাবটা এদের কারও হাতে ওঠেনি, ১৭ রানে ৩ উইকেট নিয়ে সেটি নিজের করে নিয়েছেন শুভাগত হোম। ৯ রানের মধ্যে আবাহনীর প্রথম তিন ব্যাটসম্যানকে সাজঘরের পথ দেখান এই অফস্পিনারই। তাতে আসরে দ্বিতীয় হারের স্বাদ পায় আবাহনী, টানা তিন হারের পর জয়ের মুখ দেখে মোহামেডান।
একই ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত দিনের প্রথম ম্যাচে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জকে উড়িয়ে দিয়েছে প্রাইম ব্যাংক। ১০১ রানের জয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে গেছে তারা। রনি তালুকদারের ৫৩ আর অধিনায়ক এনামুল হক বিজয়ের ৫৮ রানে ভর করে ১৬৯ রানের বড় পুঁজি গড়ে প্রাইম ব্যাংক। জবাব দিতে নেমে ৬৮ রানেই গুটিয়ে যায় রূপগঞ্জ। ১৫ রান খরচায় ৩ উইকেট নিয়ে দলটির ব্যাটিং লাইনআপে ধংসযজ্ঞ চালান নাহিদুল ইসলাম। ম্যাচসেরার খেতাবটাও উঠেছে তারই হাতে।
বিকেএসপির তিন নাম্বার মাঠে ব্রাদার্স ইউনিয়নকে হারিয়েছে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স। আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ম্যাচসেরা শেখ মেহেদীর ৪৭, ইয়াসির আলীর ৪৭ আর আরিফুল হকের অপরাজিত ৩৫ রানে ভর করে ১৭৩ রানের বড় পুঁজি গড়ে গাজী ক্রিকেটার্স। তাড়া করতে নেমে ১১.২ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ব্রাদার্স ৮৫ রান তোলার পর বৃষ্টিতে বন্ধ হয়ে যায় খেলা। পরে ডাকওয়ার্থ/লুইস মেথডে ১৫ রানে জয়ী ঘোষণা করা হয় গাজী ক্রিকেটার্সকে। বৃষ্টি বাগড়া দেয় বিকেএসপির চার নাম্বার মাঠে হওয়া পারটেক্স আর খেলাঘরের মধ্যকার ম্যাচেও। পারটেক্সের ১০৬ রান তাড়ায় খেলাঘর ৭ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে ৫০ রান তোলার পর বন্ধ হয়ে যায় ম্যাচ, এরপর আর খেলা মাঠে না গড়ানোয় ১৫ রানে জয়ী ঘোষণা করা হয় খেলাঘরকে।
এদিন ওল্ড ডিওএইচএসের বিপক্ষে ৭ উইকেটের অনায়াস জয় পেয়েছে শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাব। আগে ব্যাটিংয়ে নেমে মোহাম্মদ রাকিবের অপরাজিত ৫৬ রানে ভর করে ১১৯ রানের পুঁজি গড়ে ডিওএইচএস। তানজিদ হাসানের অপরাজিত ৭৯ রানের ইনিংসের সুবাদে ৭ বল হাতে রেখে অনায়াসেই জয়ের বন্দরে নোঙর ফেলে শাইনপুকুর। তবে জমাট লড়াই হয়েছে শেখ জামাল আর প্রাইম দোলেশ^র ম্যাচে। ইমরান উজ্জামানের ৬৫ আর শামীম হোসেনের অপরাজিত ৪৯ রানের সুবাদে ১৬৬ রানের চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ দাঁড় করায় দোলেশ^র। ম্যাচের একেবারে শেষ বলে ওই রান টপকে ৩ উইকেটের জয় তুলে নেয় শেখ জামাল। ৭২ রানে ৫ উইকেট হারানোর পরও দলটি জিতেছে তানবির হায়দারের ৪৫ আর ম্যাচসেরা জিয়াউর রহমানের ৫৩ রানের ইনিংসের সুবাদে।






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]