ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা রোববার ২৫ জুলাই ২০২১ ৯ শ্রাবণ ১৪২৮
ই-পেপার রোববার ২৫ জুলাই ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

বিশ্বকাপের আয়োজক হতে চায় বাংলাদেশ
প্রকাশ: বুধবার, ১৬ জুন, ২০২১, ১১:১৪ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 30

ক্রীড়া প্রতিবেদক
ক্রিকেটপাগল দেশ বাংলাদেশ। ভারত-পাকিস্তানের মতো লাল-সবুজ দেশেও ক্রিকেট নিয়ে উম্মাদনা আকাশচুম্বী। এখানে আইসিসির মেজর টুর্নামেন্ট আয়োজন মানেই মহোৎসব। ভক্তদের এমন উপলক্ষ উপহার দেওয়ার ভাবনা এখন ঘুরপাক খাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) হর্তাকর্তাদের মাথায়, যা মঙ্গলবার পরিষ্কার হলো নাজমুল হাসান পাপনের বক্তব্যে। বোর্ড সভাপতি জানালেন, বিশ^কাপের আয়োজক হতে চায় বাংলাদেশ।
তবে চাইলেই হবে না, থাকতে হবে ইভেন্ট আয়োজনের সক্ষমতা। এদিক থেকে পিছিয়ে লাল-সবুজ দেশ। কীভাবে? ওয়ানডে বিশ^কাপের আয়োজক হতে হলে থাকতে হবে কমপক্ষে ১০টি মানসম্মত স্টেডিয়াম এবং টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপের জন্য লাগবে ৮টি। অথচ যাবতীয় সুবিধাসহ বাংলাদেশে ভালো মানের স্টেডিয়াম বলতে তিনটিÑ মিরপুরের শেরেবাংলা স্টেডিয়াম, চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়াম এবং সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম।
মানসম্পন্ন তিন আন্তর্জাতিক ভেন্যু থাকায় কেবল চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি আয়োজনে সক্ষম বিসিবি। এই সুযোগটা হাতছাড়া করতে চান না পাপন। তিনি জানালেন, মিনি বিশ^কাপ খ্যাত আইসিসির এই ইভেন্ট এককভাবে আয়োজনের জন্য বিড করবেন তারা। তবে মূল বিশ^কাপ (ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি) আয়োজনের হালও ছাড়ছেন না তিনি। এককভাবে না হোক, যৌথভাবে মেগা ইভেন্টের আয়োজক হতে এশিয়ার অন্য ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে আলাপচারিতার বিষয়টিও তুলে ধরেছেন বিসিবি সভাপতি।
এদিন বিকালে শুরু হয় বিসিবির সভা, যা শেষ করে রাত ৮টার পরে সংবাদ সম্মেলনে হাজির হন পাপন। আইসিসি টুর্নামেন্ট আয়োজনের প্রসঙ্গ সামনে এনে বোর্ড প্রধান তার বক্তব্য শুরু করেন এভাবে, ‘(বিশ^কাপের) আয়োজক হতে কিছু সমস্যা আছে। যেমন আইসিসি মেন্স ওয়ানডে বিশ^কাপ আয়োজন করতে ভালো মানের ১০টি ভেন্যু দরকার। এটা তো আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়। আমাদের তো নেই। যদি আমরা টি-টোয়েন্টিতে যাই, তবে ৮টি (স্টেডিয়াম)। এটাও আমাদের জন্য সম্ভব না।’
পাপন যোগ করেন, ‘আরেকটা আছে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি। এটাতে আমরা পারব। এটা আমাদের জন্য ঠিক আছে। সুতরাং আমরা ঠিক করেছি, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি একক আয়োজক হতে আমরা বিড করব। আর দুই বিশ^কাপের জন্যও আমরা বিড করব, তবে একা পারব না; যৌথভাবে করব। এজন্য এশিয়া অঞ্চলে, এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলে (এসিসি) থাকা বোর্ডগুলোর সঙ্গে আমরা কথা বলব। আমরা যদি একসঙ্গে দেই তা হলে আমাদের পাওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি।’
এসিসিতে থাকা শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান ও ভারত ক্রিকেট বোর্ডের কথা উল্লেখ করেন দেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থার সর্বোচ্চ অভিভাবক। ইতিবাচক ভাবনাকে বাস্তবতায় রূপ দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়ে খুব বেশি কালক্ষেপণ করতে চান পাপন। তার ভাষ্য ছিল ঠিক এমন, ‘প্রয়োজনে আমরা শ্রীলঙ্কার সঙ্গে কথা বলব। পাকিস্তান আছে, ভারত আছে। সবার সঙ্গেই কথা বলব। যেহেতু আমাদের হাতে সময় খুবই কম, তাই আমরা যাই কথা বলি না কেন, দুয়েকদিনের মধ্যে সেরে ফেলতে হবে।’
কয়েক সপ্তাহ আগে ২০২৪ থেকে ২০৩১ সাল পর্যন্ত ক্রিকেটীয় সূচি ঘোষণা করেছে আইসিসি। ২০২৫ ও ২০২৯ সালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ^ ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থা। এ ছাড়া ২০২৭ ও ২০৩১ সালে রয়েছে দুটি ওয়ানডে বিশ^কাপ। আইসিসির এই সূচি প্রকাশের পর থেকেই আয়োজক হওয়ার বিষয়টি নিয়ে ভাবছে পাপনের বোর্ড। পূর্বে যৌথ আয়োজক হওয়ার অভিজ্ঞতা রয়েছে বাংলাদেশ। ২০১১ বিশ^কাপে ভারত ও শ্রীলঙ্কার সঙ্গে আয়োজক হিসেবে ছিল লাল-সবুজের দেশও। অন্যদিকে ২০১৪ টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপের একক আয়োজক ছিল বাংলাদেশ।
আবারও দেশের ক্রীড়াঙ্গনে এমন বড় ইভেন্ট আয়োজন করতে চায় বিসিবি। যদি সফল হয় পাপনদের এমন প্রচেষ্টা তা হলে একদিকে ব্যাট-বলের লড়াইয়ে মাতবে দেশ এবং অন্যদিকে থাকবে মোটা অঙ্কের আর্থিক লাভের হাতছানিও।




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]