ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ ৯ শ্রাবণ ১৪২৮
ই-পেপার শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

এডিপি বাস্তবায়নে সবচেয়ে পিছিয়ে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ
প্রকাশ: বুধবার, ১৬ জুন, ২০২১, ১১:২৭ পিএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 22

নিজস্ব প্রতিবেদক
করোনাভাইরাস মহামারি পরিস্থিতিতেও বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আওতায় দেওয়া বরাদ্দ থেকে চলতি অর্থবছরের প্রথম ১১ মাসে মাত্র ৩১ দশমিক ৩৮ শতাংশ ব্যয় করতে পেরেছে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ। চলতি অর্থবছরে ৫৩টি প্রকল্পে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগে ১১ হাজার ৯৭৯ কোটি টাকা বরাদ্দ থাকলেও ব্যয় হয়েছে মাত্র ৩ হাজার ৭৫৯ কোটি টাকা। ২০২০-২১ অর্থবছরে সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (আরএডিপি) মোট আকার ২ লাখ ৯ হাজার ৭২ কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরের জুলাই থেকে মে মাস পর্যন্ত ১১ মাসে মোট খরচ হয়েছে ১ লাখ ২২ হাজার ১৩১ কোটি টাকা বা ৫৮ দশমিক ৩৬ শতাংশ। বৃহৎ বরাদ্দপ্রাপ্ত ১৫টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মধ্যে সবচেয়ে বেহাল স্বাস্থ্যসেবা বিভাগে। সবচেয়ে কম অগ্রগতি দেখা গেছে এই বিভাগে। স্বাস্থ্যসেবা বিভাগে এডিপি বাস্তবায়ন হয়েছে ৩১ দশমিক ৩৮ শতাংশ, টাকার অঙ্কে ৩ হাজার ৭৫৯ কোটি টাকা। ৫৩টি প্রকল্পে মোট বরাদ্দ ছিল ১১ হাজার ৯৭৯ কোটি টাকা। বাকি এক মাসে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগকে ৮২২০ কোটি টাকা খরচ করতে হবে। চলতি অর্থবছর শেষ হবে ৩০ জুন। এই সময়ে শতভাগ এডিপি বাস্তবায়ন করতে হলে খরচ করতে হবে ৮৭ হাজার ১৪১ কোটি টাকা। মঙ্গলবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ (আইএমইডি) থেকে এসব তথ্য জানা গেছে। সবশেষ প্রতিবেদন ওয়েবসাইটে আপলোড করেছে সংস্থাটি।
২০২০-২১ অর্থবছরের ১১ মাস অতিবাহিত হলেও স্বাস্থ্যসেবা বিভাগে ৮ হাজার ২২০ কোটি টাকা রয়ে গেছে। স্বাস্থ্যসেবা বিভাগে জুন মাসে প্রতিদিন ২৭৪ কোটি টাকা খরচ করতে পারলে এই বিভাগ কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবে।
আইএমইডি সূত্র জানায়, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ ছাড়াও এডিপি বাস্তবায়নের হারে হতাশা দেখা গেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে। ১১ মাসে এডিপি বাস্তবায়নের হার ৪৫ দশমিক ১২ শতাংশ, যা টাকার অঙ্কে ৪ হাজার ৮২০ কোটি টাকা। অথচ এই মন্ত্রণালয়ে মোট বরাদ্দ ছিল ১০ হাজার ৬৮৫ কোটি টাকা।
বৃহৎ বরাদ্দপ্রাপ্ত ১৫টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মধ্যে সবচেয়ে ভালো অগ্রগতি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের। ১১ মাসে মোট এডিপি বাস্তবায়নের হার ৭৪ দশমিক ৪৩ শতাংশ, টাকার অঙ্কে ৮ হাজার ১১৫ কোটি টাকা। এরপরেই সেতু বিভাগের মোট অগ্রগতি ৭১ শতাংশ, টাকার অঙ্কে ৩ হাজার ৩৬৩ কোটি টাকা।
তবে সার্বিকভাবে গত বছরের তুলনায় এডিপি বাস্তবায়ন হার কিছুটা বেশি হয়েছে। গত বছর এডিপি বাস্তবায়নের হার ছিল ৫৭ দশমিক ৩৭ শতাংশ, যা টাকার অঙ্কে ১ লাখ ১৫ হাজার ৪২১ কোটি টাকা। ২০১৯-২০ অর্থবছরে মোট এডিপি বরাদ্দ ছিল ২ লাখ ১১ হাজার ৯৯ কোটি টাকা।
আইএমইডি সূত্র জানায়, শুধু মে মাসে এডিপি বরাদ্দের ১৯ হাজার ৪০১ কোটি টাকা খরচ হয়েছে। করোনা সঙ্কটের কারণে এডিপি বাস্তবায়নে ধীরগতি দেখা গেছে। যেমন ২০১৮-১৯ অর্থবছরে মোট বরাদ্দ ছিল ১ লাখ ৭৬ হাজার ৬২০ কোটি টাকা। একই সময়ে এডিপি বাস্তবায়ন হার ছিল ৬৭ দশমিক ৯৭ শতাংশ, টাকার অঙ্কে ১ লাখ ২০ হাজার ৪২ কোটি টাকা।
২০১৬-১৭ অর্থবছরে মোট এডিপি বরাদ্দ ছিল ১ লাখ ৫৭ হাজার ৫৯৪ কোটি টাকা। মে মাস পর্যন্ত বাস্তবায়ন হার ছিল ৬২ শতাংশ, টাকার অঙ্কে ৯৮ হাজার ৯৭৮ কোটি টাকা।
২০১৬-১৭ অর্থবছরে মোট এডিপির আকার ছিল ১ লাখ ১৯ হাজার ২৯৬ কোটি টাকা। মে মাস পর্যন্ত বাস্তবায়ন হার ছিল ৬৪ শতাংশ, টাকার অঙ্কে ৭৭ হাজার ২০৪ কোটি টাকা। গত ৫ বছরে শতাংশের হারে এডিপি বাস্তবায়ন কম থাকলেও টাকার অঙ্কে বেশি বাস্তবায়ন হয়েছে।





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]