ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ ৯ শ্রাবণ ১৪২৮
ই-পেপার শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

অল কমিউনিটি ক্লাব
উচ্ছৃঙ্খলতার অভিযোগ পরীমণির বিরুদ্ধে
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন, ২০২১, ১০:৫৬ পিএম আপডেট: ১৭.০৬.২০২১ ১২:৩৯ এএম | প্রিন্ট সংস্করণ  Count : 30

আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমণির বিরুদ্ধে এবার গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাবে উচ্ছৃঙ্খলতা ও ভাঙচুরের অভিযোগ এনেছে কর্তৃপক্ষ। বুধবার রাতে ক্লাবের সভাপতি কেএম আলমগীর ইকবাল এই অভিযোগ এনে বলেছেন, গত ১৫টি গ্লাস, ৯টি অ্যাশট্রে এবং বেশকিছু হাফপ্লেট ছুড়ে মেরে ভেঙেছেন। ইতোমধ্যেই ক্লাবের রুলস অনুসারে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। যদিও অল কমিউনিটি ক্লাবের অভিযোগ প্রসঙ্গে পরীমণি বলেছেন, ‘এটা ফালতু অভিযোগ। এতদিন পরে কেন?’
অন্যদিকে বিভিন্ন গণমাধ্যমে বুধবার সন্ধ্যার পর অল কমিউনিটি ক্লাবের পক্ষ থেকে পরীমণির বিরুদ্ধে জিডি করার খবর প্রকাশ হলেও খবরটি মিথ্যা বলে জানান ডিএমপির গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) সুদীপ কুমার চক্রবর্তী।
তিনি সময়ের আলোকে বলেন, ওই রাতে পরীমণি ৯৯৯ নম্বরে কল করে আইনি সহায়তা চেয়েছিলেন। পুলিশ গিয়ে দুপক্ষের কথা শুনে সেখানে একটি ‘মিটমাট’ করে চলে আসে। এরপর বুধবার রাত ৮টা পর্যন্ত ওই ঘটনায় পরীমণি বা ক্লাব কর্তৃপক্ষ থানায় কোনো জিডি বা অভিযোগ করেননি।
গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাবের সভাপতি কেএম আলমগীর বলেন, ‘ক্লাবের একজন সদস্যের রেফারেন্সে গত ৭ জুন রাত সোয়া ১টার দিকে পরীমণিসহ তিনজন ক্লাবে আসেন। আমাদের ক্লাবে প্রবেশের ‘মেল’ ড্রেসকোড আছে। কিন্তু পরীমণির সঙ্গে আসা একজন ভদ্রলোক হাফপ্যান্ট ও স্যান্ডেল পরা ছিলেন। সঙ্গে আরও এক নারীও ছিলেন। পোশাকের বিষয়ে আমাদের সিকিউরিটিদের পক্ষ থেকে জানানো হলে তারা ক্ষিপ্ত হন। ঘটনাটি ক্লাবের ফুড অ্যান্ড বেভারেজের অ্যাডমিন এবং ডিরেক্টর বেরিয়ে যাওয়ার সময় দেখেন। তারা পরীমণিকে বলেছেন, আপনি তো ক্লাব রুল ভায়োলেট করেছেন। আপনি তো এমন করতে পারেন না। তখন ওনারা ক্ষিপ্ত হয়ে যান। ওনাদের আচার-আচরণ গ্রহণযোগ্য না হওয়ায় তাদের চলে যেতে বলা হয়। ওনারা যাচ্ছিলেন না দেখে ওই পরিচালকই ক্লাব থেকে চলে যান। তারপর যে সদস্য ওনাদের (পরীমণি) এনেছিলেন, উনিও তাদের চলে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। কিন্তু ওনারা যাচ্ছিলেন না দেখে, ওই সদস্য নিজেও চলে যান। তারপর ওনারা অকস্মাৎ ক্ষিপ্ত হয়ে যান এবং ১৫টি গ্লাস, ৯টি অ্যাশট্রে ও বেশকিছু হাফপ্লেট ছুড়ে মেরে ভেঙে ফেলেন। এরপর ওনারাই ৯৯৯ নম্বরে কল করে পুলিশ ডাকেন। গ্লাসসহ ওইসব ভাঙচুর দেখে পুলিশ তাদের জিজ্ঞেস করেÑ কেন কল করেছেন। ওনারা বলেন, আমাদের সঙ্গে এই হয়েছে সেই হয়েছে। পুলিশ সদস্যরাই বলেন যে, এরকম কিছু তো আমরা দেখছি না। পরে ঊর্ধ্বতনদের সঙ্গে কথা বলে পুলিশ চলে যায়।’
কেএম আলমগীর বলেন, ‘পরীমণিকে আমরা চিনতামও না। পরে শুনেছি তিনি নায়িকা পরীমণি। যে সদস্যের মাধমে তারা এসেছিলেন সেই সদস্যকে শোকজ করা হয়েছে। তার পরিপ্রেক্ষিতে তিনি ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন। ক্লাবের সুনামের বিষয়টি মাথায় রেখে আমরা এই মুহূর্তে কোনো আইনি ব্যবস্থা নিতে চাচ্ছি না। ক্লাবের রুলস অনুসারে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।’





সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]