ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ ৯ শ্রাবণ ১৪২৮
ই-পেপার শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

হল খোলার পক্ষে শিক্ষার্থীরা, নিষ্ক্রিয় ছাত্র সংগঠনগুলো
মানজুর হোছাইন মাহি
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন, ২০২১, ৯:১৩ এএম আপডেট: ১৭.০৬.২০২১ ৯:২০ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 33

পরীক্ষা নেওয়ার জন্য আবাসিক হল খুলে দেওয়ার দাবি জানিয়ে আসছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। দাবি আদায়ে বিভিন্ন সময়ে তাদের প্রতিবাদ-আন্দোলন গড়ে উঠলেও তা সফল হয়নি। এ জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংগঠনগুলোর নিষ্ক্রিয়তা ও ঐক্যের অভাবকে দায়ী করছেন তারা। সাধারণ শিক্ষার্থীরা মনে করছেন, ছাত্র সংগঠনগুলো ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন সফল করতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করলে দাবি আদায় হতো।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ২০২০ সালের ১০ ডিসেম্বর আবাসিক হল না খুলে পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এর প্রতিবাদ করে শিক্ষার্থী এবং ছাত্রলীগ, ছাত্রদল, প্রগতিশীল ছাত্রজোটসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ছাত্র সংগঠন আন্দোলন-প্রতিবাদ করে হল খুলেই পরীক্ষা নেওয়ার দাবি জানায়। কিন্তু এখনও হল না খুলে পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্তেই অটল বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী শামীম হোসেন বলেন, হল খুলে পরীক্ষা নেওয়ার আন্দোলনে ছাত্র সংগঠনগুলোর ভূমিকা বেশ হতাশাজনক। ছাত্র সংগঠনগুলোর মূল লক্ষ্যই যেখানে ছাত্রদের অধিকার নিয়ে কথা বলা, সেখানে তারা ব্যস্ত হয়ে পড়েছে ব্যানারে রাজনৈতিক দলের নাম লেখাতে। অথচ প্রতিটি দলই ছাত্রদের অধিকার রক্ষা করতে চরম ব্যর্থ হয়েছে। আইন বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ইদুল ফয়সাল বলেন, হল সমস্যার সমাধানসহ সাধারণ শিক্ষার্থীদের দাবি আদায়ে প্রয়োজন ছাত্র সংগঠনগুলোর ঐক্য। তাদের চাওয়া, ছাত্র সংগঠনগুলো শিক্ষার্থীদের কল্যাণে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করবে। তা হলে অদূর ভবিষ্যতে ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতির সহাবস্থানের সোনালি অতীত ফিরে আসবে বলে মনে করেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন বলেন, আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ সারা দেশে 

শিক্ষার্থীদের দাবি-দাওয়া আদায়ে সবসময়ই সোচ্চার। আবার অন্য ছাত্র সংগঠনগুলোও এক্ষেত্রে সবসময় ভূমিকা রাখছে। সবকিছু মিলিয়ে আমাদের অনুভূতি হলোÑ যদি বাংলাদেশের সব ছাত্র সংগঠন একসঙ্গে কাজ করে তা হলে অবশ্যই একটা ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে। তিনি বলেন, দেশবাসী ও ছাত্রসমাজের কল্যাণে যদি কেউ ঐক্যের আহ্বান জানায় তা হলে আমরা তা অবশ্যই বিবেচনা করব।

এ বিষয়ে ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর বলেন, ‘সরকারি ছাত্র সংগঠন’ ব্যতীত অন্য ছাত্র সংগঠনগুলো সবসময় সাধারণ শিক্ষার্থীদের দাবিতে একই কাতারে থাকে। কখনোবা একই ব্যানারে আন্দোলন করে। আলাদা আলাদা হয়েও কাজ করে। কিন্তু এক্ষেত্রে ছাত্রলীগের ভূমিকা অনেকটা সুবিধাবাদীদের মতো। তারা প্রথমে ছাত্রদের দাবি-দাওয়া নিয়ে কয়েকটা কথা বলে ছাত্রদের সিমপ্যাথি আদায় করে, তারপর সরকারের চাপিয়ে দেওয়া সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করে। তা সাধারণ শিক্ষার্থীদের বিপক্ষে যায়। এর বিরোধিতা করলে তারা শিক্ষার্থীদের ওপর আক্রমণ করে।

বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ বলেন, শুধু ছাত্র সংগঠনগুলো নিয়ে নয়, সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে নিয়ে যদি আন্দোলন করা যায় তা হলে হয়তো শিক্ষার্থীদের দাবি আদায়ের আন্দোলন সফল হবে। ঐক্য বিষয়ে তার ভাষ্য, শুধু ছাত্রলীগ নয়, আগে যারা ক্ষমতায় ছিল তাদের অনুসারী সংগঠন ছাত্রদের সঙ্গে কেমন আচরণ করেছে, সেটাও আমরা দেখেছি।

ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন এ প্রসঙ্গে বলেন, আমরা প্রগতিশীল ছাত্রজোটসহ সব সংগঠনকে অবশ্যই স্বাগত জানাই। কিন্তু আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, আমাদের প্রতি শিক্ষার্থীদের আস্থা রয়েছে। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ শিক্ষার্থীদের এই আস্থার প্রতিদান সবসময় দিয়ে আসছে

/এমএইচ/




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]