ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ ৯ শ্রাবণ ১৪২৮
ই-পেপার শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

মা-বাবা-বোনকে হত্যা: নির্মমতার কারণ খুঁজছে পুলিশ
নিজস্ব ও আদালত প্রতিবেদক
প্রকাশ: সোমবার, ২১ জুন, ২০২১, ১:৫৪ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 87

রাজধানীর কদমতলীতে চেতনানাশক খাইয়ে একই পরিবারের মা-বাবা ও বোনকে হত্যার ঘটনায় করা মামলায় মেহজাবিন ইসলাম মুনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। এ ছাড়া মামলার অন্য আসামি মেহজাবিনের স্বামী শফিকুল ইসলাম অরণ্যকে রোববার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হাসপাতাল থেকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। তাদের দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এ ছাড়া হত্যাকাণ্ডের নেপথ্য কারণ হিসেবে মেহজাবিনের স্বীকারোক্তি তথা ক্ষোভের বিষয় ছাড়া আরও কোনো কারণ রয়েছে কি না, সেগুলোও যাচাই করা হবে। এর বাইরে প্রতিবেশী ও স্বজনদের করা অভিযোগ নিয়েও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্বামী শফিকুলকে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন জানিয়ে আজ আদালতে পাঠানো হবে। রোববার মামলার তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। এর আগে গত শনিবার রাত ১২টার পর নিহত মাসুদ রানার বড়ভাই শাখাওয়াত হোসেন বাদী হয়ে কদমতলী থানায় মেহজাবিন ও শফিকুলকে আসামি করে মামলা করেন।

আদালত সূত্র জানায়, রোববার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম (সিএমএম) আদালতে মেহজাবিনকে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা কদমতলী থানার পরিদর্শক (অপারেশন) জাকির হোসেন। শুনানি শেষে মহানগর হাকিম দেবব্রত বিশ^াস চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, হত্যাকাণ্ডের পর মেহজাবিন  নিজেই ৯৯৯ নম্বরে কল করে পুলিশকে বিষয়টি জানিয়েছিলেন। পরবর্তী সময়ে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ক্ষোভ থেকে পরিকল্পিতভাবে মা-বাবা আর বোনকে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন। ক্ষোভ ছাড়া আরও কোনো কারণ রয়েছে কি না সেগুলোও রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এ ছাড়া নিহতদের স্বজন ও প্রতিবেশীরা আরও কিছু অভিযোগ করেছেন, সেগুলোও খতিয়ে দেখা হবে।

/এমএইচ/




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]