ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা রোববার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১১ আশ্বিন ১৪২৮
ই-পেপার রোববার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

সংক্রমণ ৫ শতাংশের নিচে না নামলে স্কুল কলেজ খুলবে না
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: বুধবার, ১৪ জুলাই, ২০২১, ১২:৪১ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 138

লাখ লাখ শিশুর পড়াশোনা ব্যাহত হচ্ছে জানিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে ইউনিসেফ ও ইউনেসকো। ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক হেনরিয়েটা ফোর এবং ইউনেস্কোর মহাপরিচালক অড্রে অ্যাজুল এক যৌথ বিবৃতিতে এ আহ্বান জানিয়েছেন। তবে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানিয়েছেন, সংক্রমণের হার ৫ শতাংশের নিচে নামলে স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়া হবে। আর শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিনের আওতায় এনে খুলে দেওয়া হবে বিশ্ববিদ্যালয়। সম্প্রতি রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

মহামারি করোনার কারণে প্রায় ১৬ মাস ধরে দেশের সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এতে প্রাক-প্রাথমিক থেকে উচ্চশিক্ষা স্তরে পড়ুয়া ৪ কোটি শিক্ষার্থী পড়েছে বিপাকে। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে দীর্ঘ মেয়াদের এই ছুটি নজিরবিহীন। ইতঃপূর্বে দেওয়া ঘোষণা অনুযায়ী দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আগামী ৩১ জুলাই পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। কিন্তু ঈদের পর দেশজুড়ে আবারও ১৪ দিনের কঠোর লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছে সরকার। এতে আগস্ট মাসেও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। এদিকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে সব ধরনের প্রস্তুতি নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বলেছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর (মাউশি)। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় ভবন ও ক্লাসরুমের সংস্কারের জন্য আর্থিক বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

স্কুল খোলার দাবি করে দেশের ছেলেমেয়েদের মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেবেন কি না সংসদে এমন প্রশ্ন তোলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা লেখাপড়া শিখবে কিন্তু এটার জন্য জেনেশুনে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিতে পারি না। জানা গেছে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান না খোলার পেছনে শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় বেশ কিছু বিষয় বিবেচনা করছে। এর মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার ব্যাপারে নির্দেশনা হিসেবে মনে করা হচ্ছে। এ ছাড়া আরও কয়েকটি বিষয় বিবেচনা করা হচ্ছে বলে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা এই দুটি মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তারা জানান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কর্মকর্তারা বলেন, দেশে করোনায় সর্বোচ্চসংখ্যক সংক্রমণ ও মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে। মঙ্গলবার দেশে ১২ হাজার ১৯৮ জনের মধ্যে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে আরও ২০৩ জনের। আগের দিন সোমবার দেশে রেকর্ড ১৩ হাজার ৭৬৮ জনের মধ্যে করোনার সংক্রমণ ধরা পড়েছিল। আর রোববার রেকর্ড ২৩০ জনের মৃত্যু হয়েছিল। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ছিল ২৯ দশমিক ২১ শতাংশ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মানদণ্ড অনুযায়ী, টানা দুই সপ্তাহের বেশি সময় পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে থাকলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে বলে ধরা যায়। এই পরিস্থিতিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে নিষেধ করেছে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটি।

তারা আরও বলছেন, শিশুরা আক্রান্ত হলে দায় কেউ নেবে না। তখন সরকার নানা সমালোচনায় পড়বে। শনাক্তের ঊর্ধ্বগতিতে হাসপাতালগুলোতে শয্যা পাওয়া যাচ্ছে না। অভিভাবকদের মধ্যে এখনও আতঙ্ক আছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্যবিধি কতটা মানা সম্ভব হবে তা স্পষ্ট নয়। অনেক দেশেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিয়ে আবার বন্ধ করতে হয়েছে।
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা বা না খোলা নিয়ে নানা ধরনের মত আছে বাংলাদেশে। যদিও এগুলো খুলে দেওয়ার বিষয়ে সরাসরি কোনো বক্তব্য কোনো মহল থেকে আসেনি। আবার সমাধান সম্পর্কে কোনো মতামত না এলেও মার্চ থেকে এগুলো বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের ক্ষতি নিয়ে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা প্রকাশ করা হয়েছে।

মাউশির নির্দেশনায় বলা হয়, কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থী-শিক্ষক, কর্মচারীসহ সংশ্লিষ্ট সবার স্বাস্থ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। এ ছাড়াও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন, নিরাপদ ও আনন্দময় পরিবেশ সৃষ্টি করতে কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা গ্রহণের তাগিদ দেওয়া হয়। কয়েক দফা নির্দেশনা দিলেও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া সম্ভব হয়নি।

/জেডও/




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]