ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা শুক্রবার ৩০ জুলাই ২০২১ ১৫ শ্রাবণ ১৪২৮
ই-পেপার শুক্রবার ৩০ জুলাই ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

ঈদুল আজহার সর্বোত্তম ইবাদত কী
মুফতি নোমান আহমদ
প্রকাশ: সোমবার, ১৯ জুলাই, ২০২১, ৭:০৯ পিএম আপডেট: ২২.০৭.২০২১ ৯:২০ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 67

ইসলামে কোরবানি একটি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত এবং আর্থিক ইবাদতগুলোর মধ্যে কোরবানি বিশেষ স্বাতন্ত্র্য ও গুরুত্বের অধিকারী। আর ইবাদতে তাকওয়া ও আনুগত্যই আসল উদ্দেশ্য। তাই কোরবানি শুধু আল্লাহ তায়ালার জন্যই হতে হবে। তার মধ্যে লোক দেখানো বা অন্য কোনো উদ্দেশ্য থাকতে পারবে না। অন্যথায় কোরবানি আল্লাহর কাছে কবুল হবে না। কোরআনে আল্লাহ বলেন, ‘কোরবানির গোশত ও রক্ত আল্লাহর কাছে পৌঁছে না, কিন্তু তাঁর কাছে পৌঁছে তোমাদের মনের তাকওয়া।’ (সুরা হজ : আয়াত-৩৭)।

হাদিসে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, আল্লাহ তায়ালা তোমাদের আকৃতি ও ধন-সম্পদের দিকে তাকাবেন না, কিন্তু তিনি তোমাদের অন্তর ও আমলের দিকে তাকাবেন। (মুসলিম শরিফ)

কোরবানি ইব্রাহিম (আ.)-এর সুন্নাত : যায়েদ বিন আরকম থেকে হাদিস শরিফে বর্ণিত, সাহাবায়ে-কেরাম রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে প্রশ্ন করলেন, হে আল্লাহর রাসুল! কোরবানি কী? তিনি উত্তরে বলেন, তোমাদের পিতা ইব্রাহিম (আ.)-এর সুন্নাত। (মিশকাত শরিফ)।

কোরবানি সর্বোত্তম ইবাদত : আম্মাজান আয়েশা সিদ্দিকা (রা.) থেকে হাদিস শরিফে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, কোরবানির দিনসমূহে আল্লাহ তায়ালার নিকট সবচেয়ে প্রিয় ইবাদত কোরবানি। কিয়ামতের দিন কোরবানির পশু নিজের শিং, পশম, খুরসহ উপস্থিত হবে। কোরবানির পশুর রক্ত জমিনে পতিত হওয়ার আগেই আল্লাহর নিকট কবুল হয়ে যায়। সুতরাং কোরবানি আনন্দচিত্তে ও সাগ্রহে করো। (তিরমিজি)।

প্রতি পশমে নেকি : যায়েদ বিন আরকম থেকে বর্ণিত, সাহাবায়ে-কেরাম (রা.) প্রশ্ন করলেন, ‘হে আল্লাহর রাসুল! কোরবানির মধ্যে আমাদের জন্য কী আছে? রাসুলুল্লাহ (সা.) উত্তরে বলেন, প্রত্যেক পশমে একটি নেকি দেওয়া হবে। সাহাবারা পুনরায় প্রশ্ন করলেন, হে আল্লাহর রাসুল! ভেড়ার লোমের কী হকুম? রাসুলুল্লাহ (সা.) উত্তরে বলেন, ভেড়ার প্রত্যেক লোমে একটি নেকি দেওয়া হবে। (মিশকাত শরিফ)।

আল্লাহর পক্ষ থেকে মেহমানদারি : কোরবানির দিনগুলোতে রোজা রাখা নিষেধ করা হয়েছে। এ সময় নিজে গোশত খাবে এবং গরিবকে খাওয়াবে। আর আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করবে। কোরআনে আল্লাহ বলেন, ‘সুতরাং সারিবদ্ধভাবে বাঁধা অবস্থায় পশুদের জবাই করার সময় তোমরা আল্লাহর নাম উচ্চারণ কর। অতঃপর যখন তারা কাত হয়ে পড়ে যায় তখন তা থেকে তোমরা আহার করো এবং আহার করাও দুস্থ, অভাবগ্রস্ত ব্যক্তি যে পরিতুষ্ট, যাঞ্চা করে না তাকে এবং যে যাঞ্চা করে তাকে।’ (সুরা হজ : আয়াত ৩৬)। উকবা বিন আমের থেকে হাদিস শরিফে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, আরফার দিন, কোরবানির দিন, তাকবিরে তাশরিকের দিনগুলো আমাদের ঈদের দিন এবং এ দিনগুলো খাওয়া ও পান করার দিন। (তিরমিজি)।

শরিকানা কোরবানি : উট, গরু ও মহিষে সাতজন পর্যন্ত অংশীদার হয়ে কোরবানি করতে পারবেন। তার চেয়ে বেশি হতে পারবে না। আর ছাগল-ভেড়া ও দুম্বায় একজনের বেশি পারবেন না। হজরত যাবির (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমরা রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর সঙ্গে হুদায়বিয়ার বছর সাতজনের পক্ষ থেকে উট কোরবানি এবং সাতজনের পক্ষ থেকে গরু কোরবানি করছি। (মুসলিম শরিফ)।

সক্ষম ব্যক্তি কোরবানি করবে : আল্লাহ তায়ালা কোরআনে বলেন, ‘অতঃএব আপনার পালনকর্তার উদ্দেশ্যে নামাজ পড়ুন এবং কোরবানি করুন।’ (সুরা কাউছার : আয়াত-২)। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, কোনো ব্যক্তির কাছে কোরবানি করার ক্ষমতা আছে, তারপরও সে কোরবানি করল না, তা হলে সে আমাদের ঈদগাহের কাছেও আসবে না। (ইবনে মাজা)। ইবনে উমর (রা.) থেকে হাদিস শরিফে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (রা.) মদিনা শরিফে ১০ বছর অবস্থান করছেন। তিনি প্রতিবছর কোরবানি করছেন। (তিরমিজি)। আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে কোরবানি করার এবং এর পূর্ণ ফজিলত অর্জন করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

লেখক : মুহাদ্দিস, জামিয়া ইসলামিয়া
     সোলতানিয়া, লালপোল, ফেনী

/জেডও/




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]