ই-পেপার বিজ্ঞাপনের তালিকা রোববার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১১ আশ্বিন ১৪২৮
ই-পেপার রোববার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
http://www.shomoyeralo.com/ad/amg-728x90.jpg

নির্বাচন নিয়ে পরিকল্পনা : বিএনপির মনোযোগ দল মেরামতে
সাব্বির আহমেদ
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ২:২৮ এএম | অনলাইন সংস্করণ  Count : 157

আন্দোলন জয়ী হয়েই আগামী নির্বাচনে অংশ নেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি। তবে এর আগে নিজেদের ফুটো সারাতে চায়। দীর্ঘদিন ক্ষমতায় বাইরে থাকা বিএনপির লক্ষ্য নির্বাচন, তবে বর্তমান সরকারের অধীনে নয়। দলনিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন আদায়ে আটঘাট বেঁধে নামার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। এবার নির্বাচনকালীন ছকে কয়েকটি বিষয় গুরুত্ব পাচ্ছে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন করে গেল নির্বাচনে অনেক সময় ফুরিয়েছে। এবার বুঝেশুনে ঐক্যের ভেলা তৈরি করার মত বেশিরভাগ নেতার। সে সঙ্গে বিএনপির জোট মিত্র জামায়াতে ইসলামীকে ‘কৌশলে’ রাখার পক্ষে তারা।

বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের বৈঠকে এমন আভাসই মিলেছে। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে ‘নির্বাচনের প্রস্তুতি’ নিয়ে আলোচনার এক সপ্তাহের মধ্যে সভা করল বিএনপি। প্রায় সাড়ে তিন বছর পর হঠাৎ করে বড় পরিসরে দলের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সম্পাদকীয় পদের নেতাদের নিয়ে ডাকা বৈঠকের মাধ্যমে সরব হচ্ছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা।

গঠনতন্ত্র না মেনে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দায়িত্ব পালন করছেন- দলের শুভাকাক্সক্ষী হিসেবে পরিচিত গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর এমন বক্তব্যে চটেছেন বিএনপির সিনিয়র নেতারা। ভরা মজলিসে বিষোদ্গার করেছেন কয়েকজন নেতা। এমনকি জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে ভবিষ্যতে বিএনপির কোনো অনুষ্ঠানে অতিথি করা হবে না। বৈঠকে অংশ নেওয়া বিএনপি চেয়ারপারসনের একজন উপদেষ্টা সময়ের আলোকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি আরও জানান, দলের মধ্যে সরকারের ‘দালাল’দের তাড়াতে ও কোণঠাসা করতে জোরালো আওয়াজ ওঠে। জামায়াতকে কৌশলে জোটে রাখার পক্ষে মত আসে। তবে দুয়েকজন জামায়াতে ইসলামীকে জোটের সঙ্গে না রাখার পরামর্শ দিয়েছেন। কারণ হিসেবে তারা বলেছেন, জামায়াতের কারণে দেশে-বিদেশে সমালোচনার মধ্যে পড়তে হচ্ছে। তবে এসব বিষয়ে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সোজাসাপ্টা কোনো জবাব দেননি। আজকে শেষ বৈঠকে হয়তো তিনি এসব বিষয়ে কথা বলবেন। তিনি আরও জানান, জাতীয় ঐক্য নিয়ে ‘বিক্ষিপ্ত’ আলোচনা হয়েছে। তবে অভিন্ন প্লাটফর্মে থেকে যুগপৎ আন্দোলনের পক্ষে মত দেন অনেকে।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহম্মেদ সময়ের আলোকে বলেন, এই সরকারের অধীনে কেন ভোটে যাব? কোনো যুক্তি নেই। গতবার তো প্রমাণ হয়েছে। বর্তমান সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাওয়া বোকামি। ছয়বারের এমপি হয়ে আমি নির্বাচনের সময় ঘর থেকে বের হতে পারিনি। আন্দোলন ছাড়া বিকল্প নেই। তার মতে, ভোটের আগে যে জোটই হোক না কেন, সবকিছুতে নেতৃত্বের নাটাই বিএনপির হাতে রাখতে হবে। তাই সময় নিয়ে সব গোছাতে হবে।

বিএনপির সিনিয়র নেতারা বলছেন, আন্দোলন ও নির্বাচন নিয়ে কার্যকর একটি রূপরেখা তৈরি করতে হবে এখনই। আন্দোলন জোরদার করতে পাড়ায় পাড়ায় গিয়ে সবাইকে এক করতে হবে। তৃণমূলে দলের কোন্দল ও বিভেদ শিগগির মেটাতে হবে। মাঠ পর্যায়ের নেতাদের মনোভাব জানার চেষ্টা করতে হবে নীতিনির্ধারকদের। নির্বাচনে যাওয়া কিংবা না যাওয়া নিয়ে সিদ্ধান্ত আগেভাগেই চূড়ান্ত করতে হবে। সরকারের কোনো টোপ বা প্রলোভনে পা দেওয়া যাবে না।

বিএনপি চেযারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব সময়ের আলোকে বলেন, দল পুনর্গঠন নিয়ে সবচেয়ে বেশি কাজ করতে হবে। আন্দোলনের জন্য দলকে সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী করা ছাড়া কোনো বিকল্প নেই। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সবাইকে দলের স্বার্থে কাজ করতে বলেছেন। দলের ভেতরে দল না করার পরামর্শ দিয়েছেন। সবাইকে দলীয় অনুষ্ঠানে আরও সক্রিয় হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। সবাইকে এলাকায় সক্রিয় হওয়ার কথা বলেছেন।

অন্যদিকে বিএনপির ধারাবাহিক বৈঠকে বুধবার নির্বাহী কমিটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব, যুগ্ম মহাসচিব, সাংগঠনিক সম্পাদক, সম্পাদক ও সহসম্পাদকরা অংশ নেন। আজ বৃহস্পতিবার অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতাদের সভা অনুষ্ঠিত হবে।

/জেডও/




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত


ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: কমলেশ রায়, আমিন মোহাম্মদ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড
এর পক্ষে প্রকাশক গাজী আহমেদ উল্লাহ
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৮৯, বীর উত্তম সি আর দত্ত সড়ক (সোনারগাঁও রোড), বাংলামোটর, ঢাকা।

ফোন : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৬৮-৭৪, ফ্যাক্স : +৮৮-০২-৯৬৩২৩৭৫। ই-মেইল : [email protected]